আঞ্চলিক রন্ধনশৈলী

আঞ্চলিক রন্ধনশৈলীঃ কোন স্থানীয় অঞ্চলের, জাতীয় অথবা রাজ্যের খাবারের উপর ভিত্তি করে নির্ধারিত হয় আঞ্চলিক রন্ধনশৈলী।[১] খাদ্যের প্রাপ্তি ও বণ্টন, আবহাওয়ায়ের তারতাম্য, রন্ধনশৈলীর ঐতিহ্য এবং চর্চা এবং সাংস্কৃতিক পার্থক্য আঞ্চলিক রন্ধনশৈলীতে ভিন্নতা বা রন্ধনশৈলী পরিবর্তিত হতে পারে।[২] প্রথাগত রান্নার উপর ভিত্তি করে একে সংজ্ঞায়িত করা যায় এভাবে যে, "আঞ্চলিক ঐতিহ্যগত রন্ধনশৈলী হচ্ছে একটি সুসঙ্গত প্রথাগত রন্ধনপ্রণালী যা দৈনন্দিন জীবনে এবং দীর্ঘ সময় ধরে চলে আসা কোন দেশের অথবা দেশের নির্দৃষ্ট অঞ্চলের মানুষের রান্নাঘর থেকে উদ্ভূত (রন্ধনকৃত) এবং সেটা সার্বিকভাবে ঐ দেশের বা আঞ্চলিক ভৌগলিক পরিসীমার জনগোষ্টির রন্ধনশৈলী থেকে উল্লেখযোগ্যভাবে পৃথক ও ভিন্ন"। আঞ্চলিক রন্ধনশৈলীতে প্রায়শ স্থানীয় ঐতিহ্য, সংস্কৃতি এবং খাদ্য উপাদানের সংমিশ্রণ নির্দৃষ্ট অঞ্চলের রন্ধনশৈলীকে স্বতন্ত্র করে তোলে।[৩]

হায়দ্রাবাদি বিরিয়ানি, একটি ভারতীয় ভাত-মাংসের খাবার।

আঞ্চলিক রন্ধনশৈলীর নামকরণ প্রায়শই উদ্ভূত ভৌগলিক এলাকার বা অঞ্চল নাম অনুসারে হয়ে থাকে।

আরও দেখুনসম্পাদনা

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

বহিঃসংযোগসম্পাদনা