২০১৭–১৮ উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগ

(২০১৭–১৮ উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লীগ থেকে পুনর্নির্দেশিত)

২০১৭–১৮ উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগ হলো উয়েফা কর্তৃক আয়োজিত ইউরোপীয় দলগুলোর ফুটবল প্রতিযোগিতার ৬৩তম আসর এবং ইউরোপিয়ান চ্যাম্পিয়নস ক্লাব হতে উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগে নাম পরিবর্তন করার পর এটি ২৬তম আসর।

২০১৭-১৮ উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগ
বিবরণ
তারিখবাছাইপর্ব:
২৭ জুন - ২৩ আগস্ট ২০১৭
চূড়ান্ত পর্ব:
১২ সেপ্টেম্বর ২০১৭ - ২৬ মে ২০১৮
দলচূড়ান্ত পর্ব: ৩২
সর্বমোট: ৭৯ (৫৪টি অ্যাসোসিয়েশন থেকে)
চূড়ান্ত অবস্থান
চ্যাম্পিয়নস্পেন রিয়াল মাদ্রিদ (১৩তম শিরোপা)
রানার-আপইংল্যান্ড লিভারপুল
পরিসংখ্যান
ম্যাচ১২৫
গোল সংখ্যা৪০১ (ম্যাচ প্রতি ৩.২১টি)
দর্শক সংখ্যা৫৮,২১,৬৭৩ (ম্যাচ প্রতি ৪৬,৫৭৩ জন)
শীর্ষ গোলদাতাপর্তুগাল ক্রিস্তিয়ানো রোনালদো (১৫ গোল)
সর্বশেষ হালনাগাদ: ১১ এপ্রিল ২০১৮

২০১৮ সালের ২৬ মে, ইউক্রেনের কিয়েভের এনএসসি অলিম্পিয়াস্কি স্টেডিয়ামে এই আসরের ফাইনাল অনুষ্ঠিত হবে।[১]

এই আসরের বিজয়ী দল উয়েফার প্রতিনিধি হিসেবে সংযুক্ত আরব আমিরাতে আয়োজিত ২০১৮ ফিফা ক্লাব বিশ্বকাপের জন্য উন্নীত হবে, এবং ২০১৭-১৮ উয়েফা ইউরোপা লিগের বিজয়ীর সাথে ২০১৮ উয়েফা সুপার কাপে খেলার যোগ্যতা অর্জন করবে।

রিয়াল মাদ্রিদ হচ্ছে উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগের টানা ২ বারের এবং বর্তমান চ্যাম্পিয়ন।[২][৩]

এসোসিয়েশন দল বণ্টন

সম্পাদনা

উয়েফার ৫৫টি সদস্য রাষ্ট্রের মধ্যে ৫৪টি রাষ্ট্রের সর্বমোট ৭৯টি দল ২০১৭–১৮ উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগে অংশগ্রহণ করে (শুধু লিশটেনস্টাইন এর ব্যতিক্রম, কারণ তারা কোনো ঘরোয়া লিগ আয়োজন করে না)।[৪] দেশ গুণাঙ্ক নিয়ম অনুসারে উয়েফার এসোসিয়েশন র‍্যাঙ্কিং করা হয়, যার মাধ্যমে এই প্রতিযোগিতায় প্রত্যেক এসোসিয়েশন হতে কতটি দল অংশগ্রহণ করবে তা নির্ধারণ করা হয়:[৫]

  • এসোসিয়েশন ১-৩ হতে ৪টি করে দল যোগ্যতা লাভ করে।
  • এসোসিয়েশন ৪-৬ হতে ৩টি করে দল যোগ্যতা লাভ করে।
  • এসোসিয়েশন ৭-১৫ হতে ২টি করে দল যোগ্যতা লাভ করে।
  • এসোসিয়েশন ১৬-৫৫ (ব্যতিক্রম লিশটেনস্টাইন) হতে ১টি করে দল যোগ্যতা লাভ করে।
  • ২০১৬-১৭ উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগ এবং ২০১৬-১৭ উয়েফা ইউরোপা লিগের বিজয়ীদের এই আসরে খেলার একটি অতিরিক্ত প্রবেশাধিকার থাকে, যার মাধ্যমে তারা যদি তাদের ঘরোয়া লিগের মাধ্যমে ২০১৭–১৮ উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগে খেলার যোগ্যতা অর্জন না করে তবুও এই আসরে খেলতে পারবে। কারণ একটি এসোসিয়েশন হতে সর্বোচ্চ ৫টি দল চ্যাম্পিয়নস লিগে খেলতে পারে, যদি চ্যাম্পিয়নস লিগের বিজয়ী এবং ইউরোপা লিগের বিজয়ী উভয়ই উয়েফার শীর্ষ ৩ সদস্য রাষ্ট্রের যেকোনো একটির অন্তর্ভুক্ত হয় এবং তাদের নিজস্ব ঘরোয়া লিগে তারা শীর্ষ ৪ এর বাহিরে লিগ শেষ করে তবে উক্ত লিগে ৪র্থ স্থান অর্জনকারী দলটি ইউরোপা লিগে প্রবেশ করবে।[৬] এই আসরের জন্য:

