স্টিফেন কুক (ক্রিকেটার)

দক্ষিণ আফ্রিকার ক্রিকেটার

স্টিফেন ক্রেগ কুক (ইংরেজি: Stephen Cook; জন্ম: ২৯ নভেম্বর, ১৯৮২) ট্রান্সভাল প্রদেশের জোহানেসবার্গে জন্মগ্রহণকারী প্রথিতযশা দক্ষিণ আফ্রিকান টেস্ট ক্রিকেটার। ‘প্রোটিয়াস’ নামে খ্যাত দক্ষিণ আফ্রিকা ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য তিনি। সাবেক টেস্টে ক্রিকেটার জিমি কুক তার পিতা। মূলতঃ ধ্রুপদী ডানহাতি উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান তিনি ও মাঝে-মধ্যে ডানহাতি মিডিয়াম বোলিং করে থাকেন স্টিফেন কুক

স্টিফেন কুক
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামস্টিফেন ক্রেগ কুক
জন্ম (1982-11-29) ২৯ নভেম্বর ১৯৮২ (বয়স ৩৭)
জোহানেসবার্গ, ট্রান্সভাল প্রদেশ, দক্ষিণ আফ্রিকা
ব্যাটিংয়ের ধরনডানহাতি
বোলিংয়ের ধরনডানহাতি মিডিয়াম
ভূমিকাউদ্বোধনী ব্যাটসম্যান
সম্পর্কএসজে কুক (বাবা)
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
টেস্ট অভিষেক
(ক্যাপ ৩২৬)
২২ জানুয়ারি ২০১৬ বনাম ইংল্যান্ড
শেষ টেস্ট২৪ নভেম্বর ২০১৬ বনাম অস্ট্রেলিয়া
ঘরোয়া দলের তথ্য
বছরদল
২০০১-২০১৫গটেং
২০০৪-বর্তমানলায়ন্স (দল নং ৬)
২০১৫-বর্তমাননর্থ ওয়েস্ট
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট এফসি এলএ টি২০
ম্যাচ সংখ্যা ১৮২ ১৪৮ ২০
রানের সংখ্যা ৩৯৯ ১২,৬০৫ ৫,০৮৭ ৪৭৭
ব্যাটিং গড় ৩৯.৯০ ৪১.৩৪ ৩৮.৮৩ ২৩.৮৫
১০০/৫০ ২/১ ৩৯/৫০ ৯/৩৭ ০/২
সর্বোচ্চ রান ১১৫ ৩৯০ ১২৭* ৬৬
বল করেছে ১২ ৭৭৪ ২২৫
উইকেট ১০
বোলিং গড় ৪৪.৪০ ৪৫.২০
ইনিংসে ৫ উইকেট
ম্যাচে ১০ উইকেট - -
সেরা বোলিং ৩/৪২ ১/২
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ২/– ১১৭/– ২৫/– ৩/–
উৎস: ক্রিকেটআর্কাইভ, ২৭ নভেম্বর ২০১৬

প্রারম্ভিক জীবনসম্পাদনা

ব্যতিক্রমধর্মী উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান হিসেবে প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে ২০,০০০-এরও বেশি রানের অধিকারী সাবেক টেস্ট ক্রিকেটার জিমি কুক তার বাবা।[১]

২০০১ সালে গটেংয়ের পক্ষে অভিষেক ঘটে তার। এরপর লায়ন্সের পক্ষে খেলেন। ২০১০ সালে এক ইনিংসে ৩৯০ রান তোলেন। এরফলে দক্ষিণ আফ্রিকাসহ আন্তর্জাতিক অঙ্গনে প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে অনেকগুলো রেকর্ড ভঙ্গ করেন। ফলশ্রুতিতে দক্ষিণ আফ্রিকা এ দলে অন্তর্ভুক্ত হন।[২][৩]

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটসম্পাদনা

১৮ জানুয়ারি, ২০১৬ তারিখে দক্ষিণ আফ্রিকা টেস্ট দলে যুক্ত হন। অভিষেক টেস্টে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে সেঞ্চুরি করেন। এরফলে ষষ্ঠ দক্ষিণ আফ্রিকান ও শততম টেস্ট ক্রিকেটার হিসেবে এ কীর্তিগাথায় অংশীদার হন তিনি। চতুর্থ টেস্টের প্রথমদিনেই তার এ সেঞ্চুরি আসে।[৪][৫]

