শশাঙ্ক চন্দ্র ভট্টাচার্য

শশাঙ্ক চন্দ্র ভট্টাচার্য (১৯১৮-২০১৩) ছিলেন একজন ভারতীয় প্রাকৃতিক পণ্য রসায়নবিদ এবং কলকাতার বোস ইনস্টিটিউট এর ডাইরেক্টর।[১] তিনি টার্পিনয়েড এর কাঠামো এবং তার রূপরেখা এবং ভেটিভার অয়েল এবং প্রাকৃতিক কস্তুরীর সংশ্লেষণ সম্পর্কিত গবেষণার জন্য পরিচিত ছিলেন। [২] তিনি ভারতীয় জাতীয় বিজ্ঞান একাডেমীর সহ-সভাপতি ছিলেন[৩] এবং একাডেমির পাশাপাশি ভারতীয় বিজ্ঞান একাডেমীর একজন নির্বাচিত ফেলো ছিলেন।[৪] বৈজ্ঞানিক গবেষণার জন্য ভারত সরকারের শীর্ষস্থানীয় সংস্থা বৈজ্ঞানিক ও শিল্প গবেষণা কাউন্সিল ১৯৬২ সালে রাসায়নিক বিজ্ঞানে তাঁর অবদানের জন্য তাঁকে সর্বোচ্চ ভারতীয় বিজ্ঞান পুরষ্কারের একটি শান্তি স্বরূপ ভাটনগর পুরস্কার এ ভূষিত করেছে।[৫]

শশাঙ্ক চন্দ্র ভট্টাচার্য
জন্ম(১৯১৮-০৮-৩১)৩১ আগস্ট ১৯১৮
সিলেট, আসাম প্রদেশ, ব্রিটিশ ভারত
মৃত্যু১৯ মে ২০১৩(2013-05-19) (বয়স ৯৪)
কলকাতা, পশ্চিম বঙ্গ, ভারত
জাতীয়তাভারতীয়
কর্মক্ষেত্র
প্রতিষ্ঠান
প্রাক্তন ছাত্র
পিএইচডি উপদেষ্টা
  • প্রফুল্ল চন্দ্র গুহ
  • বি. লিথগো
পরিচিতির কারণটার্পিনয়েডস এর কাঠামো এবং রূপরেখার উপর অধ্যয়ন
উল্লেখযোগ্য
পুরস্কার

জীবনীসম্পাদনা

তাঁর পিতা সংস্কৃত পণ্ডিত শিরিষচন্দ্র এবং মাতা কাদম্বিনীদেবী ব্রিটিশ ভারত এর অন্তর্গত অবিভক্ত বাংলার সুরমা নদীর তীরের সিলেট (বর্তমানে বাংলাদেশে) থেকে এসেছিলেন। সেখানেই শশাঙ্ক চন্দ্র ভট্টাচার্যের জন্ম ৩১ আগস্ট ১৯১৮ সালে।[৬] তাঁর কলেজের পড়াশুনা কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় বিজ্ঞান কলেজে। এটি রাজাবাজার বিজ্ঞান কলেজ নামেও পরিচিত যেখান থেকে তিনি ১৯৩৮ সালে বিএসসি এবং ১৯৪০ সালে এমএসসি পাস করেন। এই সময় তিনি এস.এস. গুহ সরকারের অধীনে লেখাপড়ার সুযোগ পেয়েছিলেন। তিনি সে সময়ের বিশিষ্ট রসায়নবিদ ছিলেন। [৭] ১৯৪১ সালে বেঙ্গালুরুতে চলে আসার পরে তিনি ইন্ডিয়ান ইনস্টিটিউট অফ সায়েন্স (আইআইএসসি) তে যোগ দিয়েছিলেন এবং পি.সি. গুহ নামে পরিচিত জৈব রসায়নবিদের অধীনে চন্দন কাঠের তেল এর রসায়নের উপর ডক্টরাল গবেষণা করেছিলেন। তবে ১৯৪৩ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এ তাঁর ডক্টরাল থিসিস জমা দিয়েছিলেন এবং তার এক বছর পরে তাঁকে ডিগ্রি প্রদান করা হয়েছিল। পরে ১৯৪৫ সালে তিনি কেমব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয় এ একজন রয়্যাল সোসাইটির ফেলো বি. ল্যাথগোর তত্বাবধানে কুষ্ঠরোগের চিকিৎসার জন্য ব্যবহৃত উদ্ভিদ সেন্টেলা এশিয়াটিকা নিয়ে কাজ করার সুবাদে ১৯৪৯ সালে দ্বিতীয় [পিএইচডি] অর্জন করেন। তিনি হার্টস ফার্মাসিউটিক্যালসের সাথে গবেষণায় রসায়নবিদ হিসাবে তাঁর কর্মজীবন শুরু করেছিলেন। তবে সেটি কেবল এক বছর (১৯৪৯-৫০) স্থায়ী হয়েছিল। [৬]