কসোভো, যারা ২০১৬ সালের ৩ মে উয়েফার সদস্যপদ লাভ করেছে, তারা এই আসরের মাধ্যমে উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগে অভিষেক করেছে।[৭][৮]

এসোসিয়েশন র‍্যাঙ্কিং

সম্পাদনা

২০১৭–১৮ উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগের জন্য, ২০১৬ সালে উয়েফা দেশ গুণাঙ্ক অনুযায়ী প্রত্যেক সদস্য রাষ্ট্র হতে কতটি দল খেলবে তা বরাদ্দ করা হয়েছে, যেটি ২০১১-১২ হতে ২০১৫-১৬ পর্যন্ত ইউরোপীয় প্রতিযোগিতায় তাদের কর্মক্ষমতার অপর ভিত্তি করে নির্ধারিত।[৯][১০]

এই দেশ গুণাঙ্কের দল বরাদ্দ ছাড়াও, এসোসিয়েশন কর্তৃক চ্যাম্পিয়নস লিগে অতিরিক্ত দলও খেলতে পারে, নিম্নে উল্লিখিত:

  • (অ.প.) - উয়েফা ইউরোপা লিগ বিজয়ীর জন্য অতিরিক্ত প্রবেশাধিকার প্রযোজ্য
ক্রম এসোসিয়েশন গুণাঙ্ক দল উল্লেখ
  স্পেন ১০৫.৭১৩
  জার্মানি ৮০.১৭৭
  ইংল্যান্ড ৭৬.২৮৪ +১(অ.প.)
  ইতালি ৭০.৪৩৯
  পর্তুগাল ৫৩.০৮২
  ফ্রান্স ৫২.৭৪৯
  রাশিয়া ৫১.০৮২
  ইউক্রেন ৪৪.৮৮৩
  বেলজিয়াম ৪০.০০০
১০   নেদারল্যান্ডস ৩৫.৫৬৩
১১   তুরস্ক ৩৪.৬০০
১২   সুইজারল্যান্ড ৩৩.৭৭৫
১৩   চেক প্রজাতন্ত্র ৩২.৯২৫
১৪   গ্রিস ২৯.৭০০
১৫   রোমানিয়া ২৫.৩৮৩
১৬   অস্ট্রিয়া ২৫.১০০
১৭   ক্রোয়েশিয়া ২৩.৮৭৫
১৮   পোল্যান্ড ২২.৫০০
১৯   সাইপ্রাস ২২.১৭৫
ক্রম এসোসিয়েশন গুণাঙ্ক দল উল্লেখ
২০   বেলারুশ ২০.০০০
২১   সুইডেন ১৯.৮৭৫
২২   নরওয়ে ১৯.২৫০
২৩   ইসরায়েল ১৮.৬২৫
২৪   ডেনমার্ক ১৮.৬০০
২৫   স্কটল্যান্ড ১৭.৩০০
২৬   আজারবাইজান ১৪.৮৭৫
২৭   সার্বিয়া ১৪.৬২৫
২৮   কাজাখস্তান ১৪.১২৫
২৯   বুলগেরিয়া ১৩.১২৫
৩০   স্লোভানিয়া ১৩.১২৫
৩১   স্লোভাকিয়া ১২.০০০
৩২   লিশটেনস্টাইন ১০.৫০০
৩৩   হাঙ্গেরি ৯.৮৭৫
৩৪   মোল্দোভা ৯.১২৫
৩৫   আইসল্যান্ড ৮.৭৫০
৩৬   জর্জিয়া ৮.১২৫
৩৭   ফিনল্যান্ড ৭.৪০০
ক্রম এসোসিয়েশন গুণাঙ্ক দল উল্লেখ
৩৮   বসনিয়া ও হার্জেগোভিনা ৭.১২৫
৩৯   আলবেনিয়া ৬.৬২৫
৪০   ম্যাসেডোনিয়া ৬.০০০
৪১   আয়ারল্যান্ড প্রজাতন্ত্র ৫.৪৫০
৪২   লাটভিয়া ৫.৩৭৫
৪৩   লুক্সেমবুর্গ ৫.২৫০
৪৪   মন্টিনিগ্রো ৪.৮৭৫
৪৫   লিথুনিয়া ৪.৬২৫
৪৬   উত্তর আয়ারল্যান্ড ৪.৫০০
৪৭   এস্তোনিয়া ৪.২৫০
৪৮   আর্মেনিয়া ৪.১২৫
৪৯   ফারো দ্বীপপুঞ্জ ৩.৬২৫
৫০   মালটা ৩.৫৮৩
৫১   ওয়েলস ৩.৫০০
৫২   জিব্রালটার ১.০০০
৫৩   অ্যান্ডোরা ০.৯৯৯
৫৪   সান মারিনো ০.৩৩৩
৫৫   কসোভো ০.০০০

