উরুগুয়ের ইতিহাস

ইতিহাসের বিভিন্ন দিক

উরুগুয়ের ইতিহাসের বিভিন্ন পর্যায় রয়েছে: প্রাক-কলম্বিয়া বা প্রথম পর্যায় (ষোড়শ শতাব্দী পর্যন্ত), উপনিবেশিক সময়কাল (১৫১৬-১৮১৮), জাতি গঠনের সময়কাল (১৮১১-১৮৩০) এবং স্বাধীন উরুগুয়ে (প্রায় ১৮৩০ থেকে)।

আদিবাসীসম্পাদনা

হেনড্রিক ওটসেন জার্নাল থেকে চিত্র: উরুগুয়ের ইন্ডিয়ান্স (রেড), ১৬০৩ খ্রি.।
মন্টেভিডিওতে চারুয়াসের স্মৃতিস্তম্ভ।

এখানে মানুষের উপস্থিতির আদিমতম চিহ্নগুলি প্রায় ১০,০০০ বছরের পুরানো এবং তা কাতালানেন্স এবং কুইয়ারিম শিকারী-সংস্কৃতির সঙ্গে সম্পর্কিত। এগুলি ছিল সম্প্রসারিত ব্রাজিল সংস্কৃতির অন্তর্গত। আবিষ্কৃত প্রাচীনতম বোলা প্রায় ৭,০০০ বছরের পুরানো। প্রাচীন শৈল শিল্প-র নমুনা পাওয়া গেছে চামাঙ্গা-য়। প্রায় ৪,০০০ বছর আগে আসে চারুয়া এবং গুয়ারানি জনগোষ্ঠী। প্রাক-উপনিবেশিক সময়ে উরুগুয়ের ভূখণ্ডে যাযাবর চারুয়া, চানা, আরাচান এবং গুয়ারানি জনগোষ্ঠীর ছোট ছোট উপজাতিরা বাস করত। শিকার ও মাছ ধরে তারা বেঁচে থাকত এবং সম্ভবত ১০,০০০ থেকে ২০,০০০-এর বেশি তাদের জনসংখ্যা পৌঁছায়নি। অনুমান করা হয়, ১৫০০-র দশকে ইউরোপীয়দের সাথে প্রথম যোগাযোগের সময় প্রায় ৯,০০০ চারিয়া এবং ৬,০০০ চানা এবং গুয়ারানি ছিল। ইউরোপীয় রোগ এবং অবিরাম যুদ্ধের ফলে উরুগুয়ের স্বাধীনতার সময় আদিবাসীরা প্রায় অদৃশ্য হয়ে গিয়েছিল।[১]

ইউরোপীয় গণহত্যার পরিণতি ঘটে, এপ্রিল ১১, ১৮৩১ সালের স্যালসিপিউডিস গণহত্যা দিয়ে। প্রেসিডেন্ট ফ্রাকটুয়োসো রিভিয়েরা-র আদেশে উরুগুয়ান সেনাবাহিনীর হাতে বেশিরভাগ পুরুষ (আদিবাসী) মারা যায়। ইউরোপীয়দের দাস ও চাকর হিসাবে বাকি ৩০০ চারুয়া মহিলা ও শিশু বেঁচে গিয়েছিল।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

উপনিবেশসম্পাদনা

 
দক্ষিণ আমেরিকার স্পেনীয় এবং পর্তুগিজ নিয়ন্ত্রণ, ১৭৫৪ খ্রিস্টাব্দ।

উপনিবেশিক যুগে, বর্তমান উরুগুয়ের অঞ্চলটি পরিচিত ছিল বান্দা ওরিয়েন্টাল (উরুগুয়ে নদীর পূর্ব তীরের অংশ) নামে। এটি ছিল দুই উপনিবেশ পর্তুগিজ ব্রাজিলস্পেনীয় সাম্রাজ্যর মধ্যস্থ বাফার অঞ্চলে। পর্তুগিজরা ১৫১২-১৫১৫ সালে বর্তমান উরুগুয়ে অঞ্চলটির প্রথম সন্ধান পায়।[২]

