রিয়াসি জেলা

জম্মু ও কাশ্মিরের একটি জেলা

রিয়াসি জেলা হল ভারতের কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল জম্মু ও কাশ্মীরের একটি জেলা। রিয়াসি জেলাটির পূর্বদিকে উধমপুর জেলা এবং রামবন জেলা, দক্ষিণে জম্মু জেলা, পশ্চিমে রাজৌরি জেলা এবং উত্তরে কুলগাম জেলা। ১৯৪৭ সালে দেশীয় রাজ্যগুলির ভারতে প্রবেশের সময় রিয়াসি ও রাজৌরি তহশিলগুলি "রিয়াসি জেলা" নামে একটি যৌথ জেলা গঠন করেছিল। এরপর পুনর্গঠন করে, দুটি তহসিলকে পৃথক করা হয়েছিল এবং রিয়াসিকে উধমপুর জেলার সাথে মিলিয়ে দেওয়া হয়েছিল। ২০০৬ সালে এটি আবার একটি পৃথক জেলাতে পরিণত হয়।[১]

রিয়াসি জেলা
জম্মু ও কাশ্মীর জেলা
জম্মু ও কাশ্মীরে রিয়াসি জেলার অবস্থান
জম্মু ও কাশ্মীরে রিয়াসি জেলার অবস্থান
স্থানাঙ্ক (রিয়াসি): ৩৩°০৫′ উত্তর ৭৪°৫০′ পূর্ব / ৩৩.০৯° উত্তর ৭৪.৮৪° পূর্ব / 33.09; 74.84স্থানাঙ্ক: ৩৩°০৫′ উত্তর ৭৪°৫০′ পূর্ব / ৩৩.০৯° উত্তর ৭৪.৮৪° পূর্ব / 33.09; 74.84
দেশভারত
কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলজম্মু ও কাশ্মীর
বিভাগজম্মু বিভাগ
সদর দপ্তররিয়াসি
তহশিল১. গুল-গুলাবার্গ, ২. রিয়াসি, ৩. পৌনি
আয়তন
 • মোট১,৭১৯ বর্গকিমি (৬৬৪ বর্গমাইল)
জনসংখ্যা (২০১১)
 • মোট৩,১৪,৬৬৭
 • জনঘনত্ব১৮০/বর্গকিমি (৪৭০/বর্গমাইল)
 • পৌর এলাকা৮.৬
জনসংখ্যার উপাত্ত
 • সাক্ষরতা৫৮.১৫%
 • যৌন অনুপাত৮৯০
সময় অঞ্চলআইএসটি (ইউটিসি+০৫:৩০)
যানবাহন নিবন্ধনজেকে-২০
ওয়েবসাইটhttp://reasi.gov.in

রিয়াসি জম্মু ও কাশ্মীর রাজ্যের প্রাচীন শহরগুলির মধ্যে অন্যতম। এটি পূর্ববর্তী ভীমগড় রাজ্যের আসন ছিল, মনে করা হয় যে রাজা ভীম দেব ৮ম শতাব্দীর কোন একসময় এই শহর প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। ১৮২২ সাল অবধি এটি একটি স্বতন্ত্র দেশীয় রাজ্য ছিল, জম্মু পার্বত্য অঞ্চলের রাজা গুলাব সিং, শিখ সাম্রাজ্যের অধীনে, ছোট রাজ্যগুলিকে একীভূত করেছিলেন।

ভূগোলসম্পাদনা

রিয়াসি জম্মু থেকে ৬৪ কিমি দূরত্বে অবস্থিত। এর উত্তরে গুল-গুলাবগড় তহশিল, পশ্চিমে রাজৌরি জেলার সুন্দরবাণী এবং কালকোট তহশিল, পূর্বে উধমপুর তহশিল, দক্ষিণে জম্মু জেলার জম্মু এবং আখনূর তহশিল। জলবায়ুগতভাবে এই উপ-বিভাগের একটি বড় অংশ উপ-ক্রান্তীয় অঞ্চলে এবং বাকী অংশ নাতিশীতোষ্ণ অঞ্চলে পড়েছে। গ্রীষ্মকাল সাধারণত উষ্ণ থাকে ও শীতকালে ঠাণ্ডা পড়ে এবং উঁচু প্রান্তগুলিতে তুষারপাত হয়। খুব সুন্দর বিষয় হল গ্রীষ্মে রিয়াসির তাপমাত্রা শীতকালে জম্মুর বেশিরভাগ জেলার চেয়ে কম থাকে, এবং শীতকালে, এটির তাপমাত্রা জম্মুর অন্যান্য জেলার চেয়ে বেশি থাকে। জলবায়ুর এই বৈচিত্র্যের ফলে রিয়াসিতে অবস্থান সকলের পক্ষে এবং সকল মরশুমে আরামদায়ক থাকে।

হিন্দু স্থলসম্পাদনা

প্রধান হিন্দু তীর্থস্থানগুলি, যেমন বৈষ্ণো দেবী, শিব খোরি, বাবা ধনসার এবং সিয়াদ বাবা জলপ্রপাত এই জেলায় অবস্থিত। এর ফলে রিয়াসি জেলায়, বিশেষত গ্রীষ্মে, প্রচুর লোকের ভিড় হয়।