বিন্যাস

সম্পাদনা

সাধারণ প্রবেশ তালিকায়, চ্যাম্পিয়নস লিগ শিরোপাধারী দল গ্রুপ পর্বে প্রবেশ করবে।[৮] যাহোক, যেহেতু রিয়াল মাদ্রিদ ইতিমধ্যেই গ্রুপ পর্বে খেলার জন্য যোগ্যতা অর্জন করেছে (২০১৬-১৭ লা লিগা বিজয়ী হিসেবে), তাই চ্যাম্পিয়নস লিগের গ্রুপ পর্বে খেলার জন্য সরাসরি প্রবেশাধিকার ইউরোপা লিগের শিরোপাধারী দল ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডকে প্রদান করা হয়।[১১][১২][১৩]

পর্বসমূহ যেসকল দল এই পর্বে প্রবেশ করে যেসকল দল পূর্ববর্তী পর্ব হতে প্রবেশ করে
প্রথম বাছাইপর্ব (১০টি দল)
  • এসোসিয়েশন ৪৬-৫৫ থেকে ১০টি চ্যাম্পিয়ন
দ্বিতীয় বাছাইপর্ব (৩৪টি দল)
  • এসোসিয়েশন ১৬-৪৫ থেকে ২৯টি চ্যাম্পিয়ন (ব্যতিক্রম লিশটেনস্টাইন)
  • প্রথম বাছাইপর্ব থেকে ৫টি বিজয়ী
তৃতীয় বাছাইপর্ব চ্যাম্পিয়নস রুট
(২০টি দল)
  • এসোসিয়েশন ১৩-১৫ থেকে ৩টি চ্যাম্পিয়ন
  • দ্বিতীয় বাছাইপর্ব থেকে ১৭টি বিজয়ী
লিগ রুট
(১০টি দল)
  • এসোসিয়েশন ৭-১৫ থেকে ৯টি রানার্স-আপ
  • এসোসিয়েশন ৬ থেকে ১টি তৃতীয় স্থান অধিকারী
প্লে-অফ পর্ব চ্যাম্পিয়নস রুট
(১০টি দল)
  • তৃতীয় বাছাইপর্ব থেকে ১০টি বিজয়ী (চ্যাম্পিয়নস রুট)
লিগ রুট
(১০টি দল)
  • এসোসিয়েশন ৪-৫ থেকে ২টি তৃতীয় স্থান অধিকারী
  • এসোসিয়েশন ১-৩ থেকে ৩টি চতুর্থ স্থান অধিকারী
  • তৃতীয় বাছাইপর্ব থেকে ৫টি বিজয়ী (লিগ রুট)
গ্রুপ পর্ব
(৩২টি দল)
  • এসোসিয়েশন ১-১২ থেকে ১২টি চ্যাম্পিয়ন
  • এসোসিয়েশন ১-৬ থেকে ৬টি রানার্স-আপ
  • এসোসিয়েশন ১-৩ থেকে ৩টি তৃতীয় স্থান অধিকারী
  • ইউরোপা লিগ শিরোপাধারী দল
  • প্লে-অফ পর্ব থেকে ৫টি বিজয়ী (চ্যাম্পিয়নস রুট)
  • প্লে-অফ পর্ব থেকে ৫টি বিজয়ী (লিগ রুট)
নকআউট পর্ব
(১৬টি দল)
  • গ্রুপ পর্ব থেকে ৮টি গ্রুপ বিজয়ী
  • গ্রুপ পর্ব থেকে ৮টি গ্রুপ রানার্স-আপ

