১৯৭৭ অন্ধ্রপ্রদেশ ঘূর্ণিঝড়

১৯৭৭ সালের অন্ধ্র প্রদেশ ঘূর্ণিঝড় একটি বিধ্বংসী গ্রীষ্মমণ্ডলীয় ঘূর্ণিঝড় যা ১৯৭৭ সালের নভেম্বরে অন্ধ্র প্রদেশে আঘাত হানে এবং কমপক্ষে ১০,০০০ জন মানুষকে হত্যা করে। [১]

১৯৭৭ অন্ধ্রপ্রদেশ ঝড়
সুপার ঘূর্ণিঝড় (আইএমডি স্কেল)
শ্রেণী ৩ (স্যাফির-সিম্পসন স্কেল)
গঠন১৪ নভেম্বর ১৯৭৭ (1977-11-14)
বিলুপ্তি২১ নভেম্বর ১৯৭৭ (1977-11-21)
(২০ নভেম্বর ১৯৭৭ (1977-11-20) পরে অবশিষ্টাংশ কম)
সর্বোচ্চ গতি৩-মিনিট স্থিতি: ২৩০ কিমি/ঘণ্টা (১৪৫ mph)
১-মিনিট স্থিতি: ২০৫ কিমি/ঘণ্টা (১২৫ mph)
সর্বনিম্ন চাপ৯৪৩ hPa (mbar); ২৭.৮৫ inHg
হতাহত১০,০০০ (দাপ্তরিক)
(প্রায় ৫০,০০০)
ক্ষয়ক্ষতি$১৯৬.২৬ মিলিয়ন (১৯৭৭ $)
প্রভাবিত অঞ্চলঅন্ধ্রপ্রদেশ
১৯৭৭ উত্তর ভারত মহাসাগর ঘূর্ণিঝড় মৌসুম

আবহাওয়া ইতিহাস সম্পাদনা

 
সাফির-সিম্পসন স্কেল অনুযায়ী, মানচিত্রে ঝড়টির পথ ও তীব্রতা দেখানো হয়েছে।
মানচিত্রের ব্যাখ্যা
     গ্রীষ্মমন্ডলীয় নিম্নচাপ (≤৩৮ মা/ঘ, ≤৬২ কিমি/ঘ)
     গ্রীষ্মমন্ডলীয় ঝড় (৩৯–৭৩ মা/ঘ, ৬৩–১১৮ কিমি/ঘ)
     শ্রেণি ১ (৭৪–৯৫ মা/ঘ, ১১৯–১৫৩ কিমি/ঘ)
     শ্রেণি ২ (৯৬–১১০ মা/ঘ, ১৫৪–১৭৭ কিমি/ঘ)
     শ্রেণি ৩ (১১১–১২৯ মা/ঘ, ১৭৮–২০৮ কিমি/ঘ)
     শ্রেণি ৪ (১৩০–১৫৬ মা/ঘ, ২০৯–২৫১ কিমি/ঘ)
     শ্রেণি ৫ (≥১৫৭ মা/ঘ, ≥২৫২ কিমি/ঘ)
     অজানা
ঝড়ের ধরন
  অক্রান্তীয় ঘূর্ণিঝড়, ছোট নিম্নচাপ, গ্রীষ্মমন্ডলীয় গোলযোগ বা মৌসুমী নিম্নচাপ

১৯৭৭ অন্ধ্রপ্রদেশ ঘূর্ণিঝড়ের উত্‍পত্তিটি দুর্বল গ্রীষ্মমণ্ডলীয় নিম্নচাপের সন্ধান পাওয়া যায় ১৪ নভেম্বর সকালে স্যাটেলাইট চিত্রে যা নিকোবর দ্বীপপুঞ্জের প্রায় ৫২০কিমি (৩২০ মাই্ল) দক্ষিণ-পশ্চিমে অবস্থান। [২] ভারত আবহাওয়া অধিদফতরের (আইএমডি) প্রতিবেদনে জানা যায় যে সকালে এই নিম্নচাপ গভীর নিম্নচাপের দিকে আরও তীব্র হয়ে ওছে, [৪] [৫] এবং জয়েন্ট টাইফুন সতর্কতা কেন্দ্র (জেটিডাব্লুসি) একটি ক্রান্তীয় ঘূর্ণিঝড় গঠনের সতর্কতা জারি করে। [৭]

 
১৮  নভেম্বর ঘূর্ণিঝড়ের উপগ্রহ চিত্র

প্রভাব সম্পাদনা

সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত অঞ্চলগুলি ছিল কৃষ্ণা নদীর বদ্বীপ অঞ্চলে। ডিভিসিমা দ্বীপ ছয়-মিটার উঁচু ( ২০ ফু ) আঘাত পেয়েছিল ) ঝড়ের প্লাবনের আঘাতের সম্মুখীন হয়। হাজার হাজার মানুষের প্রাণহানি হয়। কয়েকশ লাশ পানিতে ভাসছিল এবং কোন প্রকার সনাক্তকরণ ছাড়ান গনশেষকৃত্য সম্পন্ন করা হয়। ভূমিধ্বস ওয়াল্টার-কিরান্ডাল রেলপথ লাইন ভেঙে ফেলে। বাপতলা শহরের একটি গির্জার আশ্রয় নিতে বাড়ি ছেড়ে আসা প্রায় ১০০ মানুষ ভবনটি ধসে মারা গিয়েছিলেন। জলোচ্ছ্বাসে ধান এবং ফসলের ক্ষেতগুলি ডুবে যায়। ঝড়ের কবলে কয়েকটি বিদেশী জাহাজসহ ১৩ টি নৌযান নিখোঁজ হয়।

ঘূর্ণিঝড় এবং পরবর্তী বন্যায় প্রায় ১০০ টি গ্রাম ধুয়ে যায় বা ক্ষতিগ্রস্ত হয় এবং মোট ১০,৮৪১ জন নিহত ও নিখোঁজ হয় এবং ৩৪ লক্ষ মানুষ গৃহহীন হয় । জনতা পার্টির মতে, ঝড়ের ফলে কমপক্ষে ৫০,০০০ মানুষ মারা যায় বলে বিশ্বাস করা হয়, যা সরকারের রিপোর্টের চেয়ে যথেষ্ট বেশি। [৮]

ফলাফল সম্পাদনা

জানমালের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি অন্ধ্র প্রদেশ উপকূলে প্রাথমিক সতর্কতা আবহাওয়া কেন্দ্র স্থাপনের জন্য উদ্বুদ্ধ করে। ঘূর্ণিঝড় আশ্রয় কেন্দ্র এবং দুর্যোগ ব্যবস্থাপনার অন্যান্য ব্যবস্থাও নেওয়া হয়েছিল। ঝড়ের কবলে পড়ে মারা যাওয়া মানুষের স্মৃতিতে একটি স্মৃতিসৌধ অবনীগড়দা শহরের নিকটে নির্মাণ করা হয়।

পরের ঘূর্ণিঝড় ( ১৯৯০) যা অন্ধ্র প্রদেশে ঘটেছিল তা দেখিয়েছিল যে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনায় বড় ধরনের উন্নতি হয়েছে, সময়ের আগে কার্যকর সতর্কতা ছিল এবং উন্নত আবহাওয়া সংক্রান্ত সরঞ্জাম ১৯৭৭ সালের ঘূর্ণিঝড়ের তুলনায় মৃত্যুর হারকে নাটকীয়ভাবে হ্রাস করেছিল। [৯]

এই দুর্যোগের প্রেক্ষাপটে ভারতে কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে ক্ষয়ক্ষতি ও প্রাণহানির মাত্রা লুকানোর অভিযোগ আনা হয়েছিল। জনতা পার্টির সদস্যরা, যে সময়ে রাজ্য সরকারের বিরোধী রাজনৈতিক দল ছিল, দাবি করেছিল যে এই কভার আপটি ছিল অপরাধমূলক অবহেলা গোপন করার জন্য যার ফলে কয়েক হাজার মানুষ হতাহত হয়েছিল। [৮] এই অভিযোগের পরে পাঁচ জন উচ্চপদস্থ সরকারী কর্মকর্তা পদ থেকে পদত্যাগ করেন। [১০]

আরো দেখুন সম্পাদনা

  • টাইফুন গে (১৯৮৯)
  • ১৯৯৬ অন্ধ্র প্রদেশ ঘূর্ণিঝড়

মন্তব্য সম্পাদনা

তথ্যসূত্র সম্পাদনা

  1. The storm in Orissa. Economist, 00130613, 11/6/1999, Vol. 353, Issue 8144
  2. All dates are based on Coordinated Universal Time unless otherwise noted.
  3. "RSMCs and TCWCs"। World Meteorological Organization। ২০১১। সংগ্রহের তারিখ ২ মার্চ ২০১৯ 
  4. The India Meteorological Department is the official Regional Specialized Meteorological Center for the northern Indian Ocean.[৩]
  5. Johns, B.; Dube, S. K. (অক্টোবর ১৯৮১)। "Numerical simulation of the surge generated by the 1977 Andhra cyclone": 919–934। ডিওআই:10.1002/qj.49710745411 
  6. "Joint Typhoon Warning Center Mission Statement"Joint Typhoon Warning Center। United States Navy। ২০১১। ২৬ জুলাই ২০০৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২ মার্চ ২০১৯ 
  7. The Joint Typhoon Warning Center is a joint United States Navy – United States Air Force task force that issues tropical cyclone warnings for the western Pacific Ocean and other regions.[৬]
  8. The Associated Press (নভেম্বর ২৮, ১৯৭৭)। "Coverup alleged in India's cyclone disaster"Bangor Daily News। সংগ্রহের তারিখ নভেম্বর ১৪, ২০১০ 
  9. Staff Writer (ডিসেম্বর ২, ১৯৭৭)। "5 in India Resign Over Cyclone Aid"। Los Angeles Times