প্রধান মেনু খুলুন

২০১৪-১৫ ইংল্যান্ড ক্রিকেট দলের ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফর

ইংল্যান্ড ক্রিকেট দল পূর্ব-নির্ধারিত সময়সূচী মোতাবেক ৬ এপ্রিল থেকে ৫ মে, ২০১৫ তারিখ পর্যন্ত ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফর করে। স্বাগতিক ওয়েস্ট ইন্ডিজ ক্রিকেট দলের বিপক্ষে তারা তিনটি টেস্টে অংশগ্রহণ করে।[১] এর পূর্বে দলটি সেন্ট কিটস আমন্ত্রিত একাদশের বিপক্ষে দুইটি দুই দিনের প্রস্তুতিমূলক ক্রিকেট খেলায় অংশ নিয়েছে।[২]

২০১৪-১৫ ইংল্যান্ড ক্রিকেট দলের ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফর
WestIndiesCricketFlagPre1999.svg
ওয়েস্ট ইন্ডিজ
Flag of England.svg
ইংল্যান্ড
তারিখ ৬ এপ্রিল, ২০১৫ – ৫ মে, ২০১৫
অধিনায়ক দীনেশ রামদিন অ্যালাস্টেয়ার কুক
টেস্ট সিরিজ
ফলাফল ৩-ম্যাচের সিরিজ ১–১ এ ড্র হয়
সর্বাধিক রান জার্মেইন ব্ল্যাকউড (৩১১) জো রুট (৩৫৮)
সর্বাধিক উইকেট জেরোমি টেলর (১১) জেমস অ্যান্ডারসন (১৭)
২০১৩-১৪ (পূর্ববর্তী) (পরবর্তী) নির্ধারিত হয়নি →

১৮ মার্চ, ২০১৫ তারিখে ইংল্যান্ড দলের সদস্যদের নামের তালিকা প্রকাশ করা হয়।[৩] ২০১৫ সালের ক্রিকেট বিশ্বকাপ চলাকালে মইন আলীক্রিস উকস গুরুতর আহত হওয়ায় তারা দলে অন্তর্ভুক্ত হননি।[৩] কিন্তু দ্বিতীয় টেস্টে মইন আলী পুণরায় যোগ দেন।[৪] ক্যাপবিহীন অবস্থায় আদিল রশিদ, অ্যাডাম লিথমার্ক উড দলে অন্তর্ভুক্ত হয়েছেন।[৫] এছাড়াও, ২০১৩-১৪ মৌসুমের অ্যাশেজ সিরিজের পর জোনাথন ট্রট প্রথমবারের মতো দলে যোগ দিয়েছেন।[৩] প্রথম টেস্টে ৩৮৪ উইকেট দখল করে জেমস অ্যান্ডারসন ইংল্যান্ডের সর্বোচ্চ উইকেটধারীর ভূমিকায় অবতীর্ণ হন।

এ সিরিজটি ১-১ ব্যবধানে ড্র হয়। এরফলে ২০১২ সালে সফরকারী ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে উইজডেন ট্রফি জয় করায় তা অদ্যাবধি নিজেদের অনুকূলে রাখে। অ্যান্টিগুয়ায় অনুষ্ঠিত ১ম টেস্টে ড্র হবার পর গ্রেনাডায় ইংল্যান্ড ৯ উইকেটে জয় পায়। কিন্তু ৩য় টেস্ট তিনদিনেই শেষ হয়। ঐ টেস্টের ২য় দিনে ১৮ উইকেটের পতন ঘটে। দ্বিতীয় ইনিংসে ইংল্যান্ড দল মাত্র ১২৩ রানে অল-আউট হলে ১৯২ রানের জয়ের লক্ষ্যমাত্রা ৫ উইকেট হাতে রেখেই অতিক্রম করে ওয়েস্ট ইন্ডিজ দল।

