২০০৭-২০০৮ আর্থিক সংকট

২০০৭-২০০৮ আর্থিক সংকট, যা বৈশ্বিক আর্থিক সংকট (জিএফসি) নামেও পরিচিত, ছিল বিশ্বব্যাপী একটি মারাত্মক আর্থিক সঙ্কট। ব্যাঙ্কগুলি কর্তৃক অত্যধিক ঝুঁকি গ্রহণ [১] সাথে ইউনাইটেড স্ট্যাটস হাউসিং বাবল সৃষ্ট মার্কিন রিয়েল এস্টেটের সাথে সিকিউরিটিজ কোম্পানিগুলিতে ধ্বস, বিশ্বব্যাপী আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলির ক্ষতি করে, [২] সঙ্গে চূড়ান্ত পরিণতি পায় ১৫ সেপ্টেম্বর ২০০৮ সালে লেহম্যান ব্রাদার্সের দেউলিয়া হওয়ার মধ্য দিয়ে, যার ফলে একটি আন্তর্জাতিক ব্যাংকিং সংকট তৈরি হয়। [৩] এই সঙ্কট মহা মন্দা ছড়ায়, একটি বৈশ্বিক মন্দা, যা সেই সময়ে ১৯৩০-এর দশকের মহামন্দার পরে সবচেয়ে গুরুতর মন্দা ছিল। [৪] [৫] [৬] [৭] [৮] [৯] এটি ইউরোপীয় ঋণ সংকটের পরেই শুরু হয়েছিল, যা আবার ২০০৯ এর শেষদিকে গ্রিসের ঘাটতি এবং ২০০৮-২০১১ আইসল্যান্ডের আর্থিক সংকট দিয়ে শুরু হয়েছিল।

২০০৯-এর আসল জিডিপি বৃদ্ধির হার দেখাচ্ছে বিশ্ব মানচিত্রে (বাদামী দেশগুলি মন্দা ছিল)

ব্যাঙ্কের সচ্ছলতার প্রতি বিনিয়োগকারীদের আস্থার অভাব, ঋণ প্রাপ্যতা হ্রাসের কারনে ২০০৮ সালের শেষের দিকে এবং ২০০৯ এর শুরুর দিকে স্টক এবং পণ্যের দাম হ্রাস পেয়েছিল। [১০] সংকটটি দ্রুত বিশ্বব্যাপী অর্থনৈতিক ধাক্কায় ছড়িয়ে পড়ে, যার ফলে বেশ কয়েকটি ব্যাংক ব্যর্থতা হয়। [১১] ঋণ কড়াকড়ি এবং আন্তর্জাতিক বাণিজ্য হ্রাস হওয়ায় বিশ্ব অর্থনীতি এই সময় স্থবিব হয়ে পড়ে। [১২] হাউজিং মার্কেট ক্ষতিগ্রস্থ হয় এবং বেকারত্ব বেড়ে যায়, ফলে উচ্ছেদ এবং ফোরক্লোসার হয়। বেশ কয়েকটি ব্যবসা ব্যর্থ হয়ে যায়। [১৩] [১৪] ২০০৭ সালের দ্বিতীয় প্রান্তিকের শীর্ষ মূল্য ৬৪.৪ ট্রিলিয়ন ডলার থেকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে পরিবারিক সম্পদ ২০০৯ সালের প্রথম প্রান্তিকের শেষে ১৪ ট্রিলিয়ন ডলার হ্রাস পেয়ে ৫০.৪ ট্রিলিয়ন ডলারে দাঁড়িয়েছে, যার ফলে খরচ হ্রাস পায়, তারপরে ব্যবসায়িক বিনিয়োগও হ্রাস পায়। [১৫] [১৬] [১৭]

অর্থনৈতিক সঙ্কট মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে শুরু হয়েছিল কিন্তু ছড়িয়ে পড়েছিল বিশ্বের অন্যান্য অঞ্চলে। [১৩]

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. Williams, Mark (এপ্রিল ১২, ২০১০)। Uncontrolled RiskMcGraw-Hill Education। পৃষ্ঠা 213। আইএসবিএন 978-0-07-163829-6 
  2. "The Giant Pool of Money"This American Life। মে ৯, ২০০৮। 
  3. Williams, Mark (এপ্রিল ১২, ২০১০)। Uncontrolled RiskMcGraw-Hill Educationআইএসবিএন 978-0-07-163829-6 
  4. Gopinath, Gita (এপ্রিল ১৪, ২০২০)। "The Great Lockdown: Worst Economic Downturn Since the Great Depression"International Monetary Fund 
  5. "Three Top Economists Agree 2009 Worst Financial Crisis Since Great Depression; Risks Increase if Right Steps are Not Taken" (সংবাদ বিজ্ঞপ্তি)। Business Wire। ফেব্রুয়ারি ১৩, ২০০৯। 
  6. Eigner, Peter; Umlauft, Thomas S. (জুলাই ১, ২০১৫)। "The Great Depression(s) of 1929–1933 and 2007–2009? Parallels, Differences and Policy Lessons"। Hungarian Academy of Science। এসএসআরএন 2612243  
  7. Eichengreen; O'Rourke (মার্চ ৮, ২০১০)। "A tale of two depressions: What do the new data tell us?"VoxEU.org 
  8. Temin, Peter (২০১০)। "The Great Recession & the Great Depression" (PDF): 115–124। ডিওআই:10.1162/DAED_a_00048 
  9. Singhania, Monica; Anchalia, Jugal (অক্টোবর ২৮, ২০১৩)। "Volatility in Asian stock markets and global financial crisis": 333–351। আইএসএসএন 0972-7981ডিওআই:10.1108/JAMR-01-2013-0010 
  10. Evans-Pritchard, Ambrose (জুলাই ২৫, ২০০৭)। "Dollar tumbles as huge credit crunch looms"The Daily Telegraph 
  11. Norris, Floyd (অক্টোবর ২৪, ২০০৮)। "United Panic"The New York Times 
  12. "World Economic Outlook: Crisis and Recovery, April 2009" (PDF)। এপ্রিল ২০০৯। 
  13. Baily, Martin Neil; Elliott, Douglas J. (জুন ১৫, ২০০৯)। "The U.S. Financial and Economic Crisis: Where Does It Stand and Where Do We Go From Here?"Brookings Institution 
  14. Williams, Carol J. (মে ২২, ২০১২)। "Euro crisis imperils recovering global economy, OECD warns"Los Angeles Times 
  15. Luhby, Tami (জুন ১১, ২০০৯)। "Americans' wealth drops $1.3 trillion"CNN 
  16. Luhby, Tami (জুন ১১, ২০০৯)। "Americans' wealth drops $1.3 trillion: Fed report shows a decline of home values and the stock market cut the nation's wealth to $50.4 trillion"CNN 
  17. Altman, Roger C. (জানুয়ারি ২০০৯)। "The Great Crash of 2008"Foreign Affairs 

আরও পড়াসম্পাদনা

বহিঃসংযোগসম্পাদনা

কারণ সম্পর্কে রিপোর্ট

সাংবাদিকতা এবং সাক্ষাত্কার