১৯৫০ সালে ভারতে যখন তিনি ফিরে আসেন ততোদিনে ভারত স্বাধীনতা অর্জন করেছে। ভট্টাচার্য্য তাঁদের রসায়ন বিভাগে ফ্যকাল্টি সদস্য হিসাবে আইআইএসসিতে যোগদান করেন। ১৯৫১ সালে যখন জাতীয় রাসায়নিক পরীক্ষাগার (এনসিএল) এ সুযোগ আসে তখন তিনি তাতে সাড়া দেন এবং সিনিয়র বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা হিসাবে দেড় দশক ধরে সেখানে যুক্ত ছিলেন। এনসিএলে তিনি বৈজ্ঞানিক ও শিল্প গবেষণা কাউন্সিল এর সহায়তায় বান তেলের জন্য একটি নতুন বিভাগ প্রতিষ্ঠা করেন যেখানে তিনি প্রতিষ্ঠাতা উপ-পরিচালক হন। ১৯৬৬ সালে তিনি সিনিয়র প্রফেসর হিসাবে মুম্বাইয়ের ইন্ডিয়ান ইনস্টিটিউট অফ টেকনোলজি তে চলে আসেন। সেখানে তিনি রসায়ন বিভাগ প্রতিষ্ঠা করেন এবং ১৯৭৬ সালে তাঁর প্রস্থানের সময় পর্যন্ত সেখানে উপ-পরিচালক পদে অধিষ্ঠিত ছিলেন। এক বছর পরে তিনি কলকাতার পরিচালক হিসাবে বোস ইনস্টিটিউট এ যোগদান করেন এবং ১৯৮৪ সালে তাঁর অবসর গ্রহণের আগে পর্যন্ত এই প্রতিষ্ঠানের দায়িত্ব পালন করেন। [১] তবে আইআইটি মুম্বাইয়ের সাথে সম্মানিত ভিজিটিং প্রফেসর হিসাবে তাঁর সহযোগিতা অব্যাহত ছিল।[৩]

শশাঙ্ক চন্দ্র ভট্টাচার্যের সাথে গীতা ভট্টাচার্যের বিয়ে হয়েছিল। [৬] এই দম্পতির এক পুত্র এবং দুই কন্যা বর্তমান। ১৯৯৯ সালে তাঁর স্ত্রীর মৃত্যুর পরে তিনি মূলত তাঁর এক মেয়ের সাথে দেরাদুনে থাকতেন। সেখানে ১৯ মে ২০১৩ সালে ৯৪ বছর বয়সে তিনি মারা যান।[২]

উত্তরাধিকারসম্পাদনা

ভট্টাচার্যের গবেষণার ইতিহাস শুরু তাঁর কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে যেখানে তিনি এস. এস. গুহ সরকারের অধীনে পড়াশোনা করেছিলেন এবং অজৈব রসায়নে বিকারক নিয়ে দুজনের কাজ ১৯৪১ সালে প্রকাশিত দুটি নিবন্ধের মাধ্যমে।[৬] পরে কেমব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়ের বি. ল্যাথগোর সাথে তাঁর কাজ সেন্টেলেলা এশিয়াটিকা -র কুষ্ঠরোগ বিরোধী বৈশিষ্ট্যতে মনোনিবেশ করেছিল। সেখানে তাঁরা ওষধিটির রাসায়নিক উপাদানসমূহের ব্যাখ্যা করার চেষ্টা করেছিল এবং তাঁদের গবেষণা কর্ম নেচার এ দুটি নিবন্ধ হিসাবে প্রকাশিত হয়েছিল। [৮][৯] তিনি ভারতেও টার্পারনোয়েডস নিয়ে গবেষণা চালিয়েছিলেন এবং প্রাকৃতিক কস্তুরীর দুর্গন্ধযুক্ত যৌগগুলির সংশ্লেষণে কাজ করেছিলেন। এর ফলে মাস্কোন, ডাইড্রোসিভেটোন, এক্সালটোন , এক্সালটোলাইড এবং অ্যামব্রেটোলাইড যৌগের বাণিজ্যিক মূল্য রয়েছে বলে জানা গেছে।[১০] এছাড়াও তিনি জেসমিনস, রোজ অক্সাইড, সান্টালোলস এবং সান্তালেন্সর মতো যৌগিক সংশ্লেষও করেছিলেন। তাঁর নেতৃত্বে গবেষণা দলের অন্যতম প্রধান অবদান ছিল ভেটিভার অয়েল এর উপাদানের অ্যান্টিপোডাল প্রকৃতি প্রদর্শন করা[১১] সামগ্রিকভাবে তিনি টার্পেনয়েড এবং কাউমারিন বিভাগের অধীনে ১০০ টিরও বেশি যৌগকে বিচ্ছিন্ন করতে পেরেছিলেন।[৩]