পরিচ্ছেদসমূহ

দলীয় সদস্যসম্পাদনা

প্রস্তুতিমূলক খেলাসম্পাদনা

৬-৭ এপ্রিল, ২০১৫
স্কোরকার্ড
সেন্ট কিটস আমন্ত্রিত একাদশ  
৫৯ (২৬.৩ ওভার)
জয়সন পিটার্স ২২ (২৫)
বেন স্টোকস ৩/১০ (৬ ওভার)
৩৭৯/৬ডি. (১১৫.২ ওভার)
অ্যালাস্টেয়ার কুক ১০১ (১৯৮)
লিওন ক্লার্ক ১/৩৩ (৭ ওভার)
৭৬/৭ (৩৫ ওভার)
আকিম সন্ডার্স ২০* (৫৫)
জেমস ট্রেডওয়েল ৩/৩৫ (১৪ ওভার)
খেলা ড্র
ওয়ার্নার পার্ক, বাসসেত্রে, সেন্ট কিটস
আম্পায়ার: ওয়িক্লিফ মিচাম ও কার্ল টাকেট
  • সেন্ট কিটস আমন্ত্রিত একাদশ টসে জয়ী হয়ে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।
  • প্রত্যেক দলের সদস্য সংখ্যা ১৪; তন্মধ্যে ১১ ব্যাটিং ও ১১ ফিল্ডিং
  • নভেম্বর, ২০১৩ সালের পর ইংল্যান্ডের পক্ষে অ্যালাস্টেয়ার কুক তার প্রথম সেঞ্চুরি করেন।[৮]

৮-৯ এপ্রিল, ২০১৫
স্কোরকার্ড
সেন্ট কিটস আমন্ত্রিত একাদশ  
৩০৩/৯ডি. (৯০ ওভার)
জনি বেয়ারস্টো ৯৮ (১৫৪)
বেন স্টোকস ৩/৩২ (১১.২ ওভার)
২২২ (৭৮.১ ওভার)
ইয়ান বেল ৪৩ (৭২)
কুইন্টন বোটসওয়েন ২/৩৪ (১০ ওভার)
খেলা ড্র
ওয়ার্নার পার্ক, বাসেত্রেরে, সেন্ট কিটস
আম্পায়ার: ওয়েক্লিফ মিচাম ও কার্ল টাকেট
  • ইংল্যান্ড একাদশ টসে জয়ী হয়ে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।
  • প্রত্যেক দলেই ১৭জন খেলোয়াড়ের নাম অন্তর্ভুক্ত করে; ১১ ব্যাটিং ও ১১ ফিল্ডিং।
  • জোনাথন ট্রট, গ্যারি ব্যালেন্স, জো রুটজনি বেয়ারস্টো সেন্ট কিটস আমন্ত্রিত একাদশের পক্ষে প্রথম ইনিংসে ব্যাটিং করেন।

খেলা পরিচালনাকারী কর্মকর্তাসম্পাদনা

নিম্নবর্ণিত কর্মকর্তাগণ খেলা পরিচালনা করেন:[৯]

আম্পায়ার টিভি আম্পায়ার সংরক্ষিত আম্পায়ার ম্যাচ রেফারী

টেস্ট সিরিজসম্পাদনা

১ম টেস্টসম্পাদনা

১৩-১৭ এপ্রিল, ২০১৫
স্কোরকার্ড
৩৯৯ (১১০.৪ ওভার)
ইয়ান বেল ১৪৩ (২৫৬)
কেমার রোচ ৪/৯৪ (২৯ ওভার)
২৯৫ (১১৩ ওভার)
জার্মেইন ব্ল্যাকউড ১১২* (২২০)
জেমস ট্রেডওয়েল ৪/৪৭ (২৬ ওভার)
৩৩৩/৭ডি. (৮৬ ওভার)
গ্যারি ব্যালেন্স ১২২ (২৫০)
জেরোমি টেলর ২/৪২ (১৪ ওভার)
৩৫০/৭ (১২৯.৪ ওভার)
জেসন হোল্ডার ১০৩* (১৪৯)
জো রুট ২/২২ (১৩ ওভার)
ড্র
স্যার ভিভিয়ান রিচার্ডস স্টেডিয়াম, নর্থ সাউন্ড, অ্যান্টিগুয়া
আম্পায়ার: বিলি বাউডেন (নিউজিল্যান্ড) ও স্টিভ ডেভিস (অস্ট্রেলিয়া)
ম্যাচসেরা: জেসন হোল্ডার (ওয়েস্ট ইন্ডিজ)

২য় টেস্টসম্পাদনা

২১-২৫ এপ্রিল, ২০১৫
স্কোরকার্ড
২৯৯ (১০৪.৪ ওভার)
মারলন স্যামুয়েলস ১০৩ (২২৮)
স্টুয়ার্ট ব্রড ৪/৬১ (২৪ ওভার)
৪৬৪ (১৪৪.১ ওভার)
জো রুট ১৮২* (২২৯)
দেবেন্দ্র বিশু ৪/১৭৭ (৫১ ওভার)
৩০৭ (১১২ ওভার)
ক্রেগ ব্রাদওয়েট ১১৬ (২৫২)
জেমস অ্যান্ডারসন ৪/৪৩ (২২ ওভার)
১৪৪/১ (৪১.১ ওভার)
গ্যারি ব্যালেন্স ৮১* (১২৬)
শ্যানন গ্যাব্রিয়েল ১/২০ (৭ ওভার)
ইংল্যান্ড ৯ উইকেটে বিজয়ী
জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়াম, সেন্ট জর্জেস, গ্রেনাডা
আম্পায়ার: স্টিভ ডেভিস (অস্ট্রেলিয়া) ও ব্রুস অক্সেনফোর্ড (অস্ট্রেলিয়া)
ম্যাচসেরা: জো রুট (ইংল্যান্ড)
  • ইংল্যান্ড টসে জয়ী হয়ে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।
  • বৃষ্টির কারণে ১ম দিন ১১:৪৫ ও ২য় দিন ১০:৪৫ ঘটিকায় খেলা শুরু হয়।
  • ৩য় দিন খেলার ঘাটতি পোষাতে ০৯:৪৫ ঘটিকায় শুরু হয়।
  • অ্যালেক স্টুয়ার্টকে অতিক্রম করে প্রথম ইনিংসে অ্যালাস্টেয়ার কুক ইংল্যান্ডের টেস্ট ক্রিকেটের ইতিহাসে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক হন।[১৬]
  • দ্বিতীয় ইনিংসে ৬২ রানে থাকাকালীন ইংল্যান্ডের গ্যারি ব্যালেন্স তার সহস্র রান পূর্ণ করেন।[১৭]
  • ডিসেম্বর, ২০১২ সালের পর ইংল্যান্ড প্রথমবারের মতো বিদেশ সফরে টেস্ট জয় পায়।[১৮]
  • ইংল্যান্ড ১-০ ব্যবধানে সিরিজে এগিয়ে।

