ল্যাঙ্গা ভোনি ( প্যাভাদাই দাওয়ানি বা লঙ্গা দেওয়ানি নামেও পরিচিত ) হল একটি ঐতিহ্যবাহী পোশাক যা মূলত দক্ষিণ ভারতের এবং পাকিস্তানের যুবতী মেয়েরা পরিধান করে থাকে। অল্প বয়সী মেয়েরাও এটি পরিধান করে। এটি দুই খণ্ডের শাড়ি বা অর্ধ শাড়ি হিসাবেও পরিচিত। [১] বয়ঃসন্ধি এবং বিবাহের সময় অল্পবয়সী মেয়েরা এই পোশাক পরে। এছাড়া এর চেয়ে কম বয়সী মেয়েরা বিশেষ অনুষ্ঠানে এটি পরতে পারে।

রাভিকে এবং ল্যাঙ্গা পরা তামিল মেয়ে(১৯০৭)

এটা একটা লেহেঙ্গা বাপাভাদাই , যা একটি স্কার্ট, যা স্ট্রিং ব্যবহার করে কোমরে বাঁধা হয়, এবং একটি ভোনি, অনি, অথবা দাভানি, যা সাধারণত ২ থেকে ২.৫ মিটার (৬ ফুট ৭ ইঞ্চি থেকে ৮ ফুট ২ ইঞ্চি) দৈর্ঘ্যবিশিষ্ট হয়। ভোনি তির্যকভাবে একটি চোলির উপর (একটি টাইট ফিটিং ব্লাউজ, যা শাড়ি সঙ্গে ধৃত হয়) পরা হয়। সাধারণত পোশাকটি সুতি বা সিল্ক দিয়ে বোনা হয়। আধুনিক উপমহাদেশে মূলত বিশেষ অনুষ্ঠানের জন্য ভারতীয়দের দ্বারা পরিধান করা আধুনিক সময়ের " লেহেঙ্গা ধাঁচের শাড়ি" ল্যাঙ্গা ভোনির দ্বারা অনুপ্রাণিত।

পোশাকসম্পাদনা

অর্ধেক শাড়ি শৈশবকালীন পাওয়াদাই (স্কার্ট) সাতাই (ব্লাউজ) থেকে শাড়িতে স্থানান্তরকে সহজতর করে তোলে, প্রাপ্তবয়স্ক মহিলারা আরও বেশি জটিল পোশাক পরে। সাধারণত ল্যাঙ্গা (প্যাভাদাই) এবং ভোনি উজ্জ্বল বর্ণের এবং একে অপরের বিপরীতে থাকে। এক নজরে, অর্ধ শাড়ির পোশাকটি শাড়ির দক্ষিণ স্টাইলগুলির মতো দেখতে পারে কারণ কুচি একই দিকে হয়: স্কার্টের সামনের দিকে ঢোকানো , তারপরে কোমরের চারপাশে আবৃত এবং তারপরে বিপরীত কাঁধের উপর দিয়ে টানা হয়। তবে, ভোনি সংক্ষিপ্ত আকারের হয়ে থাকে। তদ্ব্যতীত, ভোনি কম সীমাবদ্ধ , পরিধানকারীকে অবাধে তার পা নাড়াতে দেয়।

বর্তমান দিনেসম্পাদনা

পশ্চিমা সংস্কৃতির প্রভাব এবং পোশাকটিকে অসুবিধে হিসাবে অনুধাবন দৈনন্দিন পোশাক হিসাবে অর্ধেক শাড়ি না পড়ার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। তবে ল্যাঙ্গা ভোনি আধুনিক সময়ের "লেহেঙ্গা ধাঁচের শাড়ি" হিসেবে অনুপ্রেরণা জাগিয়ে ফিরে এসেছে।

সাম্প্রতিক বছরগুলিতে, মিডিয়া এবং ফ্যাশনে মনোযোগ দেওয়ার কারণে ল্যাঙ্গা ওনি মেয়ে এবং যুবতীদের মধ্যে জনপ্রিয়তা অর্জন করছে। একসময়ের খুব সাধারণ, এখন অসাধারণ সূচিকর্ম, আয়না বা জারি কাজ এবং কালো এবং ধূসর রঙের মতো গাঢ় রঙগুলির সাথে দেখা যেতে পারে, যা একসময় অশুভ বিবেচিত হত। শিফন, জর্জেট, ক্রেপ এবং নাইলন সহ সাধারণ রেশম বা তুলা ছাড়াও কাপড়ের বিস্তৃত বৈচিত্র্য রয়েছে। পুরো শাড়িগুলি মাঝে মাঝে বোনা হয় যাতে ফ্যাব্রিকটি, যখন পরিধান করা হয়, তখন ল্যাঙ্গা ভোনির মতো কয়ারর জন্য নিতম্বের রঙ বা প্যাটার্ন পরিবর্তন হয়।

বয়সের অনুষ্ঠানে তাৎপর্যসম্পাদনা

দক্ষিণ ভারতের, বয়স সমারোহ অনুষ্ঠান(তেলুগু: లంగా వోని; তামিল: பட்டு பாவாடை; কন্নড়: ಲಂಗ ದಾವಣ), কোনো মেয়ে বয়ঃসন্ধিতে পৌঁছে গেলে উদযাপিত হয়। সে তার মাতামহ-দাদীদের দেওয়া ল্যাঙ্গা ভোনি পরে, যা অনুষ্ঠানের প্রথম অংশে পরে থাকে এবং তার পরে পিতৃ-দাদির দ্বারা প্রথম শাড়িটি দেওয়া হয়, যা সে অনুষ্ঠানের দ্বিতীয়ার্ধে পরেন। এটি তার নারীত্বের মধ্যে রূপান্তর চিহ্নিত করে।

কিছু সম্প্রদায়ের মাতৃ নানীদের থেকে ল্যাঙ্গা ভোনি দেয়ার ঐতিহ্যে মেয়েটির প্রথমে নামকরণ অনুষ্ঠান (নামকরণ) দিয়ে শুরু হয় এবং তার পর হয় ভাত খাওয়ানোর অনুষ্ঠান(অন্নপ্রাশন)।

ছবিসম্পাদনা

আরও দেখুনসম্পাদনা

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

 

  1. "Pavadai Dhavani"। Tamilnadu.com। ২৬ জানুয়ারি ২০১৩। ১১ এপ্রিল ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২১ ফেব্রুয়ারি ২০১৩