কীর্তিগাথাসম্পাদনা

দক্ষিণ আফ্রিকার প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে সর্বাধিক রান সংগ্রহের রেকর্ড ধারন করে আছেন। ২৫ অক্টোবর, ২০০৯ তারিখে ওয়ারিয়র্সের বিপক্ষে ৬৪৮ বল মোকাবেলা করে ৩৯০ রান করেন। এ সংগ্রহটি দলেরও প্রথম ত্রি-শতক রান ছিল।[৬][৭] এরপূর্বে তার বাবার করা ৩১৩ ও ড্যারিল কালিনানের পূর্বেকার রেকর্ড ৩৩৭ রানের দর্শক ছিলেন। এ প্রসঙ্গে পরবর্তীতে মন্তব্য করেন যে, বাগানে যখন আমার ভাই ও আমি ক্রিকেট খেলতাম তখন আমরা কেউই বাবার করা ৩১৩ রানের রেকর্ডের টিকিটিও ছুঁতে পারতাম না।[৮] কুকের করা এ সংগ্রহটি দ্বাদশ সর্বোচ্চ ও প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটের ইতিহাসে চতুর্থ দীর্ঘতম সংগ্রহ। এতে তিনি চৌদ্দ ঘণ্টারও অধিক সময় ব্যয় করেন। থামি সোলকাইলের সাথে রেকর্ড ভাঙ্গা ৩৬৫ রানের জুটি গড়েন তিনি যা দক্ষিণ আফ্রিকার প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটেও একটি রেকর্ড।[২]

টেস্ট শতকসমূহসম্পাদনা

ক্রমিক রান প্রতিপক্ষ অবস্থান মাঠ স্ব/বি/প্র তারিখ ফলাফল সূত্র
১১৫   ইংল্যান্ড সুপারস্পোর্ট পার্ক, সেঞ্চুরিয়ন স্বদেশ ২২ জানুয়ারি ২০১৬ জয় [৯]
১০৪   অস্ট্রেলিয়া অ্যাডিলেড ওভাল, অ্যাডিলেড বিদেশ ২৭ নভেম্বর ২০১৬ পরাজয় [১০]

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "Stephen Cook"Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-০১-২২ 
  2. "Cook smashes South African batting record"CricInfo। ESPN। ২৫ অক্টোবর ২০০৯। সংগ্রহের তারিখ ১১ জুলাই ২০১১ 
  3. "Parnell included in South Africa A squad"CricInfo। ESPN। ১০ জুন ২০১০। সংগ্রহের তারিখ ১১ জুলাই ২০১১ 
  4. "Stephen Cook eager to take Test chance"ESPNcricinfo। ESPN Sports Media। ১৮ জানুয়ারি ২০১৬। সংগ্রহের তারিখ ১৮ জানুয়ারি ২০১৬ 
  5. "England tour of South Africa, 4th Test: South Africa v England at Centurion, Jan 22-26, 2016"ESPNcricinfo। ESPN Sports Media। ২২ জানুয়ারি ২০১৬। সংগ্রহের তারিখ ২২ জানুয়ারি ২০১৬ 
  6. "SuperSport Series, Warriors v Lions at East London, Oct 22-25, 2009"। CricInfo। সংগ্রহের তারিখ ২০০৯-১০-২৫ 
  7. "Records / Lions / First-class matches / High scores"। CricInfo। সংগ্রহের তারিখ ২০০৯-১০-২৫ 
  8. "Cook basks in 'almost perfect' innings"CricInfo। ESPN। ২৭ অক্টোবর ২০০৯। সংগ্রহের তারিখ ১১ জুলাই ২০১১ 
  9. "4th Test: South Africa v England at Centurion, Jan 22-26, 2016 - Cricket Scorecard - ESPN Cricinfo" 
  10. "3rd Test: Australia v South Africa at Adelaide, Nov 24-27, 2016 - Cricket Scorecard - ESPN Cricinfo" 

আরও দেখুনসম্পাদনা

বহিঃসংযোগসম্পাদনা