আসফ উদ দৌলা (হিন্দি: आसफ़ उद दौला, উর্দু: آصف الدولہ‎‎) (২৩ সেপ্টেম্বর ১৭৪৮ – ২১ সেপ্টেম্বর ১৭৯৭) ছিলেন অযোধ্যার নবাব উজির। ১৭৭৫ সালের ২৬ জানুয়ারি থেকে ১৭৯৭ সালের ২১ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত তিনি এই পদে ছিলেন।[১]

আসফ উদ দৌলা
মীর্জা (রাজকীয় উপাধি)
আওধের নবাব উজির
খান বাহাদুর
আদান মুকাম[nt ১]
Water colour in style of Zoffany
রাজত্বকাল১৭৭৫–১৭৯৭
রাজ্যাভিষেক২৬ জানুয়ারি ১৭৭৫
পূর্ণ নামমুহাম্মদ ইয়াহিয়া মীর্জা আমানি আসফ উদাহরণ দৌলা
জন্ম(১৭৪৮-০৯-২৩)২৩ সেপ্টেম্বর ১৭৪৮
জন্মস্থানফৈজাবাদ
মৃত্যু২১ সেপ্টেম্বর ১৭৯৭(1797-09-21) (বয়স ৪৮)
মৃত্যুস্থানলখনৌ
সমাধিস্থলবড় ইমামবাড়া, লখনৌ
পূর্বসূরিসুজাউদ্দৌলা
উত্তরসূরিওয়াজির আলি খান
সন্তানাদিওয়াজির আলি খান (দত্তকপুত্র)
রাজবংশনিশাপুরি
পিতাসুজাউদ্দৌলা
মাতাউমাতউজ্জোহরা বেগম সাহেবা
ধর্মবিশ্বাসইসলাম

শাসনকালসম্পাদনা

পিতা সুজাউদ্দৌলা মারা যাওয়ার পর আসাফউদ্দোউলা ২৬ বছর বয়সে নবাব হন।[২]

রাজধানী স্থানান্তরসম্পাদনা

১৭৭৫ সালে তিনি ফৈজাবাদ থেকে লখনৌয়ে রাজধানী স্থানান্তর করে। বড় ইমামবাড়া এবং আরো অন্যান্য স্থাপনা এখানে গড়ে তোলা হয়।

স্থাপত্য ও অন্যান্য অবদানসম্পাদনা

নবাব আসাফউদ্দৌলা লখনৌয়ে বেশ কিছু স্থাপত্য গড়ে তুলেছেন। এর মধ্যে রয়েছে বড় ইমামবাড়া, আসফি মসজিদ ইত্যাদি। তিনি তার দানশীলতার জন্য খ্যাত ছিলেন।

৬০ ফুট উচু রুমি দারওয়াজা ইস্তানবুলের বাব-ই-হুমায়ুনের আদলে নির্মিত হয়েছিল।[৩] এটি দুই সংস্কৃতির মধ্যে বিনিময়ের একটি উদাহরণ।[৪]

মৃত্যুসম্পাদনা

 
বড় ইমামবাড়ায় আসাফউদ্দৌলার কবর; সীতা রামের জলরং, আনুমানিক.১৮১৪–১৫

আসাফউদ্দৌলা ১৭৯৭ সালের ২১ সেপ্টেম্বর মৃত্যুবরণ করেন। তাকে লখনৌয়ের বড় ইমামবাড়ায় দাফন করা হয়।

গ্যালারিসম্পাদনা

পূর্বসূরী
জালালউদ্দিন সুজাউদ্দৌলা হায়দার
আওয়াধের নবাব উজির আল-মামালিক
২৬ জানুয়ারি ১৭৭৫ – ২১ সেপ্টেম্বর ১৭৯৭
উত্তরসূরী
ওয়াজির আলি খান

আরও দেখুনসম্পাদনা

টীকাসম্পাদনা

  1. title after death

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "Indian Princely States A-J" 
  2. "Full text of "Oudh AndThe East India Company"" 
  3. "Rumi Darwaza" 
  4. "Lucknow"। Encyclopædia Britannica। সংগ্রহের তারিখ ২০০৮-০৫-২০ 

বহিঃসংযোগসম্পাদনা

  এই নিবন্ধটি একটি প্রকাশন থেকে অন্তর্ভুক্ত পাঠ্য যা বর্তমানে পাবলিক ডোমেইনেচিসাম, হিউ, সম্পাদক (১৯১১)। "Asaf-ud-Dowlah"। ব্রিটিশ বিশ্বকোষ2 (১১তম সংস্করণ)। কেমব্রিজ ইউনিভার্সিটি প্রেস। পৃষ্ঠা 714। [[বিষয়শ্রেণী:উইকিসংকলনের তথ্যসূত্রসহ ১৯১১ সালের এনসাইক্লোপিডিয়া ব্রিটানিকা থেকে উইকিপিডিয়া নিবন্ধসমূহে একটি উদ্ধৃতি একত্রিত করা হয়েছে]]