লীমা ধর (জন্মঃ ২২ ডিসেম্বর ১৯৯৩) একজন ভারতীয় ইংরেজি সাহিত্যিক।[১][২] বর্তমানে এদেশে যে কজন অনূর্ধ্ব পচিঁশ জনপ্রিয় ইংরেজি লেখিকা আছেন তাদের অন্যতম লীমা ধর।[৩] মাত্র ১৩ বছর বয়সেই লীমার প্রথম হিন্দি কাব্য সংকলন কুছ লফ্জ নকাব মে প্রকাশ পায়[৪]। সে সময় কিশোরী লীমা ছিলেন নবম শ্রেণীর ছাত্রী। এরপর ওঁর দ্বিতীয় কাব্য সংগ্রহ ফর দা হানড্রেড টুমোরোজ; এটি ইংরেজি ভাষায় লেখেন। সঙ্গে সঙ্গে লীমার খ্যাতি বেড়ে যায়, কারণ হিন্দি ও ইংরেজিতে তিনিই সবচেয়ে কম বয়সী কবি হিসেবে প্রতিপন্ন হন.ইংরেজিতে তার প্রথম উপন্যাস টিল উই মিট এগেন(২০১২) প্রকাশ হওয়ার দু সপ্তার মধ্যেই এটি ন্যাশনাল বেস্ট সেলার হয়ে যায়। এর পর আর থেমে থাকেন নি; পরপর এক এক করে প্রকাশ পায় তার বাকি তিনখানি উপন্যাস: মম এন্ড আই লাভ এ টেররিস্ট (ডিসেম্বর ২০১২), দা গার্ল হু কিস্ড দা স্নেক (জুন ২০১৩)[৫]. ওঁর চতুর্থ উপন্যাস ইউ টাচ্ড মাই হার্ট(ডিসেম্বর ২০১৩)-এর ই-বুক সংস্করণ জাতীয় ও আন্তর্জাতিক বেস্ট সেলার নির্বাচিত হয়[৬]. হিন্দুস্তান টাইমস ডিসেম্বর ২০১৩ সংস্করণে লীমার সম্পর্কে লেখে: ওঁর সাবলীল গদ্য, কাহিনী নির্বাচন এবং গল্প বলার শৈলী ওঁর বইগুলোকে বেস্ট সেলার তৈরি করে...

লীমা ধর
Author Leema Dhar (2).jpg
জন্ম(১৯৯৩-১২-২২)২২ ডিসেম্বর ১৯৯৩
জাতীয়তাভারতীয়
মাতৃশিক্ষায়তনসেন্ট মেরিজ কনভেন্ট, এলাহাবাদ বিশ্ববিদ্যালয়
পেশালেখিকা
উল্লেখযোগ্য কর্ম
টিল উই মিট এগেন, মম এন্ড আই লাভ এ টেররিস্ট, দা গার্ল হু কিস্ড দা স্নেক, ইউ টাচ্ড মাই হার্ট, কুছ লফ্জ নকাব মে, ফর দা হানড্রেড টুমোরোস ইত্যাদি
ওয়েবসাইটwww.writerleema.com
স্বাক্ষর
Leema Dhar

এ বছর ফেব্রুয়ারিতে (২০১৬) প্রকাশ পেয়েছে লীমার পঞ্চম উপন্যাস দা কমিটেড সিন। মহানগর কলকাতা ও কয়লাখনি অঞ্চল আসানসোলকে পটভূমি করে লেখা এই উপন্যাসে তিনি দেখিয়েছেন নাগরিক জীবনের শূন্যতা ও মুখোশের নিচে মানব জীবন ও জমিনের সত্যিকারের অবস্থান।

সাহিত্যকে পেশা করার স্বপ্ন নিয়ে পোস্ট-গ্র্যাজুয়েসনের ফাইনাল ইয়ারের ছাত্রী তাই লেখালেখির বাইরে হিন্দুস্তান টাইমস, হিন্দুস্তান, দৈনিক জাগরণ, অমর উজালাইয়ুথ অ্যাকশন সহ বিভিন্ন পত্র পত্রিকায় নিয়মিত কলাম লেখেন[৭].

