প্রধান মেনু খুলুন

সুস্মিতা পাত্র

রবীন্দ্রসঙ্গীত শিল্পী।

সুস্মিতা পাত্র ভারতবর্ষের একজন রবীন্দ্রসঙ্গীত শিল্পী। বর্তমান সময়ে তিনি একনিষ্ঠ ভাবে রবীন্দ্রসঙ্গীতের চর্চা করে চলেছেন।

ভারতবর্ষের বিভিন্ন স্থান ছাড়াও বাংলাদেশে তিনি রবীন্দ্রসঙ্গীত পরিবেশন করেছেন। রবীন্দ্র আকাদেমী ও বাংলাদেশ জাতীয় যাদুঘরের যৌথ আয়োজনে সুফিয়া কামাল মিলনায়তনে তিনি এমনই এক অপূর্ব রবীন্দ্র-সন্ধ্যার উপহার দেন যে, শ্রোতাদের অনুরোধে বাংলাদেশ থেকে দুখানি আলবাম প্রকাশে অঙ্গীকার বদ্ধ হয়েছিলেন। সেই আলবামদুটি হল - 'হৃদিমাঝারে'(২০১৬) ও 'লিখন তোমার' (২০১৭)। সেই রবীন্দ্রসন্ধ্যায় তাঁর রবীন্দ্রসঙ্গীত পরিবেশনের কথা বাংলাদেশের জনপ্রিয় প্রিন্ট ও ভিস্যুয়াল মিডিয়াতেও প্রচারিত হয়।

ভারতবর্ষ থেকে প্রকাশিত তাঁর জনপ্রিয় আলবামগুলি হল-

অরুণ আলোকে, অবেলায় (২০১১), নয়নে সাজায়ে (২০১৫), কণ্ঠে তন্ত্রে রবি সুর (২০১৬), যা হবার তা হবে (২০১৭), তুমি কিছু দিয়ে যাও (২০১৭)

রাগসঙ্গীত-প্রধান কয়েকটি গানকে, প্রখ্যাত সরোদবাদক পণ্ডিত দেবজ্যোতি বোসের সরোদের সঙ্গে যুগলবন্দী করে সুস্মিতা পাত্রের আলবাম 'কণ্ঠে তন্ত্রে রবি-সুর' আলবামটি বিশেষ আদৃত। সম্পূর্ণ টপ্পা অঙ্গের গান নিয়ে আলবাম - 'হৃদিমাঝারে' ও 'যা হবার তা হবে' টপ্পা প্রেমী শ্রোতাদের কাছে সম্পদ।

তাঁর রবীন্দ্রসঙ্গীত শিক্ষার হাতেখড়ি শ্রী ভরত চন্দ্র জানার কাছে। পরবর্তীকালে শ্রী চণ্ডীদাস মালের কাছে টপ্পা অঙ্গের গানের চর্চা করেন। তারপর, রবীন্দ্রভারতীর কৃতী ছাত্রী হিসেবে রবীন্দ্রসঙ্গীতে পাঠ নেওয়া ছাড়াও শ্রীমতী সুচিত্রা মিত্রের তত্ত্বাবধানে 'রবিতীর্থ' শিক্ষায়তনে ও পরবর্তীকালে শ্রীমতী শ্রাবণী সেনের কাছেও রবীন্দ্রসঙ্গীতের শিক্ষা করেছেন।

অল্পশ্রুত রবীন্দ্রসঙ্গীতের চয়ন ও টপ্পা অঙ্গের রবীন্দ্র-গানে বিশেষ পারদর্শীতা বর্তমান সময়ে তাঁর এক স্বতন্ত্র শ্রোতাকুল গড়ে উঠতে সাহায্য করেছে।