শর্বরী রায়চৌধুরী

ভারতীয় শিল্পী

'''শর্বরী রায়চৌধুরী''' ( ২১ জানুয়ারি, ১৯৩৩ - ২১ ফেব্রুয়ারি, ২০১২) ছিলেন একজন বিশিষ্ট ভারতীয় বাঙালি ভাস্কর।

শর্বরী রায়চৌধুরী
জন্ম(১৯৩৩-০১-২১)২১ জানুয়ারি ১৯৩৩
মৃত্যু২১ ফেব্রুয়ারি ২০১২(2012-02-21) (বয়স ৭৯)
কলকাতা,পশ্চিমবঙ্গ , ভারত[২]
জাতীয়তাভারতীয়

জীবনীসম্পাদনা

শর্বরী রায়চৌধুরী বৃটিশ ভারতের অধুনা বাংলাদেশের উলপুরের এক জমিদার পরিবারে জন্ম গ্রহণ করেন। ১৯৫৬ খ্রিস্টাব্দে কলকাতার গভর্নমেন্ট আর্ট  কলেজ থেকে স্নাতক হন। এর পর তিনি বরোদার এম. এস. বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার সময় বিখ্যাত ভাস্কর প্রদোষ দাশগুপ্ত ও শঙ্খ চৌধুরীকে শিক্ষাগুরু হিসাবে পেয়েছিলেন। ১৯৬০ খ্রিস্টাব্দ এবং ১৯৬২ খ্রিস্টাব্দের মধ্যবর্তী সময়ে কলকাতার ভারতীয় আর্ট কলেজের ভাস্কর্য বিভাগের প্রধান ছিলেন। তিনি তাঁর কর্মজীবনের বেশিরভাগ সময়ই শান্তিনিকেতনে বিশ্বভারতীর কলাভবনে অতিবাহিত করেন। ১৯৬৯ খ্রিস্টাব্দে যুক্ত হয়ে ১৯৯৭ খ্রিস্টাব্দে অবসরের সময় পর্যন্তই কলাভবনে ছিলেন।

শর্বরী রায়চৌধুরী ভারতীয় ভাস্কর প্রদোষ  দাশগুপ্ত ন্যায়  ওগুস্ত রদ্যাঁর মত সেরা পাশ্চাত্য ভাস্করদের দ্বারাও প্রভাবিত হয়েছিলেন। শর্বরী রায়চৌধুরীর হিন্দুস্থানী শাস্ত্রীয় সঙ্গীতের প্রতি আগ্রহ ছিল।  বড়ে গোলাম আলি খাঁআলাউদ্দিন খাঁআলী আকবর খাঁ, মল্লিকার্জুন মনসুর সিদ্ধেশ্বরী দেবী  প্রমুখেরা ছিলেন তাঁর প্রিয় সঙ্গীত শিল্পীদের অন্যতম। তিনি মন্তব্য করেন যে, সঙ্গীতই তাঁর কাজে প্রেরণা জুগিয়েছে।

তিনি উল্লেখ করেছেন -

সঙ্গীতের বিমূর্ততা অন্য কোন শিল্পের মধ্যেও যে সঞ্চার লাভ করে তা আমি অনুভব করি। ব্যক্তিগতভাবে সঙ্গীতই পরিচালন করে আমার চেতনাকে তথা আমার সৃষ্টিকর্মকে। আমি সঙ্গীতের মধ্যেই ভাস্করের সন্ধান পাই - সঙ্গীতের ভাস্কর্যরূপ প্রত্যক্ষ করি এবং নিজের কর্মে সেই শৈলিতে ফুটিয়ে তুলতে চেষ্টা করি।

চিত্রের মাঝে তাঁর বেশিরভাগ শিল্পকর্মগুলি সেই শৈলিতে বিমূর্ত।

সম্ভবত ১৯৬২ সালে তিনি ইতালি ভ্রমণে যান। ফ্লোরেন্সস্থিত আর্ট স্কুলে গিয়াকোমেটি এবং হেনরি মুরের সাথে সাক্ষাত করেছিলেন।সপ্রাচ্যের ভাস্কর্যরীতির সঙ্গে পাশ্চাত্যের কিউবিজম এবং বিমূর্তনের এক অনন্য মিশ্রণ তাঁর শিল্পধারাকে স্বতন্ত্র করে তুলেছিল।

রায়চৌধুরী ২০০৪ সালে শান্তিনিকেতনের বিশ্ব ভারতী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে গগন-অবন পুরস্কার এবং ২০০৫ সালে পশ্চিমবঙ্গ সরকারের অবনীন্দ্র পুরস্কার সহ বেশ কয়েকটি দেশি-বিদেশি পুরষ্কারে ভূষিত হয়েছিলেন। বছরের পর বছর ধরে তিনি বেশ কয়েকটি গ্রুপ এবং একক ভাবে তাঁর শিল্পকর্মের প্রদর্শনী হয়েছে।

শর্বরী রায়চৌধুরী স্ত্রী অজন্তা রায়চৌধুরী এবং দুই পুত্রেরা হলেন, সৌগত এবং সৌরভ। কনিষ্ঠ পুত্র সৌরভ রায়চৌধুরী পিতার ন্যায় এক ভাস্কর [৩], আর তাঁর জ্যেষ্ঠ পুত্র সৌগত রায়চৌধুরী হিন্দুস্তানী শাস্ত্রীয় সংগীতের শিল্পী এবং সরোদ বাদক। [৪]

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. Kay, E. (১৯৭৬)। International who's who in art and antiques। Melrose Press। আইএসবিএন 9780900332371। সংগ্রহের তারিখ ২০১৫-০৪-২১ 
  2. Telegraph Article
  3. "Merging music and sculpture"The Telegraph 
  4. "Sougata Roy Chowdhury - Indian Classical Sarod Concert"art Base 

বাহ্যিক লিঙ্কগুলিসম্পাদনা