শাহ-ই-আলম

বাংলাদেশী কৃষিবিদ

শাহ-ই-আলম একজন বাংলাদেশী কৃষিবিদ ও বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের জেনেটিক্স অ্যান্ড প্ল্যান্ট ব্রিডিং বিভাগের অবসরপ্রাপ্ত অধ্যাপক। তিনি শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় ও সিটি ইউনিভার্সিটির সাবেক উপাচার্য। বর্তমানে তিনি শান্ত-মারিয়াম ইউনিভার্সিটি অব ক্রিয়েটিভ টেকনোলজির উপাচার্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।[১]

শাহ-ই-আলম
উপাচার্য
শান্ত-মারিয়াম ইউনিভার্সিটি অব ক্রিয়েটিভ টেকনোলজি
দায়িত্বাধীন
অধিকৃত কার্যালয়
২ এপ্রিল ২০২৩
উপাচার্য
সিটি ইউনিভার্সিটি
কাজের মেয়াদ
১ জুলাই ২০১৮ – ৩০ জুন ২০২২
উপাচার্য
শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়
কাজের মেয়াদ
১৭ জুলাই ২০০৮ – ১৬ জুলাই ২০১২
পূর্বসূরীহাবিব আবু ইব্রাহীম
উত্তরসূরীশাদাত উল্লা
ব্যক্তিগত বিবরণ
জন্ম১৯৫৩ (বয়স ৭০–৭১)
বরিশাল, বাংলাদেশ
জাতীয়তাবাংলাদেশী
প্রাক্তন শিক্ষার্থীবাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়
ইনস্টিটিউট অব অ্যাগ্রোনমি, রোমানিয়া
ইউনিভার্সিটি অব সোয়ানসি, যুক্তরাজ্যে
পেশাঅধ্যাপক, বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসক

প্রাথমিক জীবন সম্পাদনা

আলম ১৯৫৩ সালে বরিশাল জেলায় জন্মগ্রহণ করেন। তিনি বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ১৯৭৪ সালে বিএসসি কৃষি (স্নাতক) ও ১৯৭৫ সালে এমএসসি ডিগ্রি লাভ করেন। তিনি ইনস্টিটিউট অব অ্যাগ্রোনমি, রোমানিয়া থেকে ১৯৮২ সালে থেকে প্ল্যান্ট ব্রিডিং বিষয়ে পিএইচডি ডিগ্রি অর্জন করেন এবং যুক্তরাজ্যের ইউনিভার্সিটি অব সোয়ানসি থেকে ১৯৯২ সালে বায়োটেকনোলজি বিষয়ে পোস্ট ডক্টরাল গবেষণা সম্পন্ন করেন।[২][৩]

কর্মজীবন সম্পাদনা

শাহ-ই-আলম ১৯৭৮ সালে বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের জেনেটিক্স অ্যান্ড প্ল্যান্ট ব্রিডিং বিভাগের প্রভাষক হিসেবে কর্মজীবন শুরু করেন। এরই ধারাবাহিকতায় তিনি বিশ্ববিদ্যালয়টির অধ্যাপক হন ও ২০১৮ সালে অবসর লাভ করেন।

অধ্যাপনার পাশাপাশি তিনি জেনেটিক্স অ্যান্ড প্ল্যান্ট ব্রিডিং বিভাগের প্রধান, সহকারী প্রভোস্ট, সহকারী প্রক্টর, বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় রিসার্চ সিস্টেমের পরিচালক, বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক ও কোষাধ্যক্ষ, বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক ফেডারেশনের মহাসচিব, বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন ফর দ্য অ্যাডভান্সমেন্ট অব সায়েন্সের কোষাধ্যক্ষ এবং প্ল্যান্ট ব্রিডিং অ্যান্ড জেনেটিক্স সোসাইটি অব বাংলাদেশের কোষাধ্যক্ষসহ বিভিন্ন দায়িত্ব পালন করেন।[৩]

আলম ২০০৮ থেকে ২০১২ সাল পর্যন্ত শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য[৪] এবং ২০১৮ থেকে ২০২২ সাল পর্যন্ত সিটি ইউনিভার্সিটির উপাচার্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। ২০২৩ সালে তিনি পরবর্তী ৪ বছরের জন্য শান্ত-মারিয়াম ইউনিভার্সিটি অব ক্রিয়েটিভ টেকনোলজির উপাচার্য হিসেবে যোগদান করেন।[৫]

তথ্যসূত্র সম্পাদনা

  1. "এসএমইউসিটি'র নতুন উপাচার্য শাহ-ই-আলম"কালের কণ্ঠ। ৩ এপ্রিল ২০২৩। সংগ্রহের তারিখ ৭ এপ্রিল ২০২৩ 
  2. "শান্ত-মারিয়াম ইউনিভার্সিটি অফ ক্রিয়েটিভ টেকনোলজির নতুন উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. শাহ-ই-আলম"ঢাকা ট্রিবিউন। ৩ এপ্রিল ২০২৩। সংগ্রহের তারিখ ৭ এপ্রিল ২০২৩ 
  3. "অধ্যাপক ড. মো. শাহ-ই-আলমের জীবনবৃত্তান্ত"শান্ত-মারিয়াম ইউনিভার্সিটি অব ক্রিয়েটিভ টেকনোলজি (ইংরেজি ভাষায়)। ৭ এপ্রিল ২০২৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৭ এপ্রিল ২০২৩ 
  4. "উপাচার্যগণের তালিকা"শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় (ইংরেজি ভাষায়)। ১৫ জানুয়ারি ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৭ এপ্রিল ২০২৩ 
  5. "শান্ত-মারিয়াম ইউনিভার্সিটির নতুন উপাচার্য ড. শাহ-ই-আলম"বাংলাদেশ প্রতিদিন। ৩ এপ্রিল ২০২৩। সংগ্রহের তারিখ ৭ এপ্রিল ২০২৩