আশাগি লামিয়া (জন্ম: ৬ই মার্চ ১৯৮৯) হলেন একজন ভারতীয় শিল্পী, টেলিভিশন উপস্থাপক, চিত্রনাট্যকার, আলোকচিত্রী এবং অভিনেত্রী। তিনি দর্শন টিভির (বিজনেস স্টার)[১] বেশ কয়েকটি অনুষ্ঠান উপস্থাপনা করেছেন। তিনি একজন আলোকচিত্রী হিসেবে ২০১০ জাতীয় পুরস্কার লাভের পর অধিক পরিচিতি লাভ করেছেন।[২]

আশাগি লামিয়া
Ashagi Lamiya - Business Show Host.jpg
জন্ম
আশাগি লামিয়া

(1989-03-06) ৬ মার্চ ১৯৮৯ (বয়স ৩৩)
জাতীয়তাভারতীয়
পেশাচিত্রনাট্যকার
অভিনেত্রী
ফটোগ্রাফার
উপস্থাপক
পুরস্কার২০১০ সালে বাস্তববাদী ছবির জন্য জাতীয় পুরস্কার

শিক্ষাসম্পাদনা

লামিয়া ভারতের কেরালার থলসেরীর মামবরম ইংলিশ মিডিয়াম স্কুল হতে তাঁর স্কুল জীবনের পড়াশোনা সম্পন্ন করেছেন। বাল্যকালে সংগীত, নৃত্য, ফটোগ্রাফি এবং নাটকে অধিক রুচি থাকার কারণে, লামিয়া আসান মেমোরিয়াল কলেজ অফ আর্টস অ্যান্ড সায়েন্সে (ইউওএম) ভর্তি হন। তিনি উক্ত প্রতিষ্ঠান থেকে বিএস (ভিজ্যুয়াল যোগাযোগ) এবং পেরিয়ার বিশ্ববিদ্যালয় হতে গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগে এমএ সম্পন্ন করেছেন। আসান মেমোরিয়াল কলেজ অফ আর্টস অ্যান্ড সায়েন্সে পড়াশোনা করাকালীন তিনি জাতীয় শিশু উন্নয়ন কাউন্সিলের কেরল অঞ্চল দ্বারা পরিচালিত শিশুশ্রম ও শিশু ভিক্ষা বিষয়ে জাতীয় ফটোগ্রাফি প্রতিযোগিতায় পুরস্কার লাভ করেছিলেন এবং টুগেদার ফরএভার নামক স্বল্পদৈর্ঘ্যের চলচ্চিত্রে একটি পার্শ্ব চরিত্রে অভিনয় করেছিলেন। উক্ত চলচ্চিত্রে একটি সম্পর্কের মধ্যে অস্বাভাবিক ঈর্ষার চিত্রায়ন করা হয়েছে।

কাজসম্পাদনা

অভিনেত্রী হিসেবে তিনি বেশ কয়েকটি স্বল্পদৈর্ঘ্যের চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন।[৩] খুব অল্প সময়ের মধ্যেই, লামিয়া টেলিভিশন অনুষ্ঠানে উপস্থাপনার কাজ পেয়ে যান। পরবর্তীতে তিনি সংবাদপত্র সম্পাদনা করা, স্ক্রিপ্ট ও চিত্রনাট্য রচনা ও পরিচালনা, ব্যবসায়িক ব্যক্তিত্বদের সাক্ষাৎকার গ্রহণ এবং সাপ্তাহিক ওমান ডেইলি অবজারভারের সিটি টক বিভাগে অবদান রাখার মতো গুরুত্বপূর্ণ কাজে সংযুক্ত হয়ে যান। তাঁর কাজগুলো ন্যূনতম শব্দ এবং ক্রিয়াসহ সহজভাবে বার্তা পরিবেশনের জন্য অধিক পরিচিত।[৪]

লামিয়া নিয়মিতভাবে বৈশ্বিক বিষয়ে সাংবাদিকতার মাধ্যমে তাঁর উদ্বেগকে প্রকাশ করে থাকেন, তাঁর উদ্বেগের বিষয়ের মধ্যে আছে- প্রাকৃতিক সম্পদের দায়িত্বহীন অপব্যবহারের ফলে জলবায়ুর পরিবর্তন। এই বিষয়ে তিনি বলেন যে, "... আমরা প্রকৃতির জল পূরণের চেয়ে দ্রুত জল গ্রহণ করছি; সম্পদের অসমঞ্জস বিতরণ এবং শিক্ষা ব্যবস্থায় অসম প্রসার।" তিনি আরও বলেন যে, "... সাম্প্রতিক বছরগুলোতে ব্যক্তিগত প্রশিক্ষণ নেওয়ার সংখ্যা বেড়ে যাচ্ছে, এমনকি সে সকল অঞ্চলে শিক্ষাদানের পারিশ্রমিক কম সেখানেও..."। শুধুমাত্র এই সকল বিষয়েই নয়, এছাড়াও আশেপাশে প্রয়োজনীয় জিনিসগুলি পরিবর্তনের জন্য তিনি গভীর আবেগ প্রকাশ করেন।[৫]

তিনি জাতীয় দেশপ্রেম সম্পর্কে একটি পাবলিক সার্ভিস পাওয়ারপয়েন্ট উপস্থাপনা করেছেন এবং কয়েক বছর ধরে কালিকটের চারপাশে ব্যবসায়িক চ্যালেঞ্জ এবং বিবর্তন বিষয়ে কাজ করার স্বার্থে স্মৃতি আয়ুকার লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক জনাব কে. মোহনান নায়ারের সাক্ষাৎকার নিয়েছেন।

লামিয়ার বেশ কয়েকটি কাজের মধ্যে একজন চিত্রনাট্য লেখক এবং পরিচালক হিসেবে উল্লেখযোগ্য হলো: নষ্টপিতা কানুনির, ভেঞ্জেন্স ডিমন, থলসেরী ফোর্ট। অন্যদিকে তথ্যচিত্রেরর চিত্রনাট্য ও সংলাপ লেখক হিসেবে তাঁর উল্লেখযোগ্য কাজ হল বায়োডাটা, যেটি ইউটিউবে প্রায় ১.৬ লাখেরও বেশি মানুষ দেখেছেন।[৬]

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "Business Star K.Mohanan Nair, EPI-4, Part-01"। YouTube। সংগ্রহের তারিখ ২০১৪-০২-২২ 
  2. "Photography prizes"। thehindu। সংগ্রহের তারিখ ২০১৪-০২-২২ 
  3. "Together Forever malayalam shortfilm"। YouTube। সংগ্রহের তারিখ ২০১৪-০২-২২ 
  4. "Is the price of sending kids to school becoming exorbitant?" (PDF)। omanobserver। ২০১৪-০২-২৮ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৪-০২-২২ 
  5. "What can we do to prevent taking the environmental resources for granted?" (PDF)। omanobserver। ২০১৪-০২-২৮ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৪-০২-২২ 
  6. "New Malayalam Movie Biodata 2014"। YouTube। সংগ্রহের তারিখ ২০১৪-০৯-১১ 

বহিঃসংযোগসম্পাদনা