হাবাশ আল-হাসিব আল-মারওয়াজি

আহমদ ইবনে আবদুল্লাহ হাবাশ হাসিব মারওয়াজি (৭৬৬ - মৃত্যু ৮৬৯ সালের পর সামাররা, ইরাকে [১]) ছিলেন একজন উত্তর-পূর্ব ইরানী[২][৩][৪] জ্যোতির্বিজ্ঞানী,[৫] ভূগোলবিদ, এবং খোরাসানের মারভের গণিতবিদ। যিনি প্রথমবারের মতো ত্রিকোণমিতিক অনুপাত বর্ণনা করেছেন সাইন, কোসাইন, স্পর্শক এবং কোট্যানজেন্ট এর মাধ্যমে।

তিনি বাগদাদে পরিচিতি লাভ করেন এবং ৮৬৯ সালের পর শতবর্ষী হয়ে মারা যান। তিনি আব্বাসীয় খলিফা আল-মামুন এবং আল-মুতাসিমের অধীনে কাজ করেছিলেন।

অবদানসম্পাদনা

তিনি ১০০ থেকে ২০৩৫ সাল পর্যন্ত পর্যবেক্ষণ করেছেন এবং তিনটি জ্যোতির্বিদ্যা সারণী সংকলন করেছেন: প্রথমটি এখনও হিন্দু পদ্ধতিতে ছিল এবং দ্বিতীয়টি যাকে 'পরীক্ষিত টেবিল' বলা হয়, সেটা সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ছিল। এই কাজটি সম্ভবত "মামুনিক" বা "আরবি" টেবিলের সাথে অভিন্ন এবং এটি আল-মামুনের জ্যোতির্বিজ্ঞানীদের সম্মিলিত কাজ হতে পারে; তৃতীয়টি, যাকে বলা হয় শাহদের টেবিল, এই কাজটি ছোট ছিল।

৮২৯ সালের সূর্যগ্রহণের অনুমানে, হাবাশ আমাদেরকে একটি উচ্চতা দ্বারা সময় নির্ধারণের প্রথম উদাহরণ দেয়। এটি একটি পদ্ধতি যা সাধারণত মুসলিম জ্যোতির্বিজ্ঞানীদের দ্বারা গৃহীত হয়েছিল।

৮৩০ সালে, তিনি ত্রিকোণমিতিতে আমাদের স্পর্শকের সমতুল্য "ছায়া", উমব্রা (বিপরীত) ধারণাটি প্রবর্তন করেছিলেন বলে মনে হয় এবং তিনি এই ধরনের ছায়াগুলির একটি সারণী সংকলন করেছিলেন, এবং মনে হয় এটি প্রথম দিকের একটি কাজ। তিনি কোট্যানজেন্ট প্রবর্তন করেন এবং এর জন্য প্রথম টেবিল তৈরি করেন।[৬]

দ্য বুক অফ বডিস অ্যান্ড ডিসটেন্সেসসম্পাদনা

আল-হাসিব বাগদাদের আল-শাম্মিসিয়াহ মানমন্দিরে বিভিন্ন পর্যবেক্ষণ পরিচালনা করেন এবং বেশ কিছু ভৌগোলিক ও জ্যোতির্বিদ্যাগত মান অনুমান করেন। তিনি দ্য বুক অফ বডিস অ্যান্ড ডিসটেন্সেস -এ তার ফলাফল সংকলন করেন, যার মধ্যে তার কিছু ফলাফল নিম্নলিখিত অন্তর্ভুক্ত ছিল:

পৃথিবী
চাঁদ
  • চাঁদের ব্যাস: ১৮৮৬.৮ মাইল (৩০৩৬.৫ কিমি)
  • চাঁদের পরিধি: ৫৯২৭.০২৫ মাইল (৯৫৩৮.৬২২) কিমি)
  • চাঁদের নিকটতম দূরত্বের ব্যাসার্ধ: ২১৫,২০৮; ৯,৯ ( সেক্সেজসিমাল) মাইল
  • চাঁদের নিকটতম দূরত্বের অর্ধ-পরিধি: ৬৭৬,৩৬৮; ২৮,৪৫,২৫,৪৩ (সেক্সেজসিমাল) মাইল
  • চাঁদের দূরতম দূরত্বের ব্যাসার্ধ: ২০৫,৮০০; ৮,৪৫ (সেক্সেজসিমাল) মাইল
  • চাঁদের দূরতম দূরত্বের ব্যাস: ৪১১,৬০০.২১৬ মাইল (৬৬২,৪০৬.৩৩৮) কিমি)
  • চাঁদের দূরতম দূরত্বের পরিধি: ১,২৯৩,৬০০.৯১৬ মাইল (২,০৮১,৮৪৮.৮৭৩ কিমি)
সূর্য
  • সূর্যের ব্যাস: ৩৫,২৮০; ১,৩০ মাইল (৫৬,৭৭৭.৬৯৬৬) কিমি)
  • সূর্যের পরিধি: ১১০,৮৮০; ৪,৪৩ মাইল (১৭৮,৪৪৪.১৮৯ কিমি)
  • সূর্যের কক্ষপথের ব্যাস: ৭,৭৬১,৬০৫.৫ মাইল (১২,৪৯১,০৯৩.২) কিমি)
  • সূর্যের কক্ষপথের পরিধি: ২৪,২৯২,৫৭১.৩৮ মাইল (৩৯,২৫৬,০৩৮) কিমি)
  • সূর্যের কক্ষপথ বরাবর এক ডিগ্রি: ৬৭,৭০০.০৫ মাইল (১০৮,৯৫২.৬৭) কিমি)
  • সূর্যের কক্ষপথ বরাবর এক মিনিট: ১১২৯.২৮৩ মাইল (১৮১৭.৪০৫) কিমি)

আরো দেখুনসম্পাদনা

মন্তব্যসম্পাদনা

  1. Charette 2007
  2. General Cartography ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ২০১৭-১২-০৯ তারিখে : "The Iranian geographers Abū Muhammad al-Hasan al-Hamdānī and Habash al-Hasib al-Marwazi set the Prime Meridian of their maps at Ujjain, a center of Indian astronomy"
  3. [১] : "Additionally in the ninth century, the Persian mathematician and geographer, Habash al-Hasib al-Marwazi, utilized the utilization circular trigonometry and guide projection strategies keeping in mind the end goal to change over polar directions to an alternate arrange framework fixated on a particular point on the circle, in this the Qibla, the course to Mecca. Abū Rayhān Bīrūnī (973– 1048) later created thoughts which are viewed as a reckoning of the polar organize framework."
  4. "Archived copy" (PDF)। ২০১৩-১০-০৭ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৩-০৯-০৪ 
  5. Islamic Desk Reference, ed. E. J. Van Donzel, (Brill, 1994), 121.
  6. Encyclopædia Britannica 

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  • The Biographical Encyclopedia of Astronomers  (PDF version)

বহিঃসংযোগসম্পাদনা