আহমদ ইবনে আবি দু'আদ

মুসলিম পন্ডিত

আবু আবদুল্লাহ আহমদ ইবনে আবি দু'আদ, ছিলেন মধ্য-নবম শতকের একজন ইসলাম ধর্মীয় বিচারক(কাজী)ও মুতাজিলা মতবাদের একজন প্রবক্তা। ৮৩৩ খ্রিষ্টাব্দে আব্বাসীয় খিলাফতকালে তিনি প্রধান বিচারক হিসেবে নিযুক্ত হয়েছিলেন এবং আল মুতাসিমআল ওয়াসিক এর শাসনকালীন সময়ের মধ্যে অত্যন্ত প্রভাবশালী হয়ে যান। প্রধান বিচারক থাকাকালীন সময়ে তিনি মুতাজিলা মতবাদকে রাষ্ট্রের সরকারী আদর্শ হিসাবে ধরে রাখার চেষ্টা করেছিলেন এবং কর্মকর্তা ও পন্ডিতদের মধ্যে মুতাজিলা মতবাদগুলোর ব্যবহার নিশ্চিত করতে তিনি তদন্তের (মিনহা) বিচারের ক্ষেত্রে অগ্রনী ভূমিকা পালন করেছিলেন। [১] ৮৪৮ সালে ইবনে আবি দু'আদ পক্ষাঘাতে আক্রান্ত হন এবং তার পদে নিজের পুত্র মুহাম্মদ কে বসান, তবে আল-মুতাওয়াক্কিলের খেলাফত কালে তার পরিবারের প্রভাব হ্রাস পায়। যিনি ধীরে ধীরে মুতাজিলা মতবাদকে পরিত্যাহ করেছিলেন এবং মিনহা-র ব্যবহারে ইতি টেনেছিলেন।

বেশ কয়েকটি খলিফার আমলে প্রবীণ অধিকারীদের একজন হিসাবে আব্বাসীয় দরবারে ইবনে আবি দু'দ-এর মর্যাদার উচ্চতাকে বার্মাকিডদের সাথে তুলনা করা হয়েছে। [২] একজন শীর্ষস্থানীয় মুতাজিলা মতবাদপ্রবর্তক এবং মিনজার অন্যতম প্রধান স্থপতি হিসেবে ইবনে আবি দু'আদ বিবেচিত। তবে, খ্যাতিমান ধর্মতত্ত্ববিদ আহমদ বিন হাম্বল সহ গোঁড়া-পন্ডিতদের উপর তার অত্যাচার মৃত্যু পরবর্তী সময়ে তার খ্যাতিনাশ করেছে এবং পরবর্তী সুন্নি জীবনীবিদদের দ্বারা অবজ্ঞার পাত্রে পরিণত হয়েছিলেন।

প্রাথমিক কর্মজীবনসম্পাদনা

আল-মুতাসিমের অধীনে প্রধান বিচারপতিসম্পাদনা

আল-ওয়াথিকের অধীনেসম্পাদনা

পতন এবং মৃত্যুসম্পাদনা

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. Tillier, Mathieu (২০০৯-১২-০৫), "I - Le grand cadi", Les cadis d'Iraq et l'État Abbasside (132/750-334/945), Études arabes, médiévales et modernes, Beyrouth: Presses de l’Ifpo, পৃষ্ঠা 426–461, আইএসবিএন 978-2-35159-278-6, সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৬-১৩ 
  2. Hurvitz 2002, পৃ. 123-24।