এ দেশে প্রথম ইউরোপীয় অভিযাত্রী জুয়ান ডিয়াজ দে সোলিস আসেন ১৫১৬ সালে। তবে স্থানীয় আদিবাসীরা তাঁকে হত্যা করে। ফার্দিনান্দ ম্যাগেলান ১৫২০ সালে মন্টেভিডিওতে নোঙ্গর ফেলেন। ১৫২৬ সালে সেবাস্তিয়ান ক্যাবোট, রিও দে লা প্লাটা আবিষ্কার করেন, কিন্তু তখন কোনও স্থায়ী বসতি স্থাপন করা হয়নি। ১৬ এবং ১৭ শতকে এই অঞ্চলে সোনা ও রূপার সীমিত পরিমাণের কারণে এখানে বসতি স্থাপন ছিল খুব অল্প। ১৬০৩ সালে হারনান্দো আরিয়াস দে সাভেদ্রার আদেশে এখানে গবাদি পশু এবং ঘোড়ার প্রচলন করা হয় এবং ১৭-শতাব্দীর মাঝামাঝিতে সেগুলির সংখ্যা ব্যাপক বৃদ্ধি পায়। স্প্যানিশ জেসুইটদের দ্বারা বর্তমান উরুগুয়ে ভূখণ্ডে প্রথম স্থায়ী সেটেলমেন্টটি করা হয় ১৬২৪ সালে। তাঁরা রিও নেগ্রোর ভিলা সোরিয়ানোতে চারুয়াসে জন্য প্রতিষ্ঠার চেষ্টা করেছিলেন মিসিনিস ওরিয়েন্টালিস ব্যবস্থা।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

১৬৮০ সালে, পর্তুগিজ উপনিবেশিকরা বুয়েনোস আইরেস-এর বিপরীত উপকূলে, লা প্লাতা নদীর উত্তর তীরে প্রতিষ্ঠা করে কলোনিয়া ডো স্যাক্রামেন্তোপর্তুগাল-এর ব্রাজিল-সীমান্ত সম্প্রসারণকে সীমাবদ্ধ করার চেষ্টার সাথে সাথে স্পেনের উপনিবেশিক কার্যকলাপও বৃদ্ধি পেতে থাকে। ১৭২৬ সালে, স্পেনীয়রা উত্তর তীরে প্রতিষ্ঠা করে সান ফেলিপে দে মন্টেভিডিও এবং তার প্রাকৃতিক সমুদ্র-বন্দরটি অচিরেই বুয়েনোস আইরেস-এর সাথে প্রতিযোগিতামূলক বাণিজ্যিক কেন্দ্রে পরিণত হয়। তারা কলোনিয়া দেল স্যাক্রামেন্টো দখল করতে অগ্রসরও হয়। ১৭৫০ সালের মাদ্রিদ চুক্তি, বান্দা ওরিয়েন্টালের উপর স্পেনীয় নিয়ন্ত্রণ সুরক্ষিত করে, এবং বসতি স্থাপনকারীদের এখানে জমি দেওয়া হয়। একটি স্থানীয় ক্যাবিল্ডো তৈরি করাও হয়।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

বুয়েনোস আইরেসকে রাজধানী করে, নতুন রিও দে লা প্লাতার ভাইসরয়্যালটি প্রতিষ্ঠিত হয় ১৭৭৬ সালে। এটি বান্দা ওরিয়েন্টাল অঞ্চলের অন্তর্গত ছিল। এই সময়ে জমিজমা, গবাদি পশু খামারের মালিকদের মধ্যে ভাগাভাগি করা হয় এবং গরুর মাংস হয়ে ওঠে একটি বড় পণ্য। ১৮০০ সালের মধ্যে, ১০,০০০ -এর বেশি মানুষ মন্টেভিডিওতে এবং আরও ২০,০০০ বাস করত প্রদেশের বাকি অংশে । এর মধ্যে প্রায় ৩০% ছিল আফ্রিকান ক্রীতদাস।[৩]

উরুগুয়ের ১৯ শতকের গোড়ার ইতিহাসটি রূপ পেয়েছিল, লা প্লাটা অববাহিকায় আধিপত্য বিস্তারের জন্য ব্রিটিশ, স্প্যানিস, পর্তুগিজ এবং স্থানীয় উপনিবেশিক শক্তির মধ্যে প্রতিনিয়ত সংঘাতের দ্বারা। ১৮০৬ এবং ১৮০৭ সালে, অ্যাংলো-স্প্যানিশ যুদ্ধ (১৭৯৬-১৮০৮)-এর সময়, ব্রিটিশরা আক্রমণ করে। তারা ১৮০৬ সালে বুয়েনোস আইরেসের দখল নেয় এবং পরে সান্তিয়াগো ডি লিনিয়ার্স-এর নেতৃত্বে মন্টেভিডিও বাহিনী তা মুক্ত করে। ১৮০৭ সালে নতুন এবং আরও শক্তিশালী ব্রিটিশ আক্রমণে, ১০,০০০-শক্তিশালী ব্রিটিশ বাহিনী, মন্টেভিডিও দখল করে। কিন্তু ব্রিটিশ বাহিনী দ্বিতীয়বারের মতো বুয়েনোস আইরেস আক্রমণ করতে অসমর্থ হয়। তবে লিনিয়ার্স, মন্টেভিডিওর মুক্তির বিনিময়ের শর্তে, আত্মসমর্পণের দাবী করেন। যখন নেপোলিয়ন-এর বিরুদ্ধে উপদ্বীপ যুদ্ধ-এ গ্রেট ব্রিটেন এবং স্পেন মিত্র হিসাবে অংশগ্রহণ করে, তখন ব্রিটিশরা তাদের আক্রমণ পরিত্যাগ করে।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

