সন্দ্বীপ লামিচানে

নেপালি ক্রিকেটার

সন্দীপ লামিছানে (নেপালি: सन्दीप लामिछाने; জন্ম ২ আগস্ট ২০০০) একজন নেপালি ক্রিকেটার, যিনি নেপাল জাতীয় ক্রিকেট দলের হয়ে খেলেন। ডানহাতি লেগ স্পিনার সন্দীপ ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগের দল দিল্লি ডেয়ারডেভিলস এবং পাকিস্তান সুপার লীগের দল লাহোর কালান্দার্সে খেলেন। তিনি ১ম নেপালি ক্রিকেটার হিসেবে আইপিএল এবং আইএসএলে খেলেন।[১]

সন্দীপ লামিছানে
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামসন্দীপ লামিছানে
জন্ম (2000-08-02) ২ আগস্ট ২০০০ (বয়স ১৯)
স্যাঙ্জা, নেপাল
ব্যাটিংয়ের ধরনডানহাতি
বোলিংয়ের ধরনলেগস্পিন গুগলি
ভূমিকাবোলার
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
ওডিআই অভিষেক
(ক্যাপ )
১ আগস্ট ২০১৮ বনাম নেদারল্যান্ড
শেষ ওডিআই২৮ জানুয়ারি ২০১৯ বনাম সংযুক্ত আরব আমিরাত
টি২০আই অভিষেক
(ক্যাপ ২০)
৩১ মে ২০১৮ বনাম ওয়েস্ট ইন্ডিজ
শেষ টি২০আই২৮ জুলাই ২০১৯ বনাম সিঙ্গাপুর
ঘরোয়া দলের তথ্য
বছরদল
২০১৮–বর্তমানদিল্লি ক্যাপিটালস
২০১৮সেন্ট কিটস ও নেভিস প্যাট্রিয়টস
২০১৮নঙ্গারহার লিউপার্ডস
২০১৮/১৯মেলবোর্ন স্টার্স
২০১৯সিলেট সিক্সার্স
২০১৯লাহোর কালান্দার্স
২০১৯বার্বাডোস ট্রাইডেন্টস
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা ODI T20I LA T20
ম্যাচ সংখ্যা ২৭ ৫১
রানের সংখ্যা ৪০ ৭৬ ৪০
ব্যাটিং গড় ১০.০০ ৭.৬০ ৮.০০
১০০/৫০ ০/০ ০/০ ০/০ ০/০
সর্বোচ্চ রান ১৫ * ১৫ ১০*
বল করেছে ৩১৯ ৯০ ১,৪৩৪ ১,০৮২
উইকেট ১৫ ৫৭ ৬৮
বোলিং গড় ১৪.৮০ ২৪.৪০ ১৭.০৮ ১৯.২০
ইনিংসে ৫ উইকেট
ম্যাচে ১০ উইকেট
সেরা বোলিং ৪/২৪ ২/১৯ ৫/২০ ৪/১০
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ১/– ০/– ৯/– ৯/–

প্রারম্ভিক জীবনসম্পাদনা

সন্দীপ লেমিচেনি নেপালের স্যাঙ্জা জেলায় ২০০০ সালের ২ আগস্ট জন্মগ্রহণ করেন। সন্দীপ কৈশোর থেকে শচীন টেন্ডুলকার এবং শেন ওয়ার্নকে ক্রিকেটের আদর্শ হিসেবে ধারণ করতেন।[২] এরপর তিনি চিতবন জেলায় স্থায়ী হন এবং চিতবন ক্রিকেট একাডেমিতে যোগ দেন। নেপাল ক্রিকেট দলের অধিনায়ক পরশ খাডকা এবং কোচ পাবুডু দাসানায়েক চিতবনে আসলে সন্দীপ নেটে বল করার সুযোগ পান, সেখান থেকে সরাসরি নেপাল অনূর্ধ্ব-১৯ দলের ক্যাম্পে ডাক পান।

