সোনাইমুড়ি উপজেলা

নোয়াখালী জেলার একটি উপজেলা

সোনাইমুড়ি উপজেলা বাংলাদেশের নোয়াখালী জেলার অন্তর্গত একটি উপজেলা, এটি ২০০৫ সালে গঠিত হয়েছে। বেগমগঞ্জ উপজেলা ভেঙ্গে সোনাইমুড়ি উপজেলা গঠিত হয়েছে।

সোনাইমুড়ি
উপজেলা
সোনাইমুড়ি বাংলাদেশ-এ অবস্থিত
সোনাইমুড়ি
সোনাইমুড়ি
বাংলাদেশে সোনাইমুড়ি উপজেলার অবস্থান
স্থানাঙ্ক: ২৩°২′১৮″ উত্তর ৯১°৬′৩০″ পূর্ব / ২৩.০৩৮৩৩° উত্তর ৯১.১০৮৩৩° পূর্ব / 23.03833; 91.10833স্থানাঙ্ক: ২৩°২′১৮″ উত্তর ৯১°৬′৩০″ পূর্ব / ২৩.০৩৮৩৩° উত্তর ৯১.১০৮৩৩° পূর্ব / 23.03833; 91.10833 উইকিউপাত্তে এটি সম্পাদনা করুন
দেশ বাংলাদেশ
বিভাগচট্টগ্রাম বিভাগ
জেলানোয়াখালী জেলা
আয়তন
 • মোট১৭০.৪২ বর্গকিমি (৬৫.৮০ বর্গমাইল)
জনসংখ্যা (২০১১)[১]
 • মোট২,৯০,৮৪৬
 • জনঘনত্ব১,৭০০/বর্গকিমি (৪,৪০০/বর্গমাইল)
সাক্ষরতার হার
 • মোট৫৫.৭৭%
সময় অঞ্চলবিএসটি (ইউটিসি+৬)
পোস্ট কোড৩৮২৭ উইকিউপাত্তে এটি সম্পাদনা করুন
প্রশাসনিক
বিভাগের কোড
২০ ৭৫ ৮৩
ওয়েবসাইটপ্রাতিষ্ঠানিক ওয়েবসাইট উইকিউপাত্তে এটি সম্পাদনা করুন

অবস্থানসম্পাদনা

আয়তন: ১৭০.৪২ বর্গ কিমি। অবস্থান: ২৩°০২´ থেকে ২৩°০৬´ উত্তর অক্ষাংশ এবং ৯১°০০´ থেকে ৯১°১৩´ পূর্ব দ্রাঘিমাংশ।[২] এ উপজেলার পশ্চিমে চাটখিল উপজেলা, দক্ষিণে বেগমগঞ্জ উপজেলা, পূর্বে সেনবাগ উপজেলা এবং উত্তরে কুমিল্লা জেলার মনোহরগঞ্জ উপজেলা অবস্থিত।

প্রশাসনিক এলাকাসম্পাদনা

সোনাইমুড়ি উপজেলায় বর্তমানে ১টি পৌরসভা ও ১০টি ইউনিয়ন রয়েছে। সম্পূর্ণ উপজেলার প্রশাসনিক কার্যক্রম সোনাইমুড়ি থানার আওতাধীন।

পৌরসভা:
ইউনিয়নসমূহ:

ইতিহাসসম্পাদনা

প্রাচীন নিদর্শনাদি ও প্রত্নসম্পদসম্পাদনা

বজরা শাহী জামে মসজিদ (১১৫৩ হিজরী),

মুক্তিযুদ্ধের ঘটনাবলিসম্পাদনা

১৯৭১ সালে এ উপজেলা ২ নং সেক্টরের অধীন ছিল। ২১ এপ্রিল সোনাইমুড়ি রেলস্টেশনের আউটার সিগনালের কাছে এবং ১১ মে সোনাইমুড়ির বগাদিয়া নামক স্থানে পাকবাহিনীর সঙ্গে মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মুখ লড়াইয়ে প্রায় ২০ জন পাকসেনা নিহত হয়। এছাড়াও এ লড়াইয়ে ২ জন মুক্তিযোদ্ধা শহীদ হন। ৭ ডিসেম্বর এ উপজেলা শত্রুমুক্ত হয়।

ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানসম্পাদনা

মসজিদ ১৬৫, উল্লেখযোগ্য ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান: বজরা শাহী জামে মসজিদ, সোনাইমুড়ি কেন্দ্রীয় জামে মসজিদ, নদনা জামে মসজিদ, উত্তর শাক্তলা জামে মসজিদ

জনসংখ্যার উপাত্তসম্পাদনা

মোট জনসংখ্যা ২৯০৮৪৬; পুরুষ ১৪১০২৯, মহিলা ১৪৯৮১৭। মুসলিম ২৮১৩৬৫, হিন্দু ৯৩০৯, বৌদ্ধ ১৩, খ্রিস্টান ১১৪ এবং অন্যান্য ৪৫।

শিক্ষাসম্পাদনা

শিক্ষার হার, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গড় হার ৫৫.৭৭%; পুরুষ ৫৬.২৪% ও মহিলা ৫৫.৩২%। কলেজ ৪, মাধ্যমিক বিদ্যালয় ৩৩, প্রাথমিক বিদ্যালয় ১১৪, কমিউনিটি প্রাথমিক বিদ্যালয় ৬, মাদ্রাসা ১৯। উল্লেখযোগ্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠান: সোনাইমুড়ি ডিগ্রী কলেজ (১৯৭০), সোনাইমুড়ি সরকারি মডেল উচ্চ বিদ্যালয় (১৯১৭), বজরা বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয় (১৯১৮), সোনাইমুড়ি হামিদিয়া আলিয়া মাদ্রাসা (১৯২৬)। বড় গাও ইসলামিয়া মাদ্রাসা ১৯৭৩ ।মারকাজ আমির হামজা রাঃ ২০০৫ ।লাইফ শাইন স্কুল ২০০৮।[৩]

কৃতী ব্যক্তিত্বসম্পাদনা

  • বীরশ্রেষ্ঠ মোহাম্মদ রুহুল আমিন
  • আহমদ নজীর, সাবেক সংসদ সদস্য, বিশিষ্ট সাংবাদিক, লেখক ও গবেষক
  • কামরুল আহসান, বাংলাদেশ সরকারের সচিব এবং বর্তমানে রাশিয়ায় বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত হিসাবে দায়িত্বরত।।ইতিপূর্বে সিংগাপুর ও কানাডায় বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত ছিলেন
  • আলী আহমদ, নোয়াখালী জেলা ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ও চৌমুহনী কলেজ ছাত্র সংসদের সাধারণ সম্পাদক
  • মোহম্মদ সিরাজুদ্দীন সিএসপি, সরকারের সাবেক সচিব ও প্রখ্যাত ঐতিহাসিক
  • এম এ হাসেম, সাবেক এমপি, বিশিষ্ট শিল্পপতি (পারটেক্স গ্রুপ)।

বিবিধসম্পাদনা

অর্থনীতিসম্পাদনা

জনগোষ্ঠীর আয়ের প্রধান উৎস কৃষি ২৭.৩২%, অকৃষি শ্রমিক ২.০৬%, শিল্প ০.৬৩%, ব্যবসা ১৬.৪৬%, পরিবহন ও যোগাযোগ ৩.৬০%, চাকরি ১৮.১৫%, নির্মাণ ১.২৯%, ধর্মীয় সেবা ০.৩৮%, রেন্ট অ্যান্ড রেমিটেন্স ১৪.৩৮% এবং অন্যান্য ১৫.৭৩%। হাটবাজার ও মেলা হাটবাজার ৩০, মেলা ২। সোনাইমুড়ি হাট, থানার হাট, কামারের হাট, নদনা হাট, কাশিপুর হাট, শান্তির হাট, লালমিয়ার হাট, জয়াগ বাজার, বজরা স্টেশন বাজার, মুসলিমগঞ্জ বাজার, সোনাপুর বাজার, বাংলা বাজার ও আমিশাপাড়া বাজার উল্লেখযোগ্য।