দলসমূহ

সম্পাদনা

গত মৌসুমে লিগে দলের অবস্থানকে প্রথম বন্ধনীর মধ্যে দেখানো হয়েছে (চ্যা: চ্যাম্পিয়নস লিগে শিরোপাধারী দল; ইউ: ইউরোপা লিগে শিরোপাধারী দল)।[১৪][১৫]

গ্রুপ পর্ব
  রিয়াল মাদ্রিদচ্যা (১ম)   চেলসি (১ম)   পোর্তো (২য়)   ফেয়েনুর্ড (১ম)
  বার্সেলোনা (২য়)   টটেনহ্যাম হটস্পার (২য়)   মোনাকো (১ম)[নোট]   বেসিকটাস (১ম)
  আতলেতিকো মাদ্রিদ (৩য়)   ম্যানচেস্টার সিটি (৩য়)   প্যারিস সেন্ট জার্মেই (২য়)   বাসেল (১ম)
  বায়ার্ন মিউনিখ (১ম)   জুভেন্টাস (১ম)   স্পার্টাক মস্কো (১ম)   ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড (ইউ)
  আরবি লিপজিগ (২য়)   রোমা (২য়)   শাখতার ডোনেৎস্ক (১ম)
  বরুসিয়া ডর্টমুন্ড (৩য়)   বেনফিকা (১ম)   আন্ডারলেচ (১ম)
প্লে-অফ পর্ব
চ্যাম্পিয়নস রুট লিগ রুট
  সেভিয়া (৪র্থ)   লিভারপুল (৪র্থ)   স্পোর্টিং সিপি (৩য়)
  ১৮৯৯ হফেনহেইম (৪র্থ)   নাপোলি (৩য়)
তৃতীয় বাছাইপর্ব
চ্যাম্পিয়নস রুট লিগ রুট
  স্লাভিয়া প্রাগ (১ম)   নিস (৩য়)   আয়াক্স (২য়)   এইকে এথেন্স (২য়)
  অলিম্পিয়াকোস (১ম)   সিএসকেএ মস্কো (২য়)   ইস্তাম্বুল বাসাকসেহির (২য়)   স্টেউয়া বুকারেস্টি (২য়)
  ভিটোরুল কন্সটান্টা (১ম)   ডাইনামো কিয়েভ (২য়)   ইয়াং বয়েজ (২য়)
  ক্লাব ব্রুগ (২য়)   ভিক্টোরিয়া প্লাজেন (২য়)
দ্বিতীয় বাছাইপর্ব
  রেড বুল সালজবার্গ (১ম)   কোপেনহেগেন (১ম)   হনভেদ (১ম)   ডানডাল্ক (১ম)
  রিজেকা (১ম)   সেল্টিক (১ম)   শেরিফ তিরাস্পল (১ম)   স্পার্টাকস জুরমালা (১ম)
  লেগিয়া ওয়ারশ (১ম)   কারাবাগ (১ম)   এফএইচ (১ম)   এফ৯১ ডুডলেঞ্জ (১ম)
  অ্যাপোয়েল (১ম)   পার্টিজান (১ম)   সামট্রেডিয়া (১ম)   বুডুকনস্ট পডগরিকা (১ম)
  বিএটিই বরিসভ (১ম)   আস্তানা (১ম)   এফকে ম্যারিহাম (১ম)   জালগিরিস ভিলনিয়াস (১ম)
  মালমো এফএফ (১ম)   লুডোগরেটস রাজগ্রাড (১ম)   জ্রিনিস্কি মস্টার (১ম)
  রসেনবর্গ (১ম)   মারিবর (১ম)   কুকেসি (১ম)
  হাপয়েল বি'য়ের শেভা (১ম)   জিলিনা (১ম)   ভারদার (১ম)
প্রথম বাছাইপর্ব
  লিনফিল্ড (১ম)   ভিকিঙ্গুর গোটা (১ম)   ইউরোপা ফুটবল ক্লাব (১ম)   ট্রেপকা'৮৯ (১ম)
  এফসিআই টালিন (1st)   হাইবারনিয়াস (১ম)   ফুটবল ক্লাব সান্টা কলোমা (১ম)
  আলাশকার্ট (১ম)   দ্য নিউ সেন্টস (১ম)   লা ফিওরিটা (১ম)
নোট
  1. ^ ফ্রান্স (FRA): এএস মোনাকো হলো মোনাকোর একটি ক্লাব (যারা উয়েফার সদস্য নয়), কিন্তু মোনাকো ফ্রান্সের একটি ক্লাব হিসেবে চ্যাম্পিয়নস লিগে খেলে থাকে (তাদের দ্বারা অর্জিত যেকোনো গুণাঙ্ক ফ্রান্সের সর্বমোট গুনাঙ্কের সাথে যোগ হয়)।