ভট্টাচার্য্য তাঁর গবেষণাসমূহ ২৫০ এর অধিক নিবন্ধে প্রকাশ করেছিলেন [১২][note ১] এবং তিনি ও তাঁর দল তার মধ্যে থেকে কিছু কিছু প্রক্রিয়ার পেটেন্ট নিয়েছিলেন। [১৩][১৪] একাডেমিক ফ্রন্টে তিনি বান তেল সম্পর্কিত গবেষণার জন্য মুম্বইয়ের ইন্ডিয়ান ইনস্টিটিউট অফ টেকনোলজির রসায়ন বিভাগে একটি নতুন বিভাগের অধীনে গবেষকদের একটি দল সংগ্রহ করেছিলেন। সেখানে তিনি এক দশক ধরে সিনিয়র অধ্যাপক হিসাবে দায়িত্ব পালন করেছিলেন। [৩] কর্মজীবনকালে তিনি ৯০ জন ডক্টরাল ছাত্রকে পরামর্শ দিয়েছিলেন এবং টাটাজ হাউস এর পরামর্শদাতার দায়িত্ব পালন করেছিলেন। তিনি জার্নাল অফ ইন্ডিয়ান কেমিক্যাল সোসাইটি এর সম্পাদক হিসাবে (১৯৬৭–৭০) এবং ইন্ডিয়ান জার্নাল অফ কেমিস্ট্রি এর সম্পাদকীয় বোর্ডের সদস্য হিসাবে যুক্ত ছিলেন। তিনি ১৯৭৮ থেকে ১৯৮০ সাল পর্যন্ত ভারতীয় জাতীয় বিজ্ঞান একাডেমির কাউন্সিলের দায়িত্ব পালন করেছিলেন এবং পারফিউমস এবং ফ্লেভারস অ্যাসোসিয়েশন অফ ইন্ডিয়া (বর্তমানে ফ্র্যাগরেন্স অ্যান্ড ফ্লেভারস অ্যাসোসিয়েশন অফ ইন্ডিয়া নামে পরিচিত) এর আজীবন সদস্য ছিলেন। [৩]

মন্তব্যসম্পাদনা

  1. Please see Selected bibliography section

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "Directors"List of directors। Bose Institute। ২০১৬। ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৬ নভেম্বর ২০১৬ 
  2. "Brief Profile of the Awardee"। Shanti Swarup Bhatnagar Prize। ২০১৬। সংগ্রহের তারিখ ৫ অক্টোবর ২০১৬ 
  3. "Deceased fellow"। Indian National Science Academy। ২০১৬। ২৭ এপ্রিল ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৫ নভেম্বর ২০১৬ 
  4. "Fellow profile"। Indian Academy of Sciences। ২০১৬। সংগ্রহের তারিখ ৫ নভেম্বর ২০১৬ 
  5. "View Bhatnagar Awardees"। Shanti Swarup Bhatnagar Prize। ২০১৬। সংগ্রহের তারিখ ৫ অক্টোবর ২০১৬ 
  6. S. K. Paknikar (২০১৬)। "Educationist, scientist, and Administrator"Indian Institute of Science Journal 
  7. Girish K. Trivedi; Aliasgar Q. Contractor; Prasenjit Ghosh (জুলাই ২০১৩)। "Sadsanka Chandra Bhattacharyya (1918–2013)" (PDF)Current Science105 (1)। 
  8. S. C. Bhattacharyya, B. Lythgoe (১২ ফেব্রুয়ারি ১৯৪৯)। "Triterpene Acids"Nature163 (4137): 259। ডিওআই:10.1038/163259a0পিএমআইডি 18109175বিবকোড:1949Natur.163..259B 
  9. S. C. Bhattacharyya, B. Lythgoe (১২ ফেব্রুয়ারি ১৯৪৯)। "Centelloside"Nature163 (4137): 259–60। ডিওআই:10.1038/163259a0পিএমআইডি 18109175বিবকোড:1949Natur.163..259B 
  10. "Handbook of Shanti Swarup Bhatnagar Prize Winners" (PDF)। Council of Scientific and Industrial Research। ১৯৯৯। পৃষ্ঠা 34। ৪ মার্চ ২০১৬ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৫ অক্টোবর ২০১৬ 
  11. K. Nagarajan (২০১৪)। "History of Natural Products Chemistry in India" (PDF)Indian Journal of History of Science49 (4): 377–398। ২৫ আগস্ট ২০২০ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৯ অক্টোবর ২০২০ 
  12. "Browse by Fellow"Article listing। Indian Academy of Sciences। ২০১৬। সংগ্রহের তারিখ ৭ নভেম্বর ২০১৬ 
  13. Chandra Bhattacharyya Sasanka, Ramchandra Kelkar Govind (২৬ জুলাই ১৯৬০)। "Preparation of costus root oil and the products thereof"Patent No. US 2946783 A। United States Patent। সংগ্রহের তারিখ ৬ নভেম্বর ২০১৬ 
  14. Ullal Govindraj Nayak; Kamala Kinkar Chakravarti; Sasanka Chandra Bhattacharyya (১৫ জুলাই ১৯৬৫)। "Process for the preparation of Azelainsaeuremonoaethylesters"Patent No. DE 1196633 B। German Patent। সংগ্রহের তারিখ ৬ নভেম্বর ২০১৬