পৌঁছোনোর উপায়সম্পাদনা

জম্মু – উধমপুর – শ্রীনগর মহাসড়ক ১-এ থেকে অনেক দূরে অবস্থিত হওয়ায় এবং পার্বত্য অঞ্চলের কারণে কিছুটা দুর্গম হওয়ায়, রিয়াসির বেশিরভাগ পার্বত্য অঞ্চলে অর্থনৈতিক অগ্রগতির হার বেশ কম। রিয়াসির কাছে ধ্যানগড়ে সালাল জলবিদ্যুৎ প্রকল্প চালু করার সাথে সাথে, এই এলাকার অর্থনৈতিক ক্রিয়াকলাপ যথেষ্ট পরিমাণে বৃদ্ধি পেয়েছে। এই প্রকল্পের নির্মাণ কাজটি জাতীয় জলবিদ্যুৎ বিদ্যুৎ কর্পোরেশন (এনএইচপিসি) দ্বারা ১৯৭০ সালে শুরু হয়েছিল এবং প্রকল্পটি ১৯৮৭ সালে চালু হয়েছিল। প্রথম ধাপে ৩৪৫ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদনের কাজটি শেষ হয়েছিল এবং বাকি দ্বিতীয় পর্যায়ের প্রকল্পের ৩৪৫ মেগাওয়াট উৎপাদন ১৯৯৫ সালে চালু হয়েছিল। মোট উৎপাদন গিয়ে পৌঁছেছিল ৬৯০ মেগাওয়াটে। এই প্রকল্পের শক্তি উত্তর গ্রিডে প্রবাহিত হয় যেখান থেকে এটি বিতরণ করা হয় জম্মু ও কাশ্মীর, পাঞ্জাব, হরিয়ানা, দিল্লি, হিমাচল প্রদেশ, রাজস্থান, উত্তরপ্রদেশ এবং চণ্ডীগড়ে

নির্মাণাধীন জম্মু-শ্রীনগর – বারামুল্লা রেলপথ লাইন রিয়াসি জেলার মধ্য দিয়ে গেছে। ৪ঠা জুলাই ২০১৪ তারিখে কাটরা অবধি রেলপথটি উদ্বোধন করেছিলেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী, শ্রী মাতা বৈষ্ণো দেবী কাটরা রেলওয়ে স্টেশন থেকে। কাটরা থেকে রেলওয়ে লাইনটি রিয়াসি, বানিহাল অঞ্চলের রিয়াসি, সালাল এ-সালাল বি, সুরুকোট, বারালা, সাংগালদন, কোহলি এবং লাওল স্টেশন হয়ে গেছে। চিনাব নদীর উপর দিয়ে ১৩১৫ মিটার দীর্ঘ রেলওয়ে সেতুটি নির্মিত হচ্ছে, যেটি নদীতল থেকে ৩৮৩.১০ মিটার উঁচুতে। এটি বিশ্বের সর্বোচ্চ সেতু হবে। এই রেললাইনটি দেশের রেল মানচিত্রে রিয়াসিকে নিয়ে আসবে এবং এই অঞ্চলে উন্নয়ন ও সমৃদ্ধিকে ত্বরান্বিত করবে।

জনসংখ্যার উপাত্তসম্পাদনা

রিয়াসি জেলায় ধর্ম (২০১১)[২]

  ইসলাম (৪৯.৬৬%)
  হিন্দুধর্ম (৪৮.৯১%)
  শিখধর্ম (০.৯৯%)
  অন্য (০.০০%)
  নাস্তিক (০.০৫%)

২০১১ সালের আদমশুমারি অনুসারে রিয়াসি জেলার জনসংখ্যা ৩১৪,৬৬৭ জন,[৩][৪] বাহামার জনসংখ্যার প্রায় সমান।[৫] জনসংখ্যার ভিত্তিতে এটি ভারতে ৫৭০তম স্থানে আছে (মোট ৬৪০ জেলার মধ্যে)।[৪] জেলার জনসংখ্যার ঘনত্ব ১৮৪ জন প্রতি বর্গকিলোমিটার (৪৮০ জন/বর্গমাইল)।[৪] এর জনসংখ্যা বৃদ্ধির হার ২০০১ - ২০১১ এর দশকে ২৭.০৬% ছিল।[৪] রিয়াসিতে প্রতি ১০০০ পুরুষের জন্য ৮৯১ জন মহিলা (যৌন অনুপাত) রয়েছে,[৪] এবং ভারতে সাক্ষরতা সাক্ষরতার হার ৫৯.৪২%।[৪]

রিয়াসির জনসংখ্যায় মুসলমান এবং হিন্দু প্রায় সমান শতাংশের মিশ্রণে আছে এবং সহনশীল ও শান্তিপূর্ণ ধর্মীয় সহাবস্থানের একটি উদাহরণ স্থাপন করেছে। রিয়াসির জনসংখ্যার ৪৯.৬৭% মুসলমান এবং ৪৮.৯০% হিন্দু

রিয়াসিতে কথিত প্রধান ভাষাগুলি হল - উর্দু, কাশ্মীরি, পাঞ্জাবী, ডোগরি এবং গোজরি

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. Jammu and Kashmir to have eight new districts, Indo-Asian News Service, 6 July 2006.
  2. "C-1 Population By Religious Community"। Census। সংগ্রহের তারিখ ১০ জুন ২০১৯ 
  3. http://www.censusindia.gov.in/pca/default.aspx
  4. "District Census 2011"। Census2011.co.in। ২০১১। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-০৯-৩০ 
  5. US Directorate of Intelligence। "Country Comparison:Population"। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-১০-০১Bahamas, The 313,312 

https://web.archive.org/web/20180930175247/http://reasi.gov.in/about.html

বহিঃসংযোগসম্পাদনা

টেমপ্লেট:Jammu and Kashmir topics