আনন জামান (জন্ম ১২ অক্টোবর ১৯৭৮) একজন বাংলাদেশী নাট্যকার ও গবেষক।[১]

আনন জামান
আনন জামান.jpg
আনন জামান
জন্ম (1978-10-12) ১২ অক্টোবর ১৯৭৮ (বয়স ৪২)
গোলাইডাঙ্গা, সিংগাইর, মানিকগঞ্জ বাংলাদেশ
পেশানাট্যকার, লেখক,সহযোগী অধ্যাপক
জাতীয়তাবাংলাদেশী (বাংলা)
নাগরিকত্ববাংলাদেশী
দম্পতিশাকিলা তাসমিন
তথ্য
ধারানাটক
উল্লেখযোগ্য কাজ
  • শিখন্ডী কথা
  • সিক্রেট অব হিস্ট্রি
  • শ্রাবণ ট্রাজেডি
  • নীলাখ্যান
  • অহম তমসায়
  • নিশিমন বিসর্জন
  • রাইকথকতা
পুরস্কারবাচসাস পুরস্কার (২০১৩)

প্রাথমিক জীবনসম্পাদনা

নাট্যকার আনন জামান ১৯৭৮ সালের ১২ অক্টোবর সিংগাইর মানিকগঞ্জ অঞ্চলের গোলাইডাংগা গ্রামে জন্ম গ্রহণ করেন ।বাবা জালাল উদ্দিন শিক্ষকতার পাশাপাশি ভাব-বৈঠকী গান করতেন । মা তাসলিমা জালাল গৃহিনী । প্রাইমারী পাঠে থাকাকালীন আনন জামান ছড়া কবিতা লিখতেন ।

শিক্ষা এবং শিক্ষকতাসম্পাদনা

আনন জামান ১৯৯৫- ১৯৯৬ সেশনে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে সরকার ও রাজনীতি বিভাগে ভর্তি হন। ১৯৯৬-১৯৯৭ সেশনে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে নাটক ও নাট্যতত্ত্ব বিভাগে ভর্তি হন। সেখানে নাট্যকার সেলিম আল দীন প্রতক্ষ তত্ত্বাবধান তার নাট্যচর্চা একটি ব্যাকরণগত ভিত্তি পায়। ২০০৬ তিনিএকই বিশ্ববিদ্যালয়ে নাটক ও নাট্যতত্ত্ব বিভাগে শিক্ষক হিসাবে যোগদান করেন। নাটক নির্দেশনার ক্ষেত্রে তিনি নাট্যকার আচার্য সেলিম আল দীন, নির্দেশক নাসির উদ্দীন ইউসুফ, আজাদ আবুল কালাম, ইউসুফ হাসান অর্ক এর সাহচর্য ও প্রত্যক্ষ তত্ত্বাবধান পেয়েছেন।

নাট্যজীবনসম্পাদনা

১৯৯০ এর আগে গোলাইডাঙ্গা জামশা অঞ্চলে সেঁজুতি নাট্যগোষ্ঠী নিয়মিত যাত্রা পালা অভিনয় করতো।আনন জামান অষ্টম শ্রেণিতে পড়াকালীন সময়ে কিশোর সেঁজুতি নাট্যগোষ্ঠী প্রতিষ্ঠা করে যাত্রা পালার আদলে তার রচিত রুদ্রলীলা মঞ্চায়ন করেন। এ দলের ব্যানারে স্বার্থের খেলা, সমাজের আর্তনাদ, বসন্তের নীল নক্ষত্র যাত্রানাটক মঞ্চে আনেন। ১৯৯৪ হাকিম আলী গায়েন থিয়েটার প্রতিষ্ঠা করেন।১৯৯৮ সালে সাভারে প্রতিষ্ঠা করেন বুনন থিয়েটার।[২]২০০১ সালে দলীয় নাট্যকার হিসাবে যুক্ত হন মহাকাল নাট্য সম্প্রাদায়ের সাথে।২০০৮ সালে সিংগাইরে প্রতিষ্ঠা করেন নিরাভরণথিয়েটার।

