অন্তঃভ্রূণাবরণীহীন প্রাণী

যেসব প্রাণীর ভ্রূণের বিকাশে অন্তঃভ্রূণাবরণী অনুপস্থিত থাকে

অন্তঃভ্রূণাবরণীহীন প্রাণী (ইংরেজি: Anamniote) বলতে মাছ ও উভচর প্রাণীদের একটি অনানুষ্ঠানিক দলকে বোঝায়, যাদেরকে তথাকথিত "নিম্নস্তরের মেরুদণ্ডী প্রাণী" নামেও ডাকা হয় এবং যে প্রাণীগুলি জলে বা পানিতে তাদের ডিম পেড়ে থাকে। এগুলি অন্তঃভ্রূণাবরণীবিশিষ্ট প্রাণীদের (Amniote) থেকে আলাদা করা হয়, যারা "উচ্চতর মেরুদণ্ডী প্রাণী" (সরীসৃপ, পাখি ও স্তন্যপায়ী প্রাণী) নামেও পরিচিত এবং যেগুলি স্থলভাবে ডিম পাড়ে কিংবা নিষিক্ত ডিমটি মায়ের দেহের অভ্যন্তরে অবস্থান করে।

অন্তঃভ্রূণাবরণীহীন প্রাণী
ট্রাউট মাছের ডিম পাড়ার কাজে অন্তঃভ্রূণাবরণীহীন প্রাণীদের মধ্যে উপস্থিত বহিঃনিষেক নামক সাধারণ ঘটনাটি দেখা যাচ্ছে
ট্রাউট মাছের ডিম পাড়ার কাজে অন্তঃভ্রূণাবরণীহীন প্রাণীদের মধ্যে উপস্থিত বহিঃনিষেক নামক সাধারণ ঘটনাটি দেখা যাচ্ছে
অন্তঃভ্রূণাবরণীহীন প্রাণীগুলির মধ্যে একটি পৃথক শূককীট পর্যায় পরিলক্ষিত হয়
অন্তঃভ্রূণাবরণীহীন প্রাণীগুলির মধ্যে একটি পৃথক শূককীট পর্যায় পরিলক্ষিত হয়
বৈজ্ঞানিক শ্রেণীবিন্যাস
Included groups
চোয়ালহীন মাছ
উপাস্থিক মাছ
অস্থিবিশিষ্ট মাছ
উভচর প্রাণী
Excluded groups
অন্তঃভ্রূণাবরণীবিশিষ্ট প্রাণীসমূহ

অন্তঃভ্রূণাবরণীবিশিষ্ট প্রাণীদের ভ্রূণের বিকাশের সময় এক ধরনের ভ্রূণাবরণীর সৃষ্টি হয় যার কাজ ডিমে অক্সিজেন সরবরাহ করা ও কার্বন-ডাই-অক্সাইড নিষ্কাশন করা। এটিকে অন্তঃভ্রূণাবরণী (Amnion) বলে। অন্তঃভ্রূণাবরণীহীন প্রাণীদের ভ্রূণগুলির বিকাশের সময় এইরূপ কোনও আবরণীর সৃষ্টি হয় না; তারা চারপাশের জলের সাথেই অক্সিজেন, কার্বন ডাই-অক্সাইড ও অন্যান্য বিপাকীয় বর্জ্য গ্রহণ বা নিষ্কাশনের কাজগুলি সম্পন্ন করে থাকে। [১] জল বা পানি ভ্রূণের বর্জ্য পদার্থগুলির (বিশেষ করে অ্যামোনিয়া) ব্যাপনে সহায়তা করে, ফলে ভ্রূণটি তার নিজের বর্জ্য পদার্থের দ্বারা বিষাক্রান্ত না হয়েই ভ্রূণীয় বিকাশ সম্পন্ন করতে পারে।[২] অন্তঃভ্রূণাবরণীহীন প্রাণীগুলির শ্রেণীগুলির সবগুলিই বিকাশের একটি পর্যায় মাছের বিকাশের সাথে সদৃশ হয়, যা নির্দেশ করে যে এগুলির মধ্যে ঘনিষ্ঠ শারীরবৃত্তীয় সম্পর্ক বিদ্যমান।

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. Colbert, E. H.; Morales, M. (২০০১)। Colbert's Evolution of the Vertebrates: A History of the Backboned Animals Through Time (4th সংস্করণ)। New York: John Wiley & Sons। আইএসবিএন 978-0-471-38461-8 
  2. Carroll, R. L. (১৯৯১)। "The origin of reptiles"। Schultze, H.-P.; Trueb, L.। Origins of the higher groups of tetrapods — controversy and consensus। Ithaca: Cornell University Press। পৃষ্ঠা 331–353। আইএসবিএন 978-0-8014-2497-7