রূপকুমার রাঠোড়

ভারতীয় সুরকার

রূপকুমার রাঠোড় (জন্ম ১০ জুন ১৯৭৩) হলেন একজন ভারতীয় নেপথ্য সঙ্গীতশিল্পী। তিনি বলিউড, গুজরাতি, মারাঠি, তামিল, তেলুগু, বাংলা, ওড়িয়া, অসমীয়া, নেপালি ও ভোজপুরি চলচ্চিত্রের গান গেয়ে থাকেন। তিনি শাস্ত্রীয় সঙ্গীতজ্ঞ পণ্ডিত চতুর্ভুজ রাঠোড়ের পুত্র এবং সঙ্গীতশিল্পী বিনোদ রাঠোড় ও সঙ্গীত পরিচালক শ্রাবণ রাঠোড়ের ভাই। তিনি বর্ডার (১৯৯৭) চলচ্চিত্রের "সন্দেশে আতা হ্যায়" গানে কণ্ঠ দিয়ে সোনু নিগমের সাথে যৌথভাবে শ্রেষ্ঠ পুরুষ নেপথ্য কণ্ঠশিল্পী বিভাগে ফিল্মফেয়ার পুরস্কারের মনোনয়ন লাভ করেন।

রূপকুমার রাঠোড়
রূপকুমার রাঠোড়
জন্ম (1962-09-12) সেপ্টেম্বর ১২, ১৯৬২ (বয়স ৬১)
জাতীয়তাভারতীয়
পেশানেপথ্য সঙ্গীতশিল্পী
কর্মজীবন১৯৮৯–বর্তমান
দাম্পত্য সঙ্গীসুনালি রাঠোড়[১]
পিতা-মাতাচতুর্ভুজ রাঠোড় (পিতা)
আত্মীয়বিনোদ রাঠোড় (ভাই)
শ্রাবণ রাঠোড় (ভাই)
সঞ্জীব-দর্শন (ভাইপো)
সঙ্গীত কর্মজীবন
উপনামরূপকুমার, রূপ কুমার, রূপ কুমার রাঠোড়
ধরন
বাদ্যযন্ত্রকণ্ঠ, তবলা

প্রারম্ভিক জীবন

সম্পাদনা

রূপকুমার রাঠোড় 1962 সালের 12ই sep মহারাষ্ট্র রাজ্যের মুম্বইয়ে জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতা পণ্ডিত চতুর্ভুজ রাঠোড় ছিলেন একজন শাস্ত্রীয় সঙ্গীতজ্ঞ। তার দুই ভাই শ্রাবণ রাঠোড় সঙ্গীত পরিচালক ও বিনোদ রাঠোড় সঙ্গীতশিল্পী। তার ভাইপো সঙ্গীত পরিচালক যুগল সঞ্জীব-দর্শন[২]

কর্মজীবন

সম্পাদনা

রূপকুমারের সঙ্গীতজীবন শুরু হয় তবলা বাদক হিসেবে। ১৯৮০-এর দশকে প্রায় সকল গজল শিল্পী তাকে তবলা বাদক হিসেবে নির্বাচন করতেন।

নেপথ্য সঙ্গীতশিল্পী হিসেবে তার অভিষেক ঘটে অঙ্গার (১৯৯২) চলচ্চিত্র দিয়ে। পরের বছর তিনি লক্ষ্মীকান্ত-প্যায়ারেলালের সুরে গুমরাহ চলচ্চিত্রের "ম্যাঁয় তেরা আশিক হুঁ" গানে কণ্ঠ দেন। বর্ডার (১৯৯৭) চলচ্চিত্রের "সন্দেশে আতা হ্যায়" গানটি তার কর্মজীবনের অন্যতম সাফল্য। গানটি ব্যাপক জনপ্রিয়তা লাভ করে এবং এই গানের জন্য তিনি সোনু নিগমের সাথে যৌথভাবে শ্রেষ্ঠ পুরুষ নেপথ্য কণ্ঠশিল্পী বিভাগে ফিল্মফেয়ার পুরস্কারের মনোনয়ন লাভ করেন।

২০০০-এর দশকে তার গাওয়া বীর-জারা (২০০৩) চলচ্চিত্রের "তেরে লিয়ে", আনোয়ার (২০০৭) চলচ্চিত্রের "মওলা মেরে মওলা", রব নে বানা দে জোড়ি (২০০৮) চলচ্চিত্রের "তুঝ মেঁ রব দেখতা হ্যায়" গানসমূহ জনপ্রিয়তা লাভ করে।[৩]

ব্যক্তিগত জীবন

সম্পাদনা

রূপকুমার সঙ্গীতশিল্পী সুনালি রাঠোড়কে বিয়ে করেন।[১] সুনালি পূর্বে ভজন শিল্পী অনুপ জালোটার স্ত্রী ছিলেন। রূপকুমার জালোটার বন্ধ ও তবলা বাদক ছিলেন। জালোটার সাথে সুনালির বিবাহবিচ্ছেদের পর রূপকুমার সুনালিকে বিয়ে করেন।[৩] এই দম্পতির এক কন্যা রয়েছে, তিনি হলেন রিওয়া রাঠোড়।

তথ্যসূত্র

সম্পাদনা
  1. বিজয়কর, আর. এম. (১৪ জুন ২০১৯)। "Sunali Rathod's Birthday Surprise for Husband Roopkumar Rathod: See Pics"ইন্ডিয়া ওয়েস্ট (ইংরেজি ভাষায়)। ১৭ জুলাই ২০২১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৭ এপ্রিল ২০২০ 
  2. "Vinod Rathod nixes remix funda"হিন্দুস্তান টাইমস (ইংরেজি ভাষায়)। ১৫ জানুয়ারি ২০০৬। সংগ্রহের তারিখ ২৭ এপ্রিল ২০২০ 
  3. দেবী, নিশা (২৩ মার্চ ২০১১)। "Roopkumar Rathod and Sunali Rathod"দেসি ব্লিট্‌জ (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২৭ এপ্রিল ২০২০ 

বহিঃসংযোগ

সম্পাদনা