৩য় টেস্টসম্পাদনা

১-৫ মে, ২০১৫
স্কোরকার্ড
২৫৭ (৯৬.৩ ওভার)
অ্যালাস্টেয়ার কুক ১০৫ (২৬৬)
জেরোমি টেলর ৩/৩৬ (১৮.৩ ওভার)
১৮৯ (৪৯.৪ ওভার)
জার্মেইন ব্ল্যাকউড ৮৫ (৮৮)
জেমস অ্যান্ডারসন ৬/৪২ (১২.৪ ওভার)
১২৩ (৪২.১ ওভার)
জশ বাটলার ৩৫* (৪২)
জেসন হোল্ডার ৩/১৫ (৯ ওভার)
১৯৪/৫ (৬২.৪ ওভার)
ড্যারেন ব্রাভো ৮২ (১৪৮)
ক্রিস জর্দান ১/২৪ (১১ ওভার)
ওয়েস্ট ইন্ডিজ ৫ উইকেটে বিজয়ী
কেনসিংটন ওভাল, ব্রিজটাউন, বার্বাডোস
আম্পায়ার: বিলি বাউডেন (নিউজিল্যান্ড) ও ব্রুস অক্সেনফোর্ড (অস্ট্রেলিয়া)
ম্যাচসেরা: জার্মেইন ব্ল্যাকউড (ওয়েস্ট ইন্ডিজ)
  • ইংল্যান্ড টসে জয়ী হয়ে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।
  • ওয়েস্ট ইন্ডিজের পক্ষে শাই হোপের টেস্ট অভিষেক ঘটে।
  • ২য় দিনে কেনসিংটন ওভালে ১৮ উইকেটের পতন ঘটে।[১৯]
  • ১-১ ব্যবধানে সিরিজ ড্র।

পরিসংখ্যানসম্পাদনা

সর্বোচ্চ রান[২০]
খেলোয়াড় খেলা ইনিংস অপরাজিত রান সর্বোচ্চ রান গড় বল মোকাবেলা স্ট্রাইক রেট শতক অর্ধ-শতক শূন্য
জো রুট ৩৫৮ ১৮২* ৮৯.৫০ ৪৮৯ ৭৩.২১ ৩৮
গ্যারি ব্যালেন্স ৩৩১ ১২২ ৬৬.২০ ৭৩১ ৪৫.২৮ ৩১
জার্মেইন ব্ল্যাকউড ৩১১ ১১২* ৭৭.৭৫ ৫৫১ ৫৬.৪৪ ৪০
অ্যালাস্টেয়ার কুক ২৬৮ ১০৫ ৫৩.৬০ ৬৬৪ ৪০.৩৬ ৩১
ড্যারেন ব্র্যাভো ২৩৭ ৮২ ৩৯.৫০ ৫২৭ ৪৪.৯৭ ২৯
সর্বোচ্চ উইকেট[২১]
খেলোয়াড় খেলা ইনিংস ওভার মেইডেন রান উইকেট ইনিংসে সেরা বোলিং খেলায় সেরা বোলিং গড় ইকোনোমি স্ট্রাইক রেট ৫-উইঃ ১০-উইঃ
জেমস অ্যান্ডারসন ১১৯.২ ৩৮ ৩০৬ ১৭ ৬/৪২ ৭/৭৭ ১৮.০০ ২.৫৬ ৪২.১০
জেরোমি টেলর ৬৩.৪ ১৮ ২০১ ১১ ৩/৩৩ ৬/৬৯ ১৮.২৭ ৩.১৫ ৩৪.৭০
স্টুয়ার্ট ব্রড ১১১.০ ২৬ ৩২০ ১০ ৪/৬১ ৫/১৩২ ৩২.০০ ২.৮৮ ৬৬.৬০
জেসন হোল্ডার ৮৯.৫ ২৯ ২৪৯ ৩/১৫ ৫/৪৯ ৩১.১২ ২.৭৭ ৬৭.৩০
শ্যানন গ্যাব্রিয়েল ৫১.০ ১৩ ১৫০ ২/৪৭ ৩/৬৩ ২৫.০০ ২.৯৪ ৫১.০০

