লেসলি ওয়ালকট

বার্বাডীয় ক্রিকেটার

লেসলি আর্থার ওয়ালকট (ইংরেজি: Leslie Walcott; জন্ম: ১৮ জানুয়ারি, ১৮৯৪ - মৃত্যু: ২৭ ফেব্রুয়ারি, ১৯৮৪) সেন্ট মাইকেল প্যারিশের ফন্তাবেলে এলাকায় জন্মগ্রহণকারী প্রথিতযশা ওয়েস্ট ইন্ডিয়ান আন্তর্জাতিক ক্রিকেটার ছিলেন। ওয়েস্ট ইন্ডিজ ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন তিনি। ঘরোয়া ক্রিকেটে বার্বাডোস ক্রিকেট দলের প্রতিনিধিত্ব করেন। দলে তিনি মূলতঃ ডানহাতি ব্যাটসম্যান হিসেবে খেলতেন। এছাড়াও ডানহাতে লেগ ব্রেক বোলিংয়ের পাশাপাশি উইকেট-রক্ষকেরও দায়িত্ব পালন করতেন লেসলি ওয়ালকট

লেসলি ওয়ালকট
লেসলি ওয়ালকট.png
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামলেসলি আর্থার ওয়ালকট
জন্ম(১৮৯৪-০১-১৮)১৮ জানুয়ারি ১৮৯৪
ফন্তাবেলে, বার্বাডোস
মৃত্যু২৭ ফেব্রুয়ারি ১৯৮৪(1984-02-27) (বয়স ৯০)
ফ্লিন্ট হল, সেন্ট মাইকেল, বার্বাডোস
ব্যাটিংয়ের ধরনডানহাতি
বোলিংয়ের ধরনডানহাতি লেগ ব্রেক
ভূমিকামাঝে-মধ্যে উইকেট-রক্ষক
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
একমাত্র টেস্ট
(ক্যাপ ২১)
১১ জানুয়ারি ১৯৩০ বনাম ইংল্যান্ড
ঘরোয়া দলের তথ্য
বছরদল
১৯২৫–১৯৩৬বার্বাডোস
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট এফসি
ম্যাচ সংখ্যা ১২
রানের সংখ্যা ৪০ ৫৫৫
ব্যাটিং গড় ৪০.০০ ৩০.৮৩
১০০/৫০ ০/০ ০/৫
সর্বোচ্চ রান ২৪ ৭৩*
বল করেছে ৪৮ ৭৮০
উইকেট ১৬
বোলিং গড় ৩২.০০ ২৯.৫০
ইনিংসে ৫ উইকেট
ম্যাচে ১০ উইকেট
সেরা বোলিং ১/১৭ ৩/৩০
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ০/০ ৮/১
উৎস: ইএসপিএনক্রিকইনফো.কম, ৮ জানুয়ারি ২০১৭

প্রারম্ভিক জীবনসম্পাদনা

কম্বারমেয়ার স্কুল ও হ্যারিসন কলেজে পড়াশোনা করেছেন। ১৯২৩ সালে হ্যারিসন কলেজে ক্রীড়াশিক্ষক হিসেবে যোগদান করেন। ১৯৩২ সালে লজ স্কুলে চলে যান। সেখানে তিনি উল্লেখযোগ্য অবদান রাখেন এবং উইলফ্রেড ফারমার, মাইকেল ফ্রেডরিক, জন গডার্ড, কেন গডার্ড, রয় মার্শাললরি জনসনের ন্যায় বার্বাডিয়ান খেলোয়াড়দেরকে প্রশিক্ষণ দেন।[১]

১৯২৫-২৬ মৌসুম থেকে ১৯৩৫-৩৬ মৌসুম পর্যন্ত প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে তার অংশগ্রহণ ছিল। ৪২ বছর বয়স পর্যন্ত বার্বাডোসের পক্ষে খেলা চালিয়ে যান। বেশকয়েকটি খেলায় দলের অধিনায়কত্বও করেন তিনি।

খেলোয়াড়ী জীবনসম্পাদনা

সফরকারী এমসিসি’র বিপক্ষে জানুয়ারি, ১৯৩০ সালে অপরাজিত ৭৩* রান তুলেন। ফলশ্রুতিতে স্বল্পকাল পরই নিজভূমিতে প্রথমবারের মতো অনুষ্ঠিত প্রথম টেস্ট খেলার জন্য মনোনীত হন। ঐ খেলায় ইংল্যান্ডের পক্ষে এফএসজি ক্যালথর্প, ডব্লিউ ভোস এবং ওয়েস্ট ইন্ডিজের পক্ষে এফআই ডি কেয়ার্স, জিএ হ্যাডলি, ইএসি হান্ট, জেইডি সিলি, এডউইন সেন্ট হিল এবং এলএ ওয়ালকটের একযোগে টেস্ট অভিষেক ঘটেছিল। ৩৫ বছর বয়সে ওয়েস্ট ইন্ডিজের উদ্বোধনী টেস্টে অংশ নেন তিনি। খেলায় তিনি ২৪ ও অপরাজিত ১৬* রান করেন। এছাড়াও বল হাতে জর্জ গানের উইকেট তুলে নেন।[২] তবে প্যাটসি হেনড্রেনলেস অ্যামিসের দৃঢ়তাপূর্ণ নৈপুণ্যে খেলাটি ড্রয়ে পরিণত হয়। কিন্তু চার খেলোয়াড়ের একজনরূপে দ্বিতীয় টেস্টে অংশগ্রহণে উপেক্ষিত হন। এরপর আর তাকে টেস্টে অংশ নিতে দেখা যায়নি যা এক টেস্টের বিস্ময়কারীরূপে পরিচিতি করে তোলে।

দেহাবসানসম্পাদনা

২৭ ফেব্রুয়ারি, ১৯৮৪ তারিখে ৯০ বছর বয়সে বার্বাডোসের সেন্ট মাইকেল প্যারিশে তার দেহাবসান ঘটে। তবে ক্লাইড ওয়ালকটের সাথে তার কোন সম্পর্ক নেই।[৩]

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

আরও দেখুনসম্পাদনা

বহিঃসংযোগসম্পাদনা