২০২০-এর কিউশু বন্যা

২০২০ সালের ৪ঠা জুলাই দক্ষিণ জাপানের কুমামোটো ও কাগোশিমা অঞ্চলে রেকর্ড ভাঙা ভারী বৃষ্টিপাতের বন্যা হয় ও ধ্বস নামে। ৩৭ জন নিহত হন। নিহতদের মধ্যে ১৪ জনই কুমামোতোর কুমা নদী অববাহিকার কুমা গ্রামের এক বৃদ্ধাশ্রমের বাসিন্দা ছিলেন।

熊本県内の雨量分布(レーダ)の推移(2020-07-03T10+09から2020-07-04T10+09).gif

প্রেক্ষাপটসম্পাদনা

পার্বত্য অঞ্চল হওয়ার দরুন জাপানে বৃষ্টিপাতের ফলে ধ্বস ও বন্যা এবং তারফলে মানুষের প্রাণহানি হয়। সাম্প্রতিক সময়ে জাপান খুবই ভারী বৃষ্টিপাতের সম্মুখীন হচ্ছে। বিশেষজ্ঞরা এর জন্য বৈশ্বিক উষ্ণায়নকে দায়ী করেন। [১] এর আগে ১৯৬৫ খ্রিস্টাব্দে কুমা নদীতে প্রবল বন্যা হয়। কুম জাপানের এক অন্যতম বড় নদী। কিউশু পর্বতশ্রেণী থেকে উৎপত্তি লাভ করে কুমামোতো অঞ্চলের হিতোয়োশি, কুমা ও ইয়াৎসুশিরোর মধ্য দিয়ে প্রবাহিত হয়ে ইয়াতসুশিরো সাগরে মিশেছে। [২]

ঘটনাক্রমসম্পাদনা

৪ঠা জুলাই ভারী বৃষ্টিপাতের ফলে কিউশু দ্বীপে বন্যা হয়। জাপানি আবহাওয়া দপ্তর স্থানীয় সময় ভোর পাঁচটায় ভারী বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা জানিয়ে চূড়ান্ত সতর্কতা জারি করে।[৩] তাদের তথ্যানুসারে বৃষ্টিপাতের পরিমান ছিল ঘণ্টায় ১০০ মিলিমিটার। ৬ জুলাই পপর্যন্ত হতাহতের সংখ্যা ৩৭। নিহতদের মধ্যে ১৪ জনই কুমামোতোর কুমা নদী অববাহিকার কুমা গ্রামের এক বৃদ্ধাশ্রমের বাসিন্দা ছিলেন। একজন উদ্ধারকারীর কথা অনুযায়ী বৃদ্ধাশ্রমের একতলা জলের তলায় চলে যায়। যারা দুতলায় উঠে গিয়েছিলেন তাদের বাঁচানো গেছে কিন্তু একতলার আবাসিকদের উদ্ধার করা যায় নাই। স্থানীয় প্রশাসনের নির্দেশ অনুযায়ী প্রায় কুমামোটো ও কাগোশিমা অঞ্চলের প্রায় ৭৫০০০ মানুষকে স্থানান্তরিত করা হয়েছে।

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. Mullany, Gerry (জুলাই ৪, ২০২০)। "Severe Flooding in Southern Japan Swamps Nursing Home"The New York Times 
  2. "Kuma River floods cities after record rainfall"The Japan News। ৪ জুলাই ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৪ জুলাই ২০২০ 
  3. NEWS, KYODO। "1 dead, 15 feared dead, 9 missing in rain, floods in southwest Japan"Kyodo News+