হাকিম আলী গায়েন থিয়েটার থেকে নাটগীত ও গীতনাটের মেলার প্রচলন ও একটি মুক্তমঞ্চ স্থাপন এবং নিরাভরণ থিয়েটার থেকে জন্ম সাঁঝের সাজকাজ উৎসব শিরোনামে মেলার প্রচলন করেন।[৩] হাকিম আলী গায়েন থিয়েটার, বুনন থিয়েটার, নিরাভরণ থিয়েটার তিনটি দলই বাংলাদেশ গ্রুপ থিয়েটার ফেডারেশন এর সক্রিয় সদস্য। হাকিম আলী গায়েন থিয়েটার তারজনপদ, শিখন্ডী কথা, শূন্য, সঙপালা, বিলয় গাঁথা ,নিরাভরণ থিয়েটার সুস্বর প্রতিবিম্ব, বিলয় গাঁথা, বালিকা ও স্বর্ণপশম ভেড়ার নাট্যসামন্তনথি, জুঁইমালার সইমালা বুনন থিয়েটার শকশঅ, বিলয় গাঁথা, ভূতকাব্য, সিক্রেট অব হিস্ট্রি ইত্যাদি নাটক মঞ্চে আনে। বঙ্গবন্ধুহত্যার পর অস্তিতিশীল রাজ‣নতিক পরিস্থিতি নিয়ে রচিত সিক্রেট অব হিস্ট্রি নাটকটি দর্শক প্রিয় মঞ্চ নাটক হিসাবে ঢাকা সহ সারাদেশে সমাদৃত হয়। ২০০২ সালে মহাকাল নাট্য সম্প্রাদায় জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড.রশীদ হারুনের নির্দেশনায় মঞ্চে আনে নাটক শিখন্ডীকথা। ক্রমে মহাকাল নাট্য সম্প্রাদায় আজাদ আবুল কালামের নির্দেশনায় অহম তমসায় ,আশিক রহমানের নির্দেশনায় নিশিমন বিসর্জন, মোস্তাফিজুর রহমানের নির্দেশনায় প্রমিথিউস, ইউসুফ হাসান অর্কের নির্দেশনায় নীলাখ্যান নাটক মঞ্চে নিয়মিত অভিনয় করতে থাকে। ঢাকা থিয়েটার ২০১৫ এহসানুর রহমানের নির্দেশনায় মঞ্চে আনে আনন জামান রচিত নাটক ‘রাইকথকতা ’। ২০১৮ সালে মহাকাল নাট্য সম্প্রাদায় এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক আশিক রহমানের নির্দেশনায় মঞ্চে আনে বঙ্গবন্ধু জীবন ভিত্তিক গবেষণা লব্ধ মঞ্চ নাটক ‘শ্রাবণ ট্রাজেডি’।

চলচ্চিত্র এবং টেলিভিশনসম্পাদনা

শিখন্ডী কথা ’মঞ্চনাটক, টেলিভিশন নাটক ও চলচ্চিত্র তিনটি মাধ্যমেই দর্শকদের প্রিয়তর হয়। চলচ্চিত্রের জন্য আনন জামান ২০১৩ সালে বাচসাস পদক লাভ করেন। আনন জামানের প্রথম চলচ্চিত্র ‘মায়ের মতো ভাবী’ এফ আই মানিকের পরিচালনায় ভারত বাংলাদেশে ২০০৮ সালে এক সাথে মুক্তিপায়। তার উল্লেখযোগ্য টেলিভিশন নাটক রাত্রি রথের উল্টেপীট, রাত্রির খামোখা খেয়াল, আশালতা ও মন্দ বাতাসের গল্প, ফুডষ্টেশন নাইটিন ত্র্যাটাক, আব্বাস মিয়া ও শাদা পরীর গল্প, সীমান্তহীন পাখি উল্লেখযোগ্য।

সম্মাননা ও স্বীকৃতিসম্পাদনা

শিখন্ডী কথা চলচ্চিত্রের জন্য আনন জামান ২০১৩ সালে শ্রেষ্ঠ সংলাপ রচয়িতা বিভাগে বাচসাস পুরস্কার লাভ করেন।[৪]

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "নাট্যকার আনন জামানের জন্ম দিবসে সাভারে নাট্যোৎসব"দৈনিক জনকন্ঠ। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-১০-১২ 
  2. "শিল্পকলায় আজ বুনন থিয়েটারের 'সিক্রেট অব হিস্ট্রি'"দৈনিক জনকন্ঠ। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-১০-১২ 
  3. "মানিকগঞ্জে নাটগীত গীতনাটের মেলা"সমকাল। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-১০-১২ 
  4. "পাঁচ বছরের বাচসাস পুরস্কার পাচ্ছেন যারা"বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম। ২৬ ডিসেম্বর ২০১৪। সংগ্রহের তারিখ ২১ অক্টোবর ২০১৯