পর্ব এবং ড্রয়ের তারিখ

সম্পাদনা

এই আসরের সকল পর্বের সময়সূচী নিম্নে উল্লেখ করা হলো (সকল ড্র উয়েফার প্রধান সদরদপ্তর সুইজারল্যান্ডের নিওঁয়ে অনুষ্ঠিত হয়, যদি না অন্যথায় হওয়ার জন্য বিবৃতি প্রদান করা হয়)।[৮][১৬][১৭]

ধাপ পর্ব ড্রয়ের তারিখ প্রথম লেগ দ্বিতীয় লেগ
বাছাইপর্ব প্রথম বাছাইপর্ব ১৯ জুন ২০১৭ ২৭-২৮ জুন ২০১৭ ৪-৫ জুলাই ২০১৭
দ্বিতীয় বাছাইপর্ব ১১-১২ জুলাই ২০১৭ ১৮-১৯ জুলাই ২০১৭
তৃতীয় বাছাইপর্ব ১৪ জুলাই ২০১৭ ২৫-২৬ জুলাই ২০১৭ ১-২ আগস্ট ২০১৭
প্লে-অফ প্লে-অফ পর্ব ৪ আগস্ট ২০১৭ ১৫-১৬ আগস্ট ২০১৭ ২২-২৩ আগস্ট ২০১৭
গ্রুপ পর্ব ম্যাচডে ১ ২৪ আগস্ট ২০১৭
(মোনাকো)
১২-১৩ সেপ্টেম্বর ২০১৭
ম্যাচডে ২ ২৬-২৭ সেপ্টেম্বর ২০১৭
ম্যাচডে ৩ ১৭-১৮ অক্টোবর ২০১৭
ম্যাচডে ৪ ৩১ অক্টোবর - ১ নভেম্বর ২০১৭
ম্যাচডে ৫ ২১-২২ নভেম্বর ২০১৭
ম্যাচডে ৬ ৫-৬ ডিসেম্বর ২০১৭
নকআউট পর্ব রাউন্ড অফ ১৬ ১১ ডিসেম্বর ২০১৭ ১৩-১৪ এবং ২০-২১ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ ৬-৭ এবং ১৩-১৪ মার্চ ২০১৮
কোয়ার্টার-ফাইনাল ১৬ মার্চ ২০১৮ ৩-৪ এপ্রিল ২০১৮ ১০-১১ এপ্রিল ২০১৮
সেমি-ফাইনাল ১৩ এপ্রিল ২০১৮ ২৪-২৫ এপ্রিল ২০১৮ ১-২ মে ২০১৮
ফাইনাল কিয়েভের এনএসসি অলিম্পিয়াস্কি স্টেডিয়ামে ২৬ মে ২০১৮

বাছাইপর্ব

সম্পাদনা

বাছাইপর্বে এবং প্লে-অফ পর্বে, দলগুলোকে ২০১৭ উয়েফা ক্লাব গুণাঙ্কের ওপর ভিত্তি করে বাছাই এবং অ-বাছাই নামে দুইটি ভাগে বিভক্ত করা হয়েছে,[১৮][১৯][২০] এবং তারপরে দুই লেগের হোম এবং অ্যাওয়ে সমতায় ভাগ করা হয়েছে। একই এসোসিয়েশনের দলগুলোকে কখনো একে অপরের বিপক্ষে ড্র করা হয় না।

প্রথম বাছাইপর্ব

সম্পাদনা

২০১৭ সালে ১৯শে জুন, ১২টায় সিইএসটি উয়েফার প্রধান সদরদপ্তর সুইজারল্যান্ডের নিওঁয়ে প্রথম বাছাইপর্বের ড্র অনুষ্ঠিত হয়েছে।[২১]

টেমপ্লেট:২০১৭-১৮ উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগ প্রথম বাছাইপর্ব ফলাফল

দ্বিতীয় বাছাইপর্ব

সম্পাদনা

২০১৭ সালে ১৯শে জুন, ১২টায় সিইএসটি উয়েফার প্রধান সদরদপ্তর সুইজারল্যান্ডের নিওঁয়ে দ্বিতীয় বাছাইপর্বের ড্র অনুষ্ঠিত হয়েছে (প্রথম বাছাইপর্বের ড্র অনুষ্ঠিত হওয়ার পর)।[২১]

