প্রধান মেনু খুলুন

লেফটেন্যান্ট জেনারেল আবদুল হাফিজ (জন্ম: ১৯৫৭) বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর একজন অবসরপ্রাপ্ত লেফটেন্যান্ট জেনারেল। তিনি পশ্চিম সাহারায় জাতিসংঘের মিশন (MINURSO) এবং কোত দিভোয়ারে জাতিসংঘের মিশন (UNOCI)-এর ফোর্স কমান্ডার হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।[১][২][৩]

আবদুল হাফিজ
জন্ম১৯৫৭
আনুগত্য বাংলাদেশ
সার্ভিস/শাখা বাংলাদেশ সেনাবাহিনী
কার্যকাল১৯৭৭–২০১৪
পদমর্যাদা09.lt gen Bd.jpg লেফটেন্যান্ট জেনারেল
নেতৃত্বসমূহআনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনী
পশ্চিম সাহারায় জাতিসংঘের মিশন (MINURSO)
কোত দিভোয়ারে জাতিসংঘের মিশন (UNOCI)
চীফ অব জেনারেল স্টাফ, বাংলাদেশ সেনাবাহিনী
পুরস্কারজাতিসংঘ পদক

কর্মজীবনসম্পাদনা

হাফিজের সামরিক কর্মজীবন অনন্য, যার মাঝে জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে সেবা অন্তর্ভুক্ত।

বাংলাদেশ সেনাবাহিনীতেসম্পাদনা

আবদুল হাফিজ ১৯৭৭ সালে ৮ মে অফিসার হিসেবে পদাতিক বাহিনী যোগদান করেন। দীর্ঘ কর্মজীবনে তিনি ২০০৫ সালের ৩১ ডিসেম্বর মেজর জেনারেল পদে উন্নীত হন।[৪] লেফটেন্যান্ট জেনারেল হিসেবে পদোন্নতি হওয়ার পর পরই, তিনি বাংলাদেশ সেনাবাহিনী থেকে অবসর নেন।

তিনি ১৯৯৯ থেকে ২০০১ সাল এবং ২০০৫ থেকে ২০০৮ সাল পর্যন্ত যথাক্রমে একটি পদাতিক ব্রিগেড এবং একটি পদাতিক ডিভিশনের নেতৃত্বে দেন। তিনি ২০০১ থেকে ২০০৩ সালে পর্যন্ত বাংলাদেশ মিলিটারি একাডেমি নেতৃত্বে থাকেন। ২০০৮ থেকে ২০০৯ সালে, তিনি ১৫,০০০ অধিক সক্রিয় এবং ৩০,০০০ রিজার্ভ বাহিনী কমান্ডিং, আধা-সামরিক প্রতিষ্ঠান "আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনী"-এর মহাপরিচালক হিসাবে দায়িত্ব পালন করেন।[৫]

তিনি বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর একটি পদাতিক ডিভিশনের সাধারণ কমান্ডিং অফিসার ছিলেন। তিনি বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর চীফ অব জেনারেল স্টাফ হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনেসম্পাদনা

১৯৯১ থেকে ১৯৯২ পর্যন্ত, মেজর জেনারেল হাফিজ জাতিসংঘ ইরাক-কুয়েত পর্যবেক্ষণ মিশন (UNIKOM) এর সঙ্গে সামরিক লিয়াজোঁ অফিসার হিসাবে এবং জাগরেব, ক্রোয়েশিয়া-য় প্রধান সামরিক লিয়াজোঁ অফিসার হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।[১][৪] ১৯৯৩ থেকে ১৯৯৪-এ, হাফিজ রুয়ান্ডা, বসনিয়া, সোমালিয়া, মোজাম্বিক এবং হাইতিতে বাংলাদেশ থেকে সৈন্য স্থাপনার জন্য প্রস্তুতি, পরিকল্পনা ও সমন্বয় পরিদর্শন মিশন অংশগ্রহণ করেন।[৪]

২০০৩ থেকে ২০০৪-এ, তিনি কোত দিভোয়ারে জাতিসংঘ মিশনে (MINUCI) প্রধান সামরিক লিয়াজোঁ অফিসার হিসেবে ছিলেন। এর পরে, ২০০৪ থেকে ২০০৫, তিনি কোত দিভোয়ারে জাতিসংঘ অপারেশন উপ-ফোর্স কমান্ডার (UNOCI) হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন এবং ২০১০ সালের এপ্রিল থেকে ২০১১ সালের মার্চ পর্যন্ত UNOCI-এর ফোর্স কমান্ডার হিসেবে নিযুক্ত হন।[১]

পরে তিনি ২০১১ সালের ২২ মার্চ ফোর্স কমান্ডার থেকে পদত্যাগ করেন; Laurent Gbagbo in the Gulf of Guinea whirlwind শীর্ষক তথ্যচিত্রের পরিচালককে গোপন তথ্য দেওয়ার অভিযোগে জাতিসংঘ কর্তৃপক্ষ তাকে অভিযুক্ত করার পর। এই ছবিতে আফ্রিকান অঞ্চলে ফ্রান্সের নব্য উপনিবেশবাদী ক্ষুধা এবং যার বিপুল আগ্রহের সাথে ফ্রান্স কোত দিভোয়ারের রাজ্য নিয়ন্ত্রণ করার জন্য যুদ্ধ নিযুক্ত করা হয় তা তুলে ধরা হয়।[৪] তার পদত্যাগ ভাষণে, তিনি বলেন,