শিল্প ও কলকারখানা চালকল, বরফকল, করাতকল, বিস্কুট কারখানা, ওয়েল্ডিং কারখানা।

কুটিরশিল্প স্বর্ণশিল্প, লৌহশিল্প, মৃৎশিল্প, সুচিশিল্প, দারুশিল্প, বাঁশের কাজ, বেতের কাজ।

কৃষিসম্পাদনা

কৃষিভূমির মালিকানা ভূমিমালিক ৬০.৩৮%, ভূমিহীন ৩৯.৬৯%। প্রধান কৃষি ফসল ধান, সুপারি, সরিষা, ডাল, শাকসবজি। বিলুপ্ত বা বিলুপ্তপ্রায় ফসলাদি তিল, তিসি, অড়হর, চীনা। প্রধান ফল-ফলাদিব আম, কাঁঠাল, নারিকেল, কলা, জাম, পেয়ারা, পেঁপে, সুপারি।

যোগাযোগসম্পাদনা

যোগাযোগ বিশেষত্ব পাকারাস্তা ৯৬.৫৪ কিমি, কাঁচারাস্তা ৭৩২.৩৯ কিমি। বিলুপ্ত বা বিলুপ্তপ্রায় সনাতন বাহন পাল্কি, ঘোড়ার গাড়ি, মহিষের গাড়ি।

জনপ্রতিনিধিসম্পাদনা

সংসদীয় আসন জাতীয় নির্বাচনী এলাকা[৪] সংসদ সদস্য[৫][৬][৭][৮][৯] রাজনৈতিক দল
২৬৮ নোয়াখালী-১ চাটখিল উপজেলা এবং সোনাইমুড়ি উপজেলা (বারগাঁও, অম্বরনগরনাটেশ্বর ইউনিয়ন ব্যতীত) এইচ এম ইব্রাহিম বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ
২৬৯ নোয়াখালী-২ সোনাইমুড়ি উপজেলার বারগাঁও, অম্বরনগরনাটেশ্বর ইউনিয়ন এবং সেনবাগ উপজেলা মোরশেদ আলম বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. বাংলাদেশ জাতীয় তথ্য বাতায়ন (জুন ২০১৪)। "এক নজরে সোনাইমুড়ী উপজেলা"। গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার। সংগ্রহের তারিখ ৫ জুলাই, ২০১৫  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |সংগ্রহের-তারিখ= (সাহায্য)[স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]
  2. বাংলাপিডিয়া
  3. http://bn.banglapedia.org/index.php?title=সোনাইমুড়ি_উপজেলা
  4. "Election Commission Bangladesh - Home page"www.ecs.org.bd 
  5. "বাংলাদেশ গেজেট, অতিরিক্ত, জানুয়ারি ১, ২০১৯" (PDF)ecs.gov.bdবাংলাদেশ নির্বাচন কমিশন। ১ জানুয়ারি ২০১৯। ২ জানুয়ারি ২০১৯ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২ জানুয়ারি ২০১৯ 
  6. "সংসদ নির্বাচন ২০১৮ ফলাফল"বিবিসি বাংলা। ২৭ ডিসেম্বর ২০১৮। সংগ্রহের তারিখ ৩১ ডিসেম্বর ২০১৮ 
  7. "একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ফলাফল"প্রথম আলো। ৩১ ডিসেম্বর ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩১ ডিসেম্বর ২০১৮ 
  8. "জয় পেলেন যারা"দৈনিক আমাদের সময়। সংগ্রহের তারিখ ৩১ ডিসেম্বর ২০১৮ 
  9. "আওয়ামী লীগের হ্যাটট্রিক জয়"সমকাল। সংগ্রহের তারিখ ৩১ ডিসেম্বর ২০১৮ 

বহিঃসংযোগসম্পাদনা