টেমপ্লেট:২০১৭-১৮ উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগ দ্বিতীয় বাছাইপর্ব ফলাফল

তৃতীয় বাছাইপর্ব

সম্পাদনা

২০১৭ সালে ১৪ই জুলাই, ১২টায় সিইএসটি উয়েফার প্রধান সদরদপ্তর সুইজারল্যান্ডের নিওঁয়ে তৃতীয় বাছাইপর্বের ড্র অনুষ্ঠিত হয়েছে।[২২]

তৃতীয় বাছাইপর্বকে দুইটি আলাদা বিভাগে বিভক্ত করা হয়েছে: চ্যাম্পিয়নস রুট (লিগের চ্যাম্পিয়নদের জন্য) এবং লিগ রুট (লিগের অ-চ্যাম্পিয়নদের জন্য)। উভয় বিভাগের হেরে যাওয়া দলগুলো ২০১৭-১৮ উয়েফা ইউরোপা লিগের প্লে-অফ পর্বে প্রবেশ করেছে।

টেমপ্লেট:২০১৭-১৮ উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগ তৃতীয় বাছাইপর্ব ফলাফল

প্লে-অফ পর্ব

সম্পাদনা

২০১৭ সালে ৪ঠা আগস্ট, ১২টায় সিইএসটি উয়েফার প্রধান সদরদপ্তর সুইজারল্যান্ডের নিওঁয়ে প্লে-অফ পর্বের ড্র অনুষ্ঠিত হয়েছে।[২৩]

প্লে-অফ পর্বকে দুইটি আলাদা বিভাগে বিভক্ত করা হয়েছে: চ্যাম্পিয়নস রুট (লিগের চ্যাম্পিয়নদের জন্য) এবং লিগ রুট (লিগের অ-চ্যাম্পিয়নদের জন্য)। উভয় বিভাগের হেরে যাওয়া দলগুলো ২০১৭-১৮ উয়েফা ইউরোপা লিগের গ্রুপ পর্বে প্রবেশ করেছে।

টেমপ্লেট:২০১৭-১৮ উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগ প্লে-অফ পর্ব ফলাফল

গ্রুপ পর্ব

সম্পাদনা
 
 
লন্ডন
 
ম্যানচেস্টার
 
লিসবন
 
মস্কো
 
মাদ্রিদ
২০১৭-১৮ উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগের গ্রুপ পর্বে খেলা দলগুলোর অবস্থান।
  বাদামী: গ্রুপ এ;   লাল: গ্রুপ বি;   কমলা: গ্রুপ সি;   হলুদ: গ্রুপ ডি;
  সবুজ: গ্রুপ ই;   নীল: গ্রুপ এফ;   বেগুনী: গ্রুপ জি;   গোলাপী: গ্রুপ এইচ।

২০১৭ সালে ২৪শে আগস্ট, ১৮টায় সিইএসটি উয়েফার প্রধান সদরদপ্তর মোনাকোর গ্রিলমালদি ফোরামে গ্রুপ পর্বের ড্র অনুষ্ঠিত হয়েছে।[২৪] সর্বমোট ৩২টি দলকে ৮টি গ্রুপে বিভক্ত করা হয়েছে, যেখানে প্রতিটি গ্রুপে ৪টি করে দল রয়েছে। উক্ত ড্রয়ে নিয়ম ছিল যে একই এসোসিয়েশনের দলগুলোকে পরস্পরের বিপক্ষে ড্র করা যাবে না। ড্রয়ের জন্য, দলগুলোকে ৪টি পাত্রে নিম্নলিখিত নীতির উপর ভিত্তি করে ভাগ করা হয়েছে (২০১৫-১৬ মৌসুমের শুরু উপস্থাপিত):[২৫][২৬]

  • পাত্র ১-এ শিরোপাধারী দল এবং ২০১৬ উয়েফা দেশ গুণাঙ্কের উপর ভিত্তি করে শীর্ষ ৭টি এসোসিয়েশনের চ্যাম্পিয়নদের রাখা হয়েছে।[৯][১০] শিরোপাধারী দল হিসেবে, রিয়াল মাদ্রিদ, শীর্ষ ৭টি এসোসিয়েশনের একটির চ্যাম্পিয়ন হওয়ায় ৮ম এসোসিয়েশনের চ্যাম্পিয়নকে পাত্র ১-এ উন্নীত করা হয়েছে। (আইন নিবন্ধ ১৩.০৫)।[৫]
  • পাত্র ২, ৩ এবং ৪-এ অবশিষ্ট দলগুলোকে ২০১৭ উয়েফা দেশ গুণাঙ্কের উপর ভিত্তি করে রাখা হয়েছে।[১৮][১৯][২০]