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. ESPNcricinfo staff (৪ আগস্ট ২০১৪)। "England return to scene of 10-ball Test"ESPNcricinfo। সংগ্রহের তারিখ ২ জানুয়ারি ২০১৪ 
  2. "St. Kitts & Nevis Prime Minister Personally Welcomes English Cricket Team to Island for First Caribbean Tour Stop"। PR News Wire। ২২ জানুয়ারি ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ১৮ মার্চ ২০১৫ 
  3. "Jonathan Trott: England recall Warwickshire batsman"। BBC Sport। ১৮ মার্চ ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ১৮ মার্চ ২০১৫ 
  4. "England v West Indies: Moeen Ali to join tour squad for last two Tests"। BBC Sport (British Broadcasting Corporation)। ১৫ এপ্রিল ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ১৯ এপ্রিল ২০১৫ 
  5. "Lyth, Wood and Rashid in Test squad"। espncricinfo। সংগ্রহের তারিখ ১০ এপ্রিল ২০১৫ 
  6. "Bishoo recalled for first England Test"ESPNcricinfo। ESPN Sports Media। ১০ এপ্রিল ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ১১ এপ্রিল ২০১৫ 
  7. "Benn dropped for second Test"ESPNcricinfo। ESPN Sports Media। ১৮ এপ্রিল ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ১৯ এপ্রিল ২০১৫ 
  8. "Alastair Cook completes England century in St Kitts warm-up draw"। BBC Sport (British Broadcasting Corporation)। ৯ এপ্রিল ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ৯ এপ্রিল ২০১৫ 
  9. "Match Officials - 1st Test: West Indies v England at North Sound, Apr 13-17, 2015"ইএসপিএনক্রিকইনফো। ২৯ মার্চ ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ১৪ এপ্রিল ২০১৫ 
  10. "England, Alastair Cook and Jonathan Trott face stern West Indies test"। The Guardian। ১২ এপ্রিল ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ১৩ এপ্রিল ২০১৫ 
  11. McGlashan, Andrew (১৫ এপ্রিল ২০১৫)। "England on top despite Blackwood and Taylor"। espncricinfo। সংগ্রহের তারিখ ১৬ এপ্রিল ২০১৫ 
  12. Goulding, Justin (১৫ এপ্রিল ২০১৫)। "West Indies v England: Gary Ballance & Joe Root extend lead"। BBC Sport (British Broadcasting Corporation)। সংগ্রহের তারিখ ১৮ এপ্রিল ২০১৫ 
  13. Goulding, Justin (১৭ এপ্রিল ২০১৫)। "West Indies v England: Hosts draw first Test after Anderson record"। BBC Sport (British Broadcasting Corporation)। সংগ্রহের তারিখ ১৮ এপ্রিল ২০১৫ 
  14. McGlashan, Andrew (১৬ এপ্রিল ২০১৫)। "Ballance hundred sets up victory push"। espncricinfo। সংগ্রহের তারিখ ১৭ এপ্রিল ২০১৫ 
  15. "James Anderson breaks Sir Ian Botham's England wicket record"। BBC Sport (British Broadcasting Corporation)। ১৭ এপ্রিল ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ১৮ এপ্রিল ২০১৫ 
  16. "West Indies v England: Broad and Cook give England upper hand"। BBC Sport (British Broadcasting Corporation)। ২৩ এপ্রিল ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ২৩ এপ্রিল ২০১৫ 
  17. "Anderson inspires England to memorable win"ESPNcricinfo। ESPN Sports Media। ২৫ এপ্রিল ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ২৬ এপ্রিল ২০১৫ 
  18. "2nd Test: England humble West Indies by 9 wickets to take 1-0 lead in 3-match series"। IBN Live। ২৬ এপ্রিল ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ২৬ এপ্রিল ২০১৫ 
  19. "West Indies v England: 18 wickets fall on day two in Barbados"। BBC Sport। ২ মে ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ২ মে ২০১৫ 
  20. "The Wisden Trophy, 2015 / Records / Most runs"ইএসপিএনক্রিকইনফো। সংগ্রহের তারিখ ৪ মে ২০১৫ 
  21. "The Wisden Trophy, 2015 / Records / Most wickets"ইএসপিএনক্রিকইনফো। সংগ্রহের তারিখ ৪ মে ২০১৫ 

বহিঃসংযোগসম্পাদনা