প্রারম্ভিক ক্যারিয়ারসম্পাদনা

২০১৬ সালের ১৬ এপ্রিলে আইসিসি ২০১৫-১৭ বিশ্ব ক্রিকেট লিগ চ্যাম্পিয়নশিপে নামিবিয়ার বিপক্ষে অভিষিক্ত হন।[৩] ২০১৬ সালে অনূর্ধ্ব-১৯ ক্রিকেট বিশ্বকাপের জন্য দলে ডাক পান।[৪] বিশ্বকাপের ২য় ম্যাচে আয়ারল্যান্ড জাতীয় ক্রিকেট দলের বিপক্ষে ৩২তম ওভারে হ্যাট্রিক করেন। তিনি অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপের ইতিহাসে ৫ম বোলার হিসেবে হ্যাট্রিক করেন। ৫ম স্থান নির্ধারনী প্লে-অফ ম্যাচে পাকিস্তানের বিপক্ষে ৩/৫৩ এবং ৭ম স্থান নির্ধারনী প্লে-অফ ম্যাচে নামিবিয়ার বিপক্ষে ৩/৩৫ পান। টুর্নামেন্টের ২য় সেরা উইকেট শিকারি হন। সেপ্টেম্বরে অস্ট্রেলিয়ার সাবেক অধিনায়ক মাইকেল ক্লার্ক তাকে সিডনির স্থানীয় একটি ক্লাবে খেলার আমন্ত্রন জানান।[৫] ২০১৭ সালের এসিসি অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপে মালয়শিয়ার বিপক্ষে ৫/৮ পান এবং ম্যান অফ দ্য ম্যাচ নির্বাচিত হন।[৬]

ফ্রেঞ্চাইজি লীগসম্পাদনা

২০১৮ সালের জানুয়ারিতে ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লীগের দল দিল্লি ডেয়ারডেভিলস ২০ লাখ রুপিতে দলে ভেড়ায়।[১] মার্চে ক্যারাবিয়ান প্রিমিয়ার লিগে ড্রাফট থেকে সেন্ট কিটস ও নেভিস প্যাট্রিয়টস ৫০০০ ডলারে যোগ দেয়।[৭] মে মাসে প্রথম নেপালি হিসেবে আইপিএলে অভিষিক্ত হয়, রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালোরের বিপক্ষে সেই ম্যাচে ২৫ রান দিয়ে একটি উইকেট শিকার করে। সেই আসরে ৩ ম্যাচ খেলে ১৬.৪ গড়ে ৫ উইকেট শিকার করে। সেপ্টেম্বরে আফগানিস্তান প্রিমিয়ার লীগের দল নানগারহার্সে দলে সুযোগ পান।[৮] অক্টোবরে বিগ ব্যাসের দল মেলবোর্ন স্টার্সে যোগ দেন। এর কিছুদিন পর বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের ষষ্ঠ আসরে ড্রাফট থেকে সিলেট সিক্সার্সে ডাক পান।[৯]

আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ারসম্পাদনা

২০১৮ সালে আইসিসি বিশ্ব ক্রিকেট লীগ ২য় ডিভিশনে নেপাল জাতীয় ক্রিকেট দলে সুযোগ পান।[১০] টুর্নামেন্টের প্রথম ম্যাচে নামিবিয়ার বিপক্ষে ৮.২ ওভার বল করে ১৮ রান দিয়ে ৪টি উইকেট নিয়ে দলকে ১ উইকেটে জেতায়। টুর্নামেন্টে মিতব্যয় বোলিং ও ৬ ম্যাচে ১৭ উইকেট নিয়ে সর্বোচ্চ উইকেট শিকারি হয়ে টুর্নামেন্ট সেরা নির্বাচিত হন।[১১] ৩১ মে মাসে আইসিসি বিশ্ব একাদশের হয়ে লর্ডসে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে একটি ম্যাচ খেলেন। জুলাইয়ে নেদারল্যান্ডসের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজের জন্য নেপাল স্কোয়াডে জায়গা পায়। যা ছিল ওয়ানডে স্ট্যাটাস পাওয়ার পর নেপালের ১ম ওয়ানডে ম্যাচ। ২৯ শে জুলাইয়ে নেপালের হয়ে টুয়েন্টি২০ অভিষিক্ত হন। ১ আগস্টে ওয়ানডেতে অভিষিক্ত হন। আগস্টে ২০১৮ এশিয়া কাপ বাছাইপর্বে নেপাল স্কোয়াডে জায়গা পান।[১২]

তথ্যসুত্রসম্পাদনা

বহিঃসংযোগসম্পাদনা