আলোক গভীরতা (Optical depth) হচ্ছে স্বচ্ছতার পরিমাপক। অর্থাৎ কোনো বস্তু আলোর প্রতি কতটা স্বচ্ছ আর কতটা অনচ্ছ তা বোঝা যায় এই পরিমাপ থেকে। আলোক গভীরতা যত বেশি, স্বচ্ছতা তত কম, অনচ্ছতা তত বেশি। বস্তু থেকে নিঃসৃত যে বিকিরণ যাত্রাপথে বিক্ষিপ্ত বা শোষিত হয়না তার ঋণাত্বক লগারিদম নিলেই পাওয়া যায় আলোক গভীরতা। পর্যবেক্ষকের থেকে বস্তুর দূরত্ব যত বাড়ে আলোক গভীরতা তত বাড়ে, কারণ সেই বস্তু থেকে আসা আলো ততই বেশি বিক্ষিপ্ত বা শোষিত হওয়ার সুযোগ পায়। তার মানে বস্তু থেকে আসা বিকিরণের কত অংশ শোষিত বা বিক্ষিপ্ত হয়েছে তা বোঝা যায়।

ধোয়ায় আলোক গভীরতা

সমীকরণসম্পাদনা

একটি রশ্মি থেকে যে পরিমাণ আলো বিক্ষেপ বা শোষনের মাধ্যমে সরে গেছে তার পরিমাপই হচ্ছে আলোক গভীরতা। বস্তু থেকে নিঃসৃত হওয়ার পর কোনো একটি মাধ্যমের মধ্য দিয়ে আসার সময়ই এই শোষণ আর বিক্ষেপ ঘটে। সমীকরণটি দাঁড়ায় এরকম:
যদি   উৎস থেকে আসা বিকিরণের তীব্রতা (intensity) এবং   মাধ্যম পেরিয়ে পর্যবেক্ষকের কাছে আসা তীব্রতা হয় তাহলে আলোক গভীরতা  -কে নিচের সমীকরণ দিয়ে লেখা যায়:[১]

 

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. Kitchin, Christopher Robert (১৯৮৭)। Stars, Nebulae and the Interstellar Medium: Observational Physics and Astrophysics। CRC Press।