প্রত্যেক গ্রুপে, দলগুলো প্রত্যেক দলের সাথে রাউন্ড-রবিন নিয়মে নিজস্ব মাঠে এবং অ্যাওয়ে মাঠে ম্যাচ খেলবে। প্রত্যেক গ্রুপের বিজয়ী দল এবং রানার্স-আপ দল রাউন্ড অফ ১৬-এর জন্য উন্নীত হবে, যখন প্রত্যেক গ্রুপের তৃতীয় স্থান অধিকারী দলগুলো ২০১৭-১৮ উয়েফা ইউরোপা লিগের রাউন্ড অফ ১৬-এ প্রবেশ করবে। এই পর্বের ম্যাচডেগুলো হলো: ১২-১৩ সেপ্টেম্বর, ২৬-২৭ সেপ্টেম্বর, ১৭-১৮ অক্টোবর, ৩১ অক্টোবর - ১ নভেম্বর, ২১-২২ নভেম্বর এবং ৫-৬ ডিসেম্বর ২০১৭।

যেসকল ক্লাবগুলো গ্রুপ পর্বে খেলার জন্য যোগ্যতা অর্জন করেছে তাদের যুব দলগুলোও ২০১৭-১৮ উয়েফা যুব লিগে খেলার যোগ্যতা অর্জন করবে, যেখানে তারা শীর্ষ ৩২ এসোসিয়েশনের চ্যাম্পিয়ন দলগুলোর সাথে প্রতিযোগিতা করবে।

সর্বমোট ১৭টি জাতীয় এসোসিয়েশন এইবারের আসরের গ্রুপ পর্বে প্রতিনিধিত্ব করছে। কারাবাগ এবং আরবি লিপজিগ এইবারের আসরের গ্রুপ পর্বে খেলার মাধ্যমে চ্যাম্পিয়নস লিগে অভিষেক করেছে। কারাবাগ হলো আজারবাইজানকে চ্যাম্পিয়নস লিগে প্রতিনিধিত্ব করা প্রথম দল।[২৭]

গ্রুপ এ

সম্পাদনা
অব দল ম্যাচ জয় ড্র হার স্বগো বিগো গোপা পয়েন্ট যোগ্যতা অর্জন ইউনাইটেড বাসেল মস্কো বেনফিকা
  ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড ১২ +৯ ১৫ নকআউট পর্বের জন্য অগ্রসর ৩–০ ২–১ ২–০
  বাসেল ১১ +৬ ১২ ১–০ ১–২ ৫–০
  সিএসকেএ মস্কো ১০ −২ ইউরোপা লিগে স্থানান্তর ১–৪ ০–২ ২–০
  বেনফিকা ১৪ −১৩ ০–১ ০–২ ১–২
ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড  ৩–০  বাসেল
প্রতিবেদন

বাসেল  ৫–০  বেনফিকা
প্রতিবেদন
সিএসকেএ মস্কো  ১–৪  ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড
প্রতিবেদন
দর্শক সংখ্যা: ২৯,০৭৩[২৯]

সিএসকেএ মস্কো  ০–২  বাসেল
প্রতিবেদন

বাসেল  ১–২  সিএসকেএ মস্কো
প্রতিবেদন

সিএসকেএ মস্কো  ২–০  বেনফিকা
প্রতিবেদন
বাসেল  ১–০  ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড
প্রতিবেদন

বেনফিকা  ০–২  বাসেল
প্রতিবেদন

গ্রুপ বি

সম্পাদনা
অব দল ম্যাচ জয় ড্র হার স্বগো বিগো গোপা পয়েন্ট যোগ্যতা অর্জন প্যারিস বায়ার্ন সেল্টিক আন্ডারলেচ
  প্যারিস সেন্ট জার্মেই ২৫ +২১ ১৫ নকআউট পর্বের জন্য অগ্রসর ৩–০ ৭–১ ৫–০
  বায়ার্ন মিউনিখ ১৩ +৭ ১৫ ৩–১ ৩–০ ৩–০
  সেল্টিক ১৮ −১৩ ইউরোপা লিগে স্থানান্তর ০–৫ ১–২ ০–১
  আন্ডারলেচ ১৭ −১৫ ০–৪ ১–২ ০–৩
সেল্টিক  ০-৫  প্যারিস সেন্ট জার্মেই
প্রতিবেদন