স্বাধীনতার জন্য সংগ্রাম, ১৮১১–২৮সম্পাদনা

আর্টিগাসের অধীনে প্রাদেশিক স্বাধীনতাসম্পাদনা

 
আর্টিগাসের পতাকা
 
জোসে গার্ভাসিয়ো আর্টিগাস, জুয়ান ম্যানুয়েল ব্ল্যানস দ্বারা চিত্রিত।
 
প্রাদেশিক রাজনৈতিক অনুগামী (allegiances), ১৮১৬ খ্রি.।

১৮১০ সালের মে বিপ্লব-কে চিহ্নিত করা যায়, বুয়েনোস আইরেসে ভাইস-রয়্যালটিতে স্পেনের শাসনের পরিসমাপ্তি এবং রিও দে লা প্লাটার ইউনাইটেড প্রদেশ-এর প্রতিষ্ঠাকাল হিসাবে। এই বিপ্লব, মন্টেভিডিওর বাসিন্দাদের দ্বিধা-বিভক্ত করে। তাদের মধ্যে অনেকেই ছিল রাজবাদী, মানে, স্পেনের মুকুটের অনুগত আর ছিল বিপ্লবী, যারা স্পেন থেকে প্রদেশগুলির স্বাধীনতা অর্জনের সমর্থক ছিল । এটি অচিরেই বুয়েনোস আইরেস এবং স্প্যানিশ ভাইসরয়কে প্রথম বান্দা ওরিয়েন্টাল প্রচার-এ পরিচালিত করে।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

জোসে গার্ভাসিয়ো আর্টিগাস-এর অধীনে স্থানীয় দেশপ্রেমিকরা ১৮১১ সালের ২৬ ফেব্রুয়ারিতে এক ঘোষণাপত্র জারি করে। এটিতে স্প্যানিশ শাসনের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করার আহ্বান জানানো হয়। বুয়েনোস আইরেসের সহায়তায় আর্টিগাস, ১৮ মে ১৮১১ সালে লা পিয়েদ্রাস যুদ্ধ-এ স্পেনীয়দের পরাজিত করেন এবং মন্টেভিডিও অবরোধ-এর সূচনা করেন। তখন স্পেনীয় ভাইসরয়, ব্রাজিল থেকে বান্দা ওরিয়েন্টালে সামরিক অভিযান চালানোর জন্য পর্তুগিজদের আমন্ত্রণ জানান। পর্তুগিজদের কাছে এই প্রদেশটি হারানোর ভয়ে বুয়েনোস আইরেস, স্প্যানিশ ভাইসরয়ের সাথে শান্তি স্থাপন করে। ১৮১১ সালের শেষের দিকে ব্রিটিশদের চাপে পর্তুগিজরা তা প্রত্যাহার করে এবং মন্টেভিডিওর নিয়ন্ত্রণে রাজভক্তদের রেখে দেয়। বুয়েনোস আইরেসের এই বিশ্বাসঘাতকতায় ক্রুদ্ধ হয়ে আর্টিগাস প্রায় ৪০০০ সমর্থক নিয়ে এন্ট্রে রিওস প্রদেশ-এ ফিরে আসেন। ১৮১৩ সালে দ্বিতীয় বান্দা ওরিয়েন্টাল প্রচার-এর সময়, আরটিগাস বুয়েনোস আইরেস থেকে জোসে রনদিউ-এর সেনাবাহিনীতে যোগ দেন এবং দ্বিতীয় মন্টেভিডিও অবরোধ শুরু করেন। এর ফলে ঘটে রিও দে লা প্লাটার আত্মসমর্পণ।

আর্টিগাস স্বাধীন জনগণের লীগ গঠনে অংশ নেন, যা বেশ কয়েকটি প্রদেশকে একত্রিত করে বুয়েনোস আইরেসের অধীনতা থেকে মুক্ত হওয়ার দাবী করে এবং টুকুমানের কংগ্রেস অনুসারে একটি কেন্দ্রীয় রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা করতে চায়। আরটিগাসকে এই লীগের রক্ষক হিসাবে ঘোষণা করা হয়। তাঁর রাজনৈতিক ধারণা (আর্টিগুইজম) দ্বারা পরিচালিত একটি জমি সংস্কার ব্যবস্থা চালু করে, ছোট কৃষকদের জমি ভাগ করে দেওয়া হয়।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