সংক্ষিপ্ত জীবনীসম্পাদনা

লীমা ধর ১৯৯৩ খ্রিষ্টাব্দের ২২শে ডিসেম্বর ভারতের উত্তর প্রদেশের এলাহাবাদে জন্মগ্রহণ করেন। যদিও তার পিত্রালয় ছিল বাঁকুড়া জেলার মেজিয়ায়; তবে তার বাবা সাহিত্যক সমীর ধর কর্মসূত্রে প্রবাসে এলাহাবাদে থাকায় এখানেই তার স্কুল ও কলেজ জীবন কাটে। লীমা এলাহাবাদ শহরের সেন্ট মেরিজ কনভেন্ট থেকে বিজ্ঞান নিয়ে পড়াশোনা করেন এবং অল ইন্ডিয়া ইঞ্জিনিয়ারিং প্রবেশ পরীক্ষায়(২০১১) সসম্মানে উত্তীর্ণ হয়েও সাহিত্যক হওয়ার নেশায় ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অফ ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজে যোগ দিয়েও শেষ মুহূর্তে এলাহাবাদ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে মনস্তত্ত্ব ও ইংরেজি নিয়ে স্নাতক স্তরে ভর্তি হন। ইংরেজি নিয়ে এম.এ করতে করতে তার অনন্যসাধারণ লেখনীর জন্য ইন্দো-কানাডিয়ান লেখক সম্মান পান(২০১৫)[৮].বর্তমানে উনি দেশের অন্যতম কেন্দ্রিয় বিশ্ববিদ্যালয়, ইউনিভার্সিটি অফ এলাহাবাদ থেকে পিএইচডি করছেন- শার্লে ব্রন্টের 'জেন আয়র' এবং এন ব্রন্টের 'অগ্নেস গ্রে'-র নারীবাদী চেতনার উন্মেষ ও বিকাশ নিয়ে। নারীবাদে বিশ্বাসী লেখিকা লীমা নিজেও বর্তমানে নারী স্বাধীনতা-কেন্দ্রিক তার আগামী উপন্যাস লেখায় ব্যস্ত[৯]

উপন্যাসসম্পাদনা

ইংরেজি কাব্য সংগ্রহসম্পাদনা

হিন্দি কাব্য সংগ্রহসম্পাদনা

পুরস্কারসম্পাদনা

  • ইন্দো-কানাডিয়ান লেখক সম্মান (২০১৫)
  • জি-টিভি নারী সম্মান (২০১৫)
  • হিন্দুস্তান টাইমস ‘উওমেন এচিভার অ্যাওয়ার্ড’-এর জন্য মনোনীত হন (২০১১),(২০১২)ও(২০১৩)
  • বায়োবেদ উওমেন এচিভার অ্যাওয়ার্ড (২০১৪)
  • রেড এফ.এম. সেলিব্রিটি অফ দা ইযার (২০১৪)
  • উওমেন এচিভার অ্যাওয়ার্ড (২০১৩)
  • হিন্দুস্তান পত্রিকা নির্বাচিত করে ‘নিউস মেকার এফ দা ইয়ার’(২০১২)
  • ইনার হইল নির্বাচিত করে ‘ইয়ান্গেস্ট এচিভার অফ এশিয়া’ (২০১১)

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "lime light(Novel Belle)"The Telegraph (Calcutta),India। ৮ মে ২০১৬। 
  2. Dr. Sufian Ahmad & Sri Biswajit Sinha (ed.) (২০১৫)। WHO’S WHO OF INDIAN WRITERS, 2015: A-MSahitya Akademiআইএসবিএন 978-81-260-4812-0। ৮ মে ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৮ মে ২০১৬ 
  3. Menon, Manini (২০ ফেব্রুয়ারি ২০১৬)। "A Few Must Read Books Of Contemporary Women Novelist Who Are Below 25"women's web for women who do। India: Manini Menon। 
  4. "হিন্দি-ইংরেজিতে সাহিত্যসৃষ্টি করে নজর কেড়েছেন বঙ্গললনা লীমা"Ananadabazar Patrika, India। ৩ জুন ২০১৬। 
  5. "युवा लेखिका लीमा धर के खाते में एक और उपलब्धि"। Allahabad, India: Amar Ujala.। ২২ জুন ২০১৩। 
  6. "लीमा वनीं ऑनलाइन बेस्ट सेलर लेखिका"। Allahabad, India: Dainik Jagran.। ২০ জুন ২০১৪। 
  7. "It's An Apple, Either Way…"। Indore, India: Youth Action.। ১৩ আগস্ট ২০১৫। ১৩ এপ্রিল ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৫ এপ্রিল ২০১৬ 
  8. "28 IACS International Conference(India-Canada)"। Allahabad, India: University of Allahabad.। ৬ জানুয়ারি ২০১৫। ৩ এপ্রিল ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৫ এপ্রিল ২০১৬ 
  9. "बुलंदी की आसमां (ब्रॉंटे बहनों की बात बखूबी कर रहीं लीमा)"Allahabad, India: Amar Ujala। মার্চ ২০১৯। [স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]
  • Kumar, K Sandeep (২৪ এপ্রিল ২০১৬)। "CITY GIRL OUT WITH HER NEW FICTION"Hindustan Times, India। ২৭ এপ্রিল ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৮ মে ২০১৬ 
  • "A small bundle of talent" (PDF)The Global Times। New Delhi, India: Ritnand Balved Education Foundation (an umbrella organization of the Amity Educational Institutions)। ৮ এপ্রিল ২০১৩। 
  • "Author's Page"। Amazon.com.।