শেখ শহীদুল ইসলাম

বাংলাদেশী শিক্ষাবিদ এবং একজন রাজনীতিবিদ

শেখ শহীদুল ইসলাম (জন্ম: ২৯ সেপ্টেম্বর ১৯৪৮) বাংলাদেশী শিক্ষাবিদ এবং একজন রাজনীতিবিদ। মাদারীপুর-৩ আসন হতে তিনি ২ বার জাতীয় সংসদ সদস্য হিসেবে নির্বাচিত হন। ১৯৮৪ সাল হতে ১৯৯০ সাল পর্যন্ত বাংলাদেশের শিক্ষা ও বিজ্ঞান মন্ত্রণালয়ে, গণপূর্ত ও নগর উন্নয়ন মন্ত্রণালয়, যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয় এবং পাট মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী হিসেবে তিনি দায়িত্ব পালন করেন।[১] তিনি বর্তমানে জাতীয় পার্টি- জেপির সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়ীত্ব পালন করছেন।[২]

শেখ শহীদুল ইসলাম
মাদারীপুর-৩ আসনের সংসদ সদস্য
কাজের মেয়াদ
৭ মে ১৯৮৬ – ৬ ডিসেম্বর ১৯৯০
পূর্বসূরীআসন শুরু
উত্তরসূরীসৈয়দ আবুল হোসেন
বাংলাদেশ সরকারের মন্ত্রী
কাজের মেয়াদ
৭ মে ১৯৮৬ – ৬ ডিসেম্বর ১৯৯০
ব্যক্তিগত বিবরণ
জন্ম (1948-09-29) ২৯ সেপ্টেম্বর ১৯৪৮ (বয়স ৭৩)
মাদারীপুর জেলা, বাংলাদেশ
রাজনৈতিক দলজাতীয় পার্টি (মঞ্জু)
জাতীয় পার্টি (এরশাদ)
বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ
সম্পর্কফজিলতুন্নেসা (খালা)

প্রাথমিক জীবনসম্পাদনা

শেখ শহীদুল ইসলাম ১৯৪৮ সালের ২৯ সেপ্টেম্বর গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতা বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ ও সমাজ কর্মী শেখ মো. মুসা এবং মা জেন্নাতুন নেছা। বেগম ফজিলাতুন নেছা ছিলেন শেখ শহীদুল ইসলাম এর খালা।

কর্ম জীবনসম্পাদনা

রাজনৈতিক জীবনসম্পাদনা

শেখ শহীদুল ইসলাম শিক্ষা আন্দোলনে অংশগ্রহণের মাধ্যমে ১৯৬২ সালে রাজনীতিতে প্রবেশ করেন। তিনি ছয় দফা আন্দোলন, ১৯৬৯ সালে ১১ দফা, গণ-অভ্যুত্থান, ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধে সক্রিয় অংশগ্রহণ করেন। মুক্তিযুদ্ধে তিনি ছিলেন বৃহত্তর ফরিদপুর অঞ্চলের মুজিব বাহিনীর প্রধান ছিলেন। তিনি বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সভাপতি, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সমাজকল্যাণ সম্পাদক, জাতীয় যুব সংহতির সভাপতি ও জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য ছিলেন। তিনি জাতীয় পার্টি (মঞ্জু)’র সাধারণ সম্পাদক।

শহীদুল বাংলাদেশ সরকারের যুব ও ক্রীড়া, পাট, গণপূর্ত ও নগর উন্নয়ন এবং শিক্ষা মন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। তিনি ৭ মে ১৯৮৬ সালের তৃতীয় ও ৩ মার্চ ১৯৮৮ সালের চতুর্থ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জাতীয় পার্টির প্রার্থী হিসেবে মাদারীপুর-৩ আসন থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।[৩][৪]

বিশেষ অবদানসম্পাদনা

এরশাদ সরকার এর আমলে শেখ শহীদুল ইসলাম প্রথম নারীদের জন্য বাংলাদেশে অবৈতনিক শিক্ষা কার্যক্রম চালু করেন। এছাড়াও বাংলাদেশ জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় এর প্রতিষ্ঠা করেন।

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "সাবেক শিক্ষামন্ত্রী শেখ শহীদুল"যুগান্তর। ২৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮। সংগ্রহের তারিখ ২৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮ 
  2. "নিবন্ধিত রাজনৈতিক দল"। Bangladesh Election Commission। ১৫ ফেব্রুয়ারি ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮ 
  3. "৩য় জাতীয় সংসদে নির্বাচিত মাননীয় সংসদ-সদস্যদের নামের তালিকা" (PDF)জাতীয় সংসদবাংলাদেশ সরকার। ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৮ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। 
  4. "৪র্থ জাতীয় সংসদে নির্বাচিত মাননীয় সংসদ-সদস্যদের নামের তালিকা" (PDF)জাতীয় সংসদবাংলাদেশ সরকার। ৮ জুলাই ২০১৯ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা।