প্রধান মেনু খুলুন

রিচার্ড ওয়েলেসলি, প্রথম মার্কাস ওয়েলেসলি

ব্রিটিশ রাজনীতিবিদ

রিচার্ড কলি ওয়েসলি, 1 ম মার্কাস ওয়েলেসলি, KG, PC, PC (Ire) (২০ ই জুন ১৭৬০ - ২৬ শে সেপ্টেম্বর ১৮৪২), জন্ম থেকে ১৭৮১ হওয়া পর্যন্ত Viscount ওয়েলেসলি স্টাইল এবং Mornington আর্ল নামে পরিচিত ১৭৮১ থেকে ১৭৯৯ পর্যন্ত একটি এংলো আইরিশ রাজনীতিবিদ এবং ঔপনিবেশিক প্রশাসক ছিলেন।

সর্বাধিক মাননীয়
মার্কাস ওয়েলেসলি
KG, PC
Richard Wellesley.jpeg
ভারতের গভর্নর জেনারেল, ফোর্ট উইলিয়াম প্রেসিডেন্সীর গভর্নর জেনারেল
কাজের মেয়াদ
১৮ ই মে ১৭৯৮ – ৩০ শে জুলাই ১৮০৫
সার্বভৌম শাসকজর্জ তৃতীয়
প্রধানমন্ত্রীউইলিয়াম পিটের ইয়ঙ্গার
হেনরি Addington
পূর্বসূরীস্যার Alured ক্লার্ক
(কাচা)
উত্তরসূরীMarquess কর্নওয়ালিস
ফরেন ও কমনওয়েলথ বিষয়ক স্টেট সচিব ও পররাষ্ট্র বিষয়ক সেক্রেটারী অব স্টেট
কাজের মেয়াদ
৬ ই ডিসেম্বর ১৮০৯ – 4 ই মার্চ ১৮১২
সার্বভৌম শাসকজর্জ তৃতীয়
প্রধানমন্ত্রীHon. স্পেন্সর Perceval
পূর্বসূরীআর্ল Bathurst
উত্তরসূরীViscount Castlereagh
আয়ারল্যান্ড র লর্ড লেফটেন্যান্ট
কাজের মেয়াদ
৮ ই ডিসেম্বর ১৮২১ – ২৭ শে ফেব্রুয়ারি ১৮২৮
সার্বভৌম শাসকজর্জ চতুর্থ
প্রধানমন্ত্রীলিভারপুল আর্ল
জর্জ ক্যানিং
Viscount Goderich
পূর্বসূরীআর্ল Talbot
উত্তরসূরীAnglesey এর Marquess
কাজের মেয়াদ
১২ ই সেপ্টেম্বর ১৮৩৩ – নভেম্বর ১৮৩৪
সার্বভৌম শাসকউইলিয়াম চতুর্থ
প্রধানমন্ত্রীআর্ল গ্রে
পূর্বসূরীAnglesey এর Marquess
উত্তরসূরীHaddington আর্ল
ব্যক্তিগত বিবরণ
জন্মDangan কাসল, কাউন্টি Meath
মৃত্যু১৬ সেপ্টেম্বর ১৮৪২(1842-09-16) (বয়স ৮২)
Knightsbridge, লন্ডন
জাতীয়তাব্রিটিশ
রাজনৈতিক দলইংলণ্ডের রাজনৈতিক দলবিশেষ
দাম্পত্য সঙ্গী(১) hyacinthe Gabrielle রোল্যান্ড
(১৭৬৬-১৮১৬)
(২) Marianne Caton (ডি ১৮৫৩)
প্রাক্তন শিক্ষার্থীখ্রীষ্টের চার্চ, অক্সফোর্ড

তিনি চিলেকোঠা ওয়েসলি, ১ম আর্ল Mornington এর, একজন আইরিশ পিয়ার, এর জ্যেষ্ঠ পুত্র ছিলেন এবং অ্যান, আর্থার হিল-ট্রেভর, ১ম Viscount DUNGANNON এর জ্যেষ্ঠ কন্যা; এবং ওয়েলিংটন এর আর্থার ওয়েলেসলি, ১ম ডিউক র ভাই। প্রথমে তাঁর নাম ছিল গভর্নর জেনারেল ভারতের হিসেবে ১৭৯৮ এবং ১৮০৫ এর মধ্যে এবং পরে পররাষ্ট্র সচিব হিসেবে ব্রিটিশ মন্ত্রিপরিষদ এ কাজ করেন এবং পরে আয়ারল্যান্ড র লর্ড লেফটেন্যান্ট হিসেবে।

পরিচ্ছেদসমূহ

শিক্ষা এবং প্রাথমিক কর্মজীবনসম্পাদনা

ওয়েলেসলি ১৭৬০ সালে জন্মগ্রহণ করেন আয়ারল্যান্ড এ। তিনি পড়াশুনো করেছিলেন রয়েল স্কুল, Armagh, মই স্কুল এবং এটন কলেজ এ, যেখানে তিনি একটি শাস্ত্রীয় পণ্ডিত হিসাবে নিজেকে আলাদা করেছিলেন অন্যান্যদের থেকে এবং খ্রীষ্টের চার্চ, অক্সফোর্ড এও তিনি পড়াশুনো করেছিলেন।

১৭৮০ সালে তিনি কমন্স আইরিশ হাউস এ যোগদান করেছিলেন ট্রিম হিসেবে পরের বছর পর্যন্ত এবং পরের বছর তাঁর পিতার মৃত্যুর পরবর্তী সামায়ে তিনি হয়ে ওঠেন মরনিন্টন এর দ্বিতীয় আর্ল, লর্ডস আইরিশ হাউসে তাঁর আসন গ্রহণ করে। ১৭৮২ সালে তিনি পরের বছরের জন্য অনুষ্ঠিত একটি পোস্টে আয়ারল্যান্ডের গ্র্যান্ড লজ এর গ্র্যান্ড মাস্টার হিসেবে নির্বাচিত হন। [১] তাঁর পিতা ও পিতামহের অপচয় এর দরুন, নিজে ঋণী হয়ে তিনি শেষ পর্যন্ত সব আইরিশ এস্টেটে বিক্রি করতে বাধ্য হন।

১৭৮৪ সালে তিনি বেরে আলস্টন এর জন্য সদস্য হিসাবে ব্রিটিশ হাউসে যোগ দেন। এর ঠিক পরেই তিনি একটি লর্ড অফ ট্রেজারি নিযুক্ত হন উইলিয়াম পিটের ইয়ঙ্গার কর্তৃক।

১৭৯৩ সালে তিনি ভারতীয় বিষয়াবলি উপর নিয়ন্ত্রণ বোর্ডের একজন সদস্য হয়ে ওঠেন; এবং তিনি সর্বোত্তম পিট এর পররাষ্ট্র নীতি রক্ষার তাঁর বক্তৃতার জন্য পরিচিত ছিল। তিনি ১৭৯৭ সালে তিনি ভারতের গভর্নর জেনারেল অফিস গ্রহণ করার সময় থেকে ভারতের উপর তাঁর শাসন যাতে কার্যকরী হয়, সেই প্রাচ্যের বিষয়ক সঙ্গে জানাশোনা হয়।

ভারতে কাজসম্পাদনা

 
তাঁর লাল প্রলিপ্ত অফিসার এর উর্দিতে ওয়েলেসলি

মরনিন্টন ১৭৯৭ থেকে ১৭৯৩ সাল পর্যন্ত পিট এর বড় রাজনৈতিক আত্মা ধরা হয়েছে বলে মনে হয়। উভয় সচেতনভাবে আমেরিকান উপনিবেশে ক্ষতির ক্ষতিপূরণ মেটানোর জন্য ভারতে একটি বড় সাম্রাজ্য অর্জনের নকশা গঠিত করেছিল এটা প্রমানিত হয় না; কিন্তু ইউরোপের দ্বন্দ্ব সাম্রাজ্য ছিল ফ্রান্স, ফরাসি প্রজাতন্ত্রের বিরুদ্ধে প্রধান জোটের পর জোট ব্রিটেনে স্থাপিত হয়, এবং এর সঙ্গে সঙ্গেই ভারতে মরনিন্টন এর ব্রিটিশ ক্ষমতার বিরাট এবং দ্রুত সম্প্রসারণ হয়। রবার্ট ক্লাইভ জেতেন এবং ওয়ারেন হেস্টিংস ভারতে ব্রিটিশ কর্তৃত্ব দৃঢ় ও মজবুত করেন কিন্তু মরনিন্টন একটি সাম্রাজ্য মধ্যে প্রসারিত হয়। [২] সমুদ্রযাত্রায় তিনি, ডেকান এ ফরাসি প্রভাব প্রধ্বংসী নকশা গঠিত করেন। তাঁর অবতরণ করার পর, এপ্রিল ১৭৯৮ সালে তিনি বুঝেছেন যে একটি জোট টিপু সুলতান এবং ফরাসি প্রজাতন্ত্র এর মধ্যে দরকষাকষির হচ্ছে। মরনিন্টন শত্রু কর্ম মীমাংসা, এবং যুদ্ধের জন্য প্রস্তুতির আদেশ দেন। হায়দ্রাবাদ প্রথম ধাপে নিজামএর দ্বারা ফরাসি সৈন্য ভেঙে দেওয়ার প্রভাব ফেলেছিল। [৩]

মাইসোর আক্রমণ হয়েছিল ১৭৯৯ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে এবং এটির উপসংহার খুব দ্রুতগতিতে আনা হয়েছিল সেরিঙ্গাপতম কে নিজের অধীনে এনে এবং টিপু সুলতান এর হত্যাকাণ্ডের দ্বারা। এই ঘটনাটি ঘটেছিল ১৭৯৯ সালের ৪ ই ফেব্রুয়ারী। ১৮০৩ সালে দ্বিতীয় অ্যাংলো-মারাঠা যুদ্ধ হয়েছিল পেশোয়া পুনরূদ্ধার করতে যাতে ওয়েলেসলির ভাই আর্থার প্রধান ভূমিকা নিয়েছিলেন। এই যুদ্ধটা হয়েছিল সিন্ধু এবং বেরারের রাজার মধ্যে। এর পরেই পুর ভারত জুড়ে ব্রিটিশ শাসন শুরু হয়। তিনি ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানি নামে একটি বাণিজ্যিক সংস্থা তৈরি করেন। তিনি একজন চমৎকার প্রশাসক ছিলেন এবং তাঁর কর্মী হিসেবে তিনি তাঁর দুই প্রতিভাবান দুই ভাইকে। একজন হলেন আর্থার তাঁর সামরিক উপদেষ্টা, এবং অন্যজন হেনরি তার ব্যক্তিগত সচিব। তিনি ফোর্ট উইলিয়াম কলেজ নামে একটি প্রশিক্ষণ কেন্দ্র প্রতিষ্ঠা করেন, যারা ভারতের শাসক জড়িত হবে তাঁদের জন্য। তিনি এখানে গভর্নর জেনারেল কার্যালয় প্রতিষ্ঠা করেন তাঁদের জন্যই যারা কলেজে কিছু প্রতিভা দেখানোর চেষ্টা করেছেন। পিটের ছিলেন একজন মুক্ত ব্যবসায়ী, তিনি ব্রিটেন ও ভারতের মধ্যে বাণিজ্য বিধিনিষেধ কিছু অপসারণ করতে চেষ্টা করেছিলেন। [৪]

ওয়েলেসলির বাণিজ্যিক নীতি এবং তার শিক্ষাগত প্রকল্প উভয়েই আদালতের সঙ্গে তাঁর শত্রুতা চলে, এরপরই তিনি পদত্যাগ করতে চান কিন্তু মানুষের দাবিতে তা পিছিয়ে যায় ১৮০৫ এর শরৎ পর্যন্ত। তিনি মৃত্যুর আগে পিটকে দেখতে ইংল্যান্ডে পৌঁছেছিলেন। তিনি পিয়র হিসেবে ১৭৯৭ সালে নিযুক্ত হন এবং ১৭৯৯ সালে তিনি মার্কাস ওয়েলেসলি হয়ে ওঠেন। [note ১][৫]। তিনি ভারতীয় প্রাকৃতিক ইতিহাস কোম্পানির শৈলী সম্বন্ধীয় ২৫০০ র বেশি আঁকা মিনিয়েচার এর বিরাট সংগ্রহ গঠন করেন।

