আরেসিবো মানমন্দির

আরেসিবো মানমন্দির (ইংরেজি ভাষায়: Arecibo Observatory) মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের অধীনস্থ ক্যারিবীয় দ্বীপ পুয়ের্তো রিকোর আরেসিবো শহরে অবস্থিত একটি বেতার দূরবীক্ষণ যন্ত্র। ৩০৫ মিটার ব্যাসের এই দূরবীক্ষণ যন্ত্রটি পৃথিবীর বৃহত্তম একক এন্টেনা। যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশনাল সায়েন্স ফাউন্ডেশনের (জাতীয় বিজ্ঞান সংস্থা) সহায়তায় ১৯৬০-এর দশক থেকে ২০১১ সাল পর্যন্ত মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কর্নেল ইউনিভার্সিটি এই মানমন্দিরটি পরিচালনা করে। এর অন্য নাম ন্যাশনাল অ্যাস্ট্রোনমি অ্যান্ড আয়োনস্ফেয়ার সেন্টার বা NAIC, অর্থাৎ "জাতীয় জ্যোতির্বিজ্ঞান ও আয়নমণ্ডল গবেষণাকেন্দ্র"। অবশ্য NAIC একটি সংস্থার নাম যারা মানমন্দির এবং এর সাথে সংশ্লিষ্ট কর্নেল ইউনিভার্সিটির সবগুলো দপ্তর পরিচালনার দায়িত্ব পালন করত।

আরেসিবো মানমন্দিরের দূরবীক্ষণ যন্ত্র, পুয়ের্তো রিকো

এই দূরবীক্ষণ যন্ত্রের সাহায্যে বিজ্ঞানের তিনটি গুরুত্বপূর্ণ শাখায় গবেষণা পরিচালিত হয়: বেতার জ্যোতির্বিজ্ঞান, আবহবিজ্ঞান এবং সৌর পদার্থবিজ্ঞান। সৌর জগতের বস্তুগুলোকে রেডারের সাহায্যে পর্যবেক্ষণ করতে এটি ব্যবহার করা হয়। যেসব বিজ্ঞানী এই দূরবীক্ষণ যন্ত্র ব্যবহার করতে চান তাদেরকে প্রথমে প্রস্তাব পেশ করতে হয়, সেই প্রস্তাব একটি স্বাধীন বোর্ডের বিচারে উপযুক্ত বিবেচিত হলে তিনি অনুমতি পান।

অন্যদিকে বেশ কিছু চলচ্চিত্রটেলিভিশন প্রযোজনার দৃশ্যায়নে এই দূরবীক্ষণ যন্ত্রটি ব্যবহার করা হয়েছে। যেমন জেমস বন্ডের একটি চলচ্চিত্রের শেষ অ্যাকশন দৃশ্য গৃহীত হয় এখানে। ১৯৯৯ সাল থেকে সেটি প্রকল্পে যোগ দেয়ার কারণে দূরবীক্ষণ যন্ত্রটির বিশ্বব্যাপী পরিচিতি আরও বৃদ্ধি পেয়েছে।

আরও দেখুনসম্পাদনা

বহিঃসংযোগসম্পাদনা