প্রধান মেনু খুলুন

আন্তর্জাতিক পুরুষ দিবস

আন্তর্জাতিক পুরুষ দিবস প্রতি বছর ১৯ নভেম্বর তারিখে পালিত হয়।[১] সারা বিশ্বব্যাপী পুরুষদের মধ্যে লিঙ্গ ভিত্তিক সমতা, বালক ও পুরুষদের সুস্বাস্থ্য নিশ্চিত করা এবং পুরুষের ইতিবাচক ভাবমূর্তি তুলে ধরার প্রধান উপলক্ষ হিসেবে এই দিবসটি উদযাপন করা হয়ে থাকে।[২]

আন্তর্জাতিক পুরুষ দিবস
পালনকারীবিশ্বব্যাপী পুরুষ ও নারীগণ
ধরনআন্তর্জাতিক
তাৎপর্যজনসচেতনতা দিবস
তারিখ১৯ নভেম্বর (বার্ষিকভিত্তিতে)
সম্পর্কিতবাবা দিবস
বিশ্ব শিশু দিবস
আন্তর্জাতিক নারী দিবস
পুরুষ অধিকার আন্দোলন

ইতিহাসসম্পাদনা

পুরুষ দিবস পালনের প্রস্তাব প্রথম করা হয় ১৯৯৪ সালে। তবে ইতিহাস বেশ পুরোনো। ১৯২২ সাল থেকে সোভিয়েত ইউনিয়নে পালন করা হতো রেড আর্মি অ্যান্ড নেভি ডে। এই দিনটি পালন করা হতো মূলত পুরুষদের বীরত্ব আর ত্যাগের প্রতি সম্মান জানিয়ে।

২০০২ সালে দিবসটির নামকরণ করা হয় ‘ডিফেন্ডার অফ দ্য ফাদারল্যান্ড ডে’। রাশিয়া, ইউক্রেনসহ তখনকার সময়ে সোভিয়েত ইউনিয়নভুক্ত দেশগুলোতে এই দিবসটি পালন করা হতো। বলা যায়, নারী দিবসের অনুরূপভাবেই দিবসটি পালিত হয়। ষাটের দশক থেকেই পুরুষ দিবস পালনের জন্য লেখালেখি চলছে। ১৯৬৮ সালে আমেরিকান সাংবাদিক জন পি হ্যারিস নিজের লেখায় এ দিবসটি পালনের গুরুত্ব তুলে ধরেন।

নব্বই দশকের শুরুতে যুক্তরাষ্ট্র, অস্ট্রেলিয়া ও মাল্টায় কয়েকটি প্রতিষ্ঠান ফেব্রুয়ারিতে পুরুষ দিবস পালনের জন্য বেশ কয়েকটি অনুষ্ঠানের আয়োজন করেন। যদিও অনুষ্ঠানগুলো খুব একটা প্রচার পায়নি। অংশগ্রহণও ছিল কম। পরবর্তী সময়ে ১৯ নভেম্বর পুরো বিশ্বে পুরুষ দিবস পালনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

লক্ষ্য ও উদ্দেশ্যসম্পাদনা

এই দিবসের উদ্দেশ্যের মধ্যে রয়েছেঃ[৩]

  • পুরুষ ও বালকদের স্বাস্থ্য সচেতনতা বৃদ্ধি;
  • নারী-পুরুষের লৈঙ্গিক সম্পর্ক উন্নয়ন বিষয়ক প্রচারণা;
  • নারী-পুরুষের লৈঙ্গিক সাম্যতার প্রচার;
  • পুরুষদের মধ্যে ইতিবাচক আদর্শ চরিত্রের গুরুত্ব তুলে ধরা;
  • পুরুষ ও বালকদের নিয়ে গড়ে ওঠা বিভিন্ন সংস্কার ও কুসংস্কারের বিরুদ্ধে সচেতনতা তৈরী;
  • পুরুষ ও বালকদের অর্জন ও অবদানকে উদযাপন;
  • সমাজ, পরিবার, বিবাহ ও শিশু যত্নের ক্ষেত্রে পুরুষ ও বালকদের অবদানকে তুলে ধরা।

দিবসের প্রতিপাদ্যসম্পাদনা

প্রতিবছর একটি বিশেষ কোন বিষয়কে প্রতিপাদ্য হিসাবে গ্রহণ করে আন্তর্জাতিক পুরুষ দিবস পালন করা হয়; বিভিন্ন সময় গৃহীত এই প্রতিপাদ্যগুলো হলোঃ

বছর প্রতিপাদ্য উত্স
২০১৭ ‘‘পুরুষ ও বালকদের তাদের সকল বৈচিত্রের মধ্যে উদযাপন’’ (‘Celebrating Men And Boys In All Their Diversity’) [৩][৪]

উদযাপনসম্পাদনা

বাংলাদেশসম্পাদনা

বংলাদেশে এই দিবসটি র‍্যালি ও বিভিন্ন দাবী-দাওয়া সম্পর্কিত আলোচনা সভা অনুষ্ঠানের মাধ্যমে উদযাপন করা হয়।[৩]

ভারতসম্পাদনা

আরও দেখুনসম্পাদনা

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "এ দিনটা শুধুই পুরুষের!"দ্য রিপোর্ট২৪.কম অনলাইন। ১৯ নভেম্বর ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ১৯ নভেম্বর ২০১৭ 
  2. "আন্তর্জাতিক পুরুষ দিবস"দৈনিক আমাদের সময় অনলাইন। ৯ মার্চ ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ১৯ নভেম্বর ২০১৭ 
  3. "পালিত হচ্ছে 'আন্তর্জাতিক পুরুষ দিবস'"যমুনা টিভি অনলাইন। ১৯ নভেম্বর ২০১৭। সংগ্রহের তারিখ ১৯ নভেম্বর ২০১৭ 
  4. Brooks, Mark (৫ মার্চ ২০১৭)। "2017 theme announced: Celebrating Men and Boys in all their Diversity"UkMensDay – IMD UK। ১০ নভেম্বর ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 

বহিঃসংযোগসম্পাদনা