বায়ার্ন মিউনিখ  ৩-০  সেল্টিক
প্রতিবেদন



গ্রুপ সি

সম্পাদনা
অব দল ম্যাচ জয় ড্র হার স্বগো বিগো গোপা পয়েন্ট যোগ্যতা অর্জন রোমা চেলসি আতলেতিকো কারাবাগ
  রোমা +৩ ১১ নকআউট পর্বের জন্য অগ্রসর ৩–০ ০–০ ১–০
  চেলসি ১৬ +৮ ১১ ৩–৩ ১–১ ৬–০
  আতলেতিকো মাদ্রিদ +১ ইউরোপা লিগে স্থানান্তর ২–০ ১–২ ১–১
  কারাবাগ ১৪ −১২ ১–২ ০–৪ ০–০
রোমা  ০-০  আতলেতিকো মাদ্রিদ
প্রতিবেদন

কারাবাগ  ১-২  রোমা
প্রতিবেদন

কারাবাগ  ০-০  আতলেতিকো মাদ্রিদ
প্রতিবেদন
চেলসি  ৩-৩  রোমা
প্রতিবেদন

রোমা  বনাম  চেলসি
প্রতিবেদন


রোমা  বনাম  কারাবাগ
প্রতিবেদন

গ্রুপ ডি

সম্পাদনা
অব দল ম্যাচ জয় ড্র হার স্বগো বিগো গোপা পয়েন্ট যোগ্যতা অর্জন বার্সেলোনা জুভেন্টাস স্পোর্টিং অলিম্পিয়াকোস
  বার্সেলোনা +৮ ১৪ নকআউট পর্বের জন্য অগ্রসর ৩–০ ২–০ ৩–১
  জুভেন্টাস +২ ১১ ০–০ ২–১ ২–০
  স্পোর্টিং সিপি −১ ইউরোপা লিগে স্থানান্তর ০–১ ১–১ ৩–১
  অলিম্পিয়াকোস ১৩ −৯ ০–০ ০–২ ২–৩
বার্সেলোনা  ৩-০  জুভেন্টাস
প্রতিবেদন

স্পোর্টিং সিপি  ০-১  বার্সেলোনা
প্রতিবেদন

বার্সেলোনা  ৩-১  অলিম্পিয়াকোস
প্রতিবেদন



গ্রুপ ই

সম্পাদনা
অব দল ম্যাচ জয় ড্র হার স্বগো বিগো গোপা পয়েন্ট যোগ্যতা অর্জন লিভারপুল সেভিয়া স্পার্টাক মারিবর
  লিভারপুল ২৩ +১৭ ১২ নকআউট পর্বের জন্য অগ্রসর ২–২ ৭–০ ৩–০
  সেভিয়া ১২ ১২ ৩–৩ ২–১ ৩–০
  স্পার্টাক মস্কো ১৩ −৪ ইউরোপা লিগে স্থানান্তর ১–১ ৫–১ ১–১
  মারিবর ১৬ −১৩ ০–৭ ১–১ ১–১
মারিবর  ১-১  স্পার্টাক মস্কো
প্রতিবেদন
লিভারপুল  ২-২  সেভিয়া
প্রতিবেদন

সেভিয়া  ৩-০  মারিবর
প্রতিবেদন
স্পার্টাক মস্কো  ১-১  লিভারপুল
প্রতিবেদন


লিভারপুল  বনাম  মারিবর
প্রতিবেদন


মারিবর  বনাম  সেভিয়া
প্রতিবেদন

গ্রুপ এফ

সম্পাদনা
অব দল ম্যাচ জয় ড্র হার স্বগো বিগো গোপা পয়েন্ট যোগ্যতা অর্জন সিটি শাখতার নাপোলি ফেয়েনুর্ড
  ম্যানচেস্টার সিটি ১৪ +৯ ১৫ নকআউট পর্বের জন্য অগ্রসর ২–০ ২–১ ১–০
  শাখতার ডোনেৎস্ক ১২ ২–১ ২–১ ৩–১
  নাপোলি ১১ ১১ ইউরোপা লিগে স্থানান্তর ২–৪ ৩–০ ৩–১
  ফেয়েনুর্ড ১৪ −৯ ০–৪ ১–২ ২–১

নাপোলি  ৩-১  ফেয়েনুর্ড
প্রতিবেদন




ফেয়েনুর্ড  বনাম