সাঈদ হায়দার

বাংলাদেশী ডাক্তার, লেখক ও ভাষা সৈনিক

সাঈদ হায়দার (আনুমানিক ২০ ডিসেম্বর, ১৯২৫-১৫ জুলাই ২০২০) একজন বাংলাদেশী ডাক্তার, লেখক ও ভাষা সৈনিক ছিলেন। তিনি ১৯৫২ এর ভাষা আন্দোলনের একজন সক্রিয় কর্মী ছিলেন। তিনি একুশের চেতনা পরিষদের সহসভাপতি ও প্রথম শহীদ মিনারের অন্যতম সহযোগী নকশাবিদ।[১] ভাষা আন্দোলনে তার অবদানের জন্য বাংলাদেশ সরকার ২০১৬ তাকে একুশে পদক প্রদান করে।[২]

সাঈদ হায়দার
জন্মআনুমানিক ২০ ডিসেম্বর, ১৯২৫
মৃত্যু১৫ জুলাই ২০২০
জাতীয়তাবাংলাদেশী
মাতৃশিক্ষায়তনঢাকা মেডিকেল কলেজ
পাঞ্জাব বিশ্ববিদ্যালয়
পেশাচিকিৎসক
পুরস্কারএকুশে পদক (২০১৬)

প্রাথমিক জীবনসম্পাদনা

হায়দার ১৯২৫ সালের ৫ পৌষ পাবনা শহরে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি কলকাতা প্রেসিডেন্সি কলেজ থেকে আইএ পাশ করেন।

হায়দার কলকাতা মেডিকেল কলেজে ভর্তি হলেও দেশ ভাগের পর ঢাকা মেডিকেল কলেজে পড়াশোনা করেন। তিনি সহশিক্ষার্থীদের মধ্যে সবার বয়োজ্যেষ্ঠ ছিলেন। ১৯৫২ সালে ঢাকা মেডিকেল কলেজ থেকে এমবিবিএস এবং ১৯৫৮ সালে পাঞ্জাব বিশ্ববিদ্যালয় থেকে গণস্বাস্থ্যে স্নাতকোত্তর ডিপ্লোমা নেন।[৩]

ভাষা আন্দোলনসম্পাদনা

তিনি ভাষা আন্দোলন সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করেছিলেন। ১৯৫২ সালের ২৩শে ফেব্রুয়ারি রাতে ঢাকা মেডিকেল কলেজে ছাত্ররা প্রথম শহীদ মিনার গড়ে তোলেন আর এর নকশা করেন বদরুল আলম, বদরুল আলমকে সহযোগিতা করেছিলেন সাঈদ হায়দার, যা ২৬ ফেব্রুয়ারি পাকিস্তান সেনাবাহিনী ধ্বংস করে দেয়।[৩]

কর্মজীবনসম্পাদনা

তিনি ইপিআইডিসির প্রধান চিকিৎসা কর্মকর্তা ছিলেন। চাকরির ধারাবাহিকতায় বিটিএমসি থেকে ১৯৮৩ সালে অবসর গ্রহণ করেন।

গ্রন্থসম্পাদনা

  • রোগ নিরাময় সুস্থ জীবন (১৯৬৯)
  • লোকসমাজ চিকিৎসাবিজ্ঞান
  • পিছু ফিরে দেখা (আত্মজীবনী)

পুরস্কারসম্পাদনা

মৃত্যুসম্পাদনা

২০২০ সালের জুনে তিনি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হন। পরে করোনামুক্ত হলেও নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত হন। এর পর থেকে তিনি ঢাকার উত্তরার ক্রিসেন্ট হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন। ১৫ জুলাই ২০২০ সালে তিনি সেখানে মৃত্যুবরণ করেন।[৪]

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "রক্ত ঝরেছে বলেই ওরা আমাদের ভাষা কেড়ে নিতে পারেনি"কালের কণ্ঠ। ২০১৭-০১-৩১। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৪-১২ 
  2. "ভাষাসংগ্রামী ডা. সাঈদ হায়দার আর নেই"যুগান্তর। সংগ্রহের তারিখ ১৫ জুলাই ২০২০ 
  3. "চলে গেলেন ভাষাসংগ্রামী ডা. সাঈদ হায়দার"bangla.bdnews24.com। সংগ্রহের তারিখ ১৫ জুলাই ২০২০ 
  4. "ভাষাসৈনিক সাঈদ হায়দার আর নেই"প্রথম আলো। সংগ্রহের তারিখ ১৫ জুলাই ২০২০