আমরা আইভরিয়ানরা হত্যা করতে কোত দিভোয়ারে নই, এবং আমি, আমি থামি, কারণ আমি ভুল হতে চাই না।[৪]

মহাসচিব বান কি মুন ২০১১-এর ২৩ জুলাই পশ্চিম সাহারায় জাতিসংঘের মিশনের (MINURSO) ফোর্স কমান্ডার হিসেবে মেজর জেনারেল আবদুল হাফিজকে নিযুক্ত করেন।[৬] তিনি MINURSO-এর দায়িত্ব পালনকালে অত্যন্ত প্রশংসিত হয়। দায়িত্ব শেষে, সরকারী বিবৃতিতে বলা হয়, "মহাসচিব বান কি মুন ২০১১-এর জুলাই থেকে MINURSO তার আদর্শ সেবা এবং অবদানের জন্য মেজর জেনারেল হাফিজের প্রতি কৃতজ্ঞ"। [৭]

তিনি ১৯৯৪ সালের অক্টোবরে যুক্তরাজ্য স্টাফ স্কুল অনুষ্ঠিত শান্তিরক্ষা নেশনস অপারেশনস উপর সেমিনারে অংশগ্রহণ করেন, এবং ২০০৬ সালের অক্টোবরে প্রতিরক্ষা ফোরামের ১১তম কমিটিতে টোকিও, জাপান অনুষ্ঠিত অংশগ্রহণ করেন।[৪] তিনি টেকসই উন্নয়নের উপর প্রথম জাতীয় সেমিনারে উপস্থিত ছিলেন।

ব্যক্তিগত জীবনসম্পাদনা

হাফিজ বিবাহিত এবং তার দুই মেয়ে আছে। জেনারেল হাফিজের বিভিন্ন ডিগ্রী ও সার্টিফিকেট আছে। তিনি দেশে বিদেশে বিভিন্ন কোর্স এবং প্রশিক্ষণে উপস্থিত ছিলেন। তিনি বাংলাদেশ জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় ডিফেন্স স্টাডিজ-এ মাস্টার্স করেন। জেনারেল হাফিজ জাতীয় প্রতিরক্ষা স্কুল, স্টাফ এন্ড ডিফেন্স সার্ভিস স্কুল (DCES) থেকে স্নাতক। তিনি চীনে পদাতিক ছোট এবং ভারী অস্ত্র উপর একটি কোর্স করেন এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে উন্নত পদাতিক অফিসারের কোর্স করেন। তিনি ফ্রান্সের প্রতিরক্ষা গোয়েন্দা কলেজ থেকে একজন স্নাতক। তিনি অনর্গল ইংরেজি এবং ফরাসি কথা বলতে পারেন।

পুরস্কারসম্পাদনা

আবদুল হাফিজ তার অসামাণ্য কর্মজীবনের অনেক পুরস্কার পেয়েছেন। তিনি MINURSO-এ তার সেবার জন্য জাতিসংঘ পদক-এ ভূষিত হন।[৮]

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "Secretary-General Appoints Major General Abdul Hafiz of Bangladesh as Force Commander for United Nations Mission for Referendum in Western Sahara"। ২০১১-০৭-২৭। সংগ্রহের তারিখ ২০১৪-১১-১৪ 
  2. "Gen Hafiz made force commander"The Daily Star। Dhaka: The Daily Star। ২০১১-০৭-২৫। সংগ্রহের তারিখ ২০১৪-১১-১৪ 
  3. Haidar, Ali (২০১১-০৮-০২)। "The UN mission forces for the Western Sahara have a new commander"Sahara News। সংগ্রহের তারিখ ২০১৪-১১-১৫ 
  4. "Gen. Abdul Hafiz to Choi: "We Are Not Here to Kill Ivorians! ""Cotedivoire.net। ২০১১-০৩-১৯। সংগ্রহের তারিখ ২০১৪-১১-১৪ 
  5. "মেজর জেনারেল আব্দুল হাফিজ আবার সেনাবাহিনীতে" [Major General Abdul Hafiz again in Army]। snnbd.com (Bangla ভাষায়)। Dhaka। ২০১২-০৫-০৭। ২০১৪-১১-২৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৪-১১-১৪ 
  6. "New commander at the head of MINURSO"sahara-online.net। sahara-online.net। ২০১১-০২-০৮। সংগ্রহের তারিখ ২০১৪-১১-১৫ 
  7. "Indonesian major general appointed force commander of UN Western Sahara Mission"UN News Center। ২০১৩-০৮-২৭। সংগ্রহের তারিখ ২০১৪-১১-১৪ 
  8. "Special Representative for Western Sahara awards UN Medal to the Force" (সংবাদ বিজ্ঞপ্তি)। UN Mission Minurso। ২০১২-১১-২৭। সংগ্রহের তারিখ ২০১৪-১১-১৪ 

বহিঃসংযোগসম্পাদনা