ব্রাজিলিয়ান প্রদেশসম্পাদনা

লিগা ফেডারেল-এর অবিচ্ছিন্ন প্রভাব ও প্রতিপত্তি বৃদ্ধিতে পর্তুগিজ সরকার আতঙ্কিত হয়ে পড়ে। তারা চায় না, লীগের প্রজাতন্ত্রবাদ, ব্রাজিলের সংলগ্ন পর্তুগিজ উপনিবেশে ছড়িয়ে পড়ে। আর্তিগাস ও তাঁর বিপ্লবকে ধ্বংস করার অভিপ্রায়ে, ১৮১৬ সালের আগস্টে ব্রাজিল বাহিনী দ্বারা বান্দা ওরিয়েন্টালে পর্তুগিজ আক্রমণ চালিত হয়। পর্তুগিজ বাহিনী, নেপোলিয়োনিক যুদ্ধ-র ঢাঁচে সম্পূর্ণ সশস্ত্র বাহিনীর সুশৃঙ্খল ইউরোপীয় পর্তুগীজ প্রবীণদের সাথে স্থানীয় ব্রাজিলিয়ান সেনাদের অন্তর্ভুক্ত করে। এই সেনাবাহিনী আরও সামরিক অভিজ্ঞতা ও বাস্তব দক্ষতায়, জানুয়ারী ২০, ১৮১৭ সালে মন্টেভিডিও দখল করে। ১৮২০ সালে, আর্টিগাসের বাহিনী অবশেষে টাকুয়ারেম্বো যুদ্ধ-এ পরাজিত হয় এবং তারপরে বান্দা ওরিয়েন্টালকে ব্রাজিলের সিসপ্লাটিনা প্রদেশ হিসাবে অন্তর্ভুক্ত করা হয়। ১৮২৩-২৪ সালে ব্রাজিলের স্বাধীনতা যুদ্ধের সময়, আরও একটি মন্টেভিডিওর অবরোধ ঘটেছিল।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

তেত্রিশসম্পাদনা

১৮৩০ খ্রিস্টাব্দে সংবিধানের ঘোষণা।
তেত্রিশের শপথ।
তেত্রিশের পতাকা।

১৮২৫ সালের ১৯ এপ্রিলে সিসপ্লাটিনায়, বুয়েনোস আইরেসের সহায়তায় জুয়ান আন্তোনিও লাভাল্লেজা-র নেতৃত্বে তেত্রিশ বা থার্টি-থ্রি ওরিয়েন্টালস-এর অবতরণা করা হয়। তারা ২০ মে মন্টেভিডিয়ো-য় পৌঁছোয়। ১৪ জুন, লা ফ্লোরিডায় একটি অস্থায়ী সরকার গঠিত হয়। ২৫ আগস্টে সদ্য নির্বাচিত প্রাদেশিক সংসদ ব্রাজিল সাম্রাজ্য থেকে সিসপ্লাটিনা প্রদেশকে বিচ্ছিন্ন করার কথা ঘোষণা করে এবং রিও দে লা প্লাটারার ইউনাইটেড প্রদেশ-এর প্রতি আনুগত্য ঘোষণা করে। এর উত্তরে ব্রাজিল শুরু করে সিসপ্লাটিনি যুদ্ধ[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

এই যুদ্ধের সমাপ্তি ঘটে ১৮৩০ সালের ২৭ আগস্ট মন্টেভিডিও চুক্তি স্বাক্ষরের পর। ব্রিটিশ কূটনীতিক ভিসকাউন্ট পনসনবির মধ্যস্থতায় ব্রাজিল এবং আর্জেন্টিনা, তাদের মধ্যের একটি বাফার রাষ্ট্র হিসাবে স্বাধীন উরুগুয়েকে স্বীকৃতি দিতে সম্মত হয়। তবে উরুগুয়ের স্বাধীনতার স্বীকৃতী, প্যারাগুয়ের পক্ষ থেকে দেওয়া হয়নি। কেবল প্যারাগুয়ান যুদ্ধ-এর মাধ্যমে এই বৃহৎ প্রতিবেশীর উচ্চাকাঙ্ক্ষার থেকে উরুগুয়ে তার স্বাধীনতা অর্জন করে নিয়েছিল।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন] ১৮২৯ সালের সেপ্টেম্বরে ১৮৩০ এর সংবিধান অনুমোদিত হয় এবং ১৮ জুলাই ১৮৩০ সালে তা কার্যকর করা হয়।[৪]

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. Jermyn, pp. 17–31.
  2. Bethell, Leslie (১৯৮৪)। The Cambridge History of Latin America, Volume 1, Colonial Latin America। Cambridge: Cambridge University Press। পৃষ্ঠা 257। 
  3. Ciferri, Alberto (২০১৯)। An Overview of Historical and Socio-economic Evolution in the Americas। United Kingdom: Cambridge Scholars Publishing। পৃষ্ঠা 483। আইএসবিএন 1-5275-3513-4 
  4. Burford, p. 17.