গভর্নর হিসেবেসম্পাদনা

লর্ড ওয়েলেসলি গভর্নর জেনারেল পদে কলকাতায় ছিলেন ১৭৯৮-১৮০৫ পর্যন্ত। তাঁর বেশ কয়েকটি কাজই ছিল সাধারণ মানের চেয়ে অনেকটা এগিয়ে এবং সেগুলি বাস্তবে পরিণত করতে কোনও বাধাই তিনি মানেননি। একাধিক বার কোম্পানির ডিরেক্টরদের না জানিয়ে, প্রচুর খরচ করে সেই কাজ শেষ করেছেন। ১৮০৩ সালে কলকাতায় বানালেন বিরাট প্রাসাদ— ‘ক্যালকাটা গভর্নমেন্ট হাউস’, আজ যা ‘রাজভবন’। ১৮০০ সাল থেকে ব্যারাকপুরে গঙ্গাতীরে তৈরি করা শুরু করলেন বিলিতি ধাঁচের এক বাহারি উদ্যান— ‘ব্যারাকপুর পার্ক’। তিন বছরের মধ্যেই সেই পার্কের আয়তন গিয়ে দাঁড়াল ১০০৬ বিঘা। সেই পার্ককে এখন আমরা ‘লাটবাগান’ বা ‘মঙ্গল পান্ডে উদ্যান’ নামে জানি। পার্কে আর এক প্রাসাদ তৈরির কাজ যখন চলছে, তখন অস্থায়ী ভাবে থাকার জন্য গঙ্গার তীর ঘেঁষে বানালেন একটি বড় দোতলা বাড়ি। প্রাসাদ আর শেষ হয়নি, ক্রমে ওই দোতলা বাড়িটিই হয়ে উঠল ‘ব্যারাকপুর গভর্নমেন্ট হাউস’, সব গভর্নর জেনারেল আর ভাইসরয়দের প্রিয় ‘কান্ট্রি হাউস’। কিছু দিন আগে পর্যন্তও এই বাড়িতেই ছিল পুলিশ হাসপাতাল। ক্যালকাটা গভর্নমেন্ট হাউস থেকে তাঁর প্রিয় ব্যারাকপুর পার্কের বাড়িতে সহজে যাতায়াতের জন্য ওয়েলেসলি বানিয়ে ফেললেন শ্যামবাজার থেকে ব্যারাকপুর পর্যন্ত টানা এক রাস্তা, এখন যার নাম বি টি রোড। ইংরেজ কর্মচারীদের স্থানীয় ভাষা শেখানোর জন্য ১৮০০ সালে কলকাতার ফোর্ট উইলিয়ামে চালু করলেন ‘ফোর্ট উইলিয়াম কলেজ’।[৬]

নেপলিয়নীয় যুদ্ধসম্পাদনা

১৮০৭ সালে যৌথ মন্ত্রিসভার পতনের পরে তৃতীয় জর্জ রিচার্ড ওয়েলেসলিকে আমন্ত্রণ করেন পোর্টল্যান্ড এর মন্ত্রিসভায় যোগ দেবার জন্য, কিন্তু তিনি তা অস্বীকার করেন, তাঁর বিরুদ্ধে ভারতীয় প্রশাসনের আনা ভুল অভিযোগ কে সংসদ এর জন্য মুলতুবি দিয়ে রাখেন. ক্ষমতার অপব্যবহার ও নিন্দা তাঁকে লর্ডস এবং কমন্স উভয় জায়গা থেকেই দূরে সরিয়ে রাখে কিন্তু অধিজনের দ্বারা পরাজিত ও হন।

১৮০৯ সালে ওয়েলেসলি স্পেনের রাষ্ট্রদূত নিযুক্ত হন। তিনি তালাভেরার যুদ্ধ সম্পূর্ণ হবার পরেই কাদিয এ অবতরণ করেন। এবং তিনি স্প্যানিশ সরকারকে নিজের মুঠোর মধ্যে আনার বৃথা চেষ্টা করেছিলেন তাঁর ভাইয়ের সাথে, যে তাঁর জোটের ব্যার্থতা সত্ত্বেও পর্তুগালে পশ্চাদপসরণ করতে বাধ্য হয়েছিলেন। কয়েক মাস পরে জর্জ ক্যানিং এবং রবার্ট স্টুয়ার্ট এর দ্বন্দ্ব হয় এবং তাঁরা দুজনেই পদত্যাগ করে এবং ওয়েলেসলি স্পেন্সর পারসেভালপররাষ্ট্র সচিবএর পদ গ্রহণ করেন। তিনি তাঁর ভাইয়ের থেকে পৃথক একজন বলিয়ে বক্তা ছিলেন, কিন্তু তিনি তাঁর আশেপাশের বিষয় সম্বন্ধে অজ্ঞাত ছিলেন।

প্রথম জীবন থেকেই ওয়েলেসলি তাঁর ভাইয়ের মতন ক্যাথলিক বন্ধনমুক্ত একজন উকিল ছিলেন এবং বিচারে আইরিশ ক্যাথলিকদের দাবির মাধ্যমে অতঃপর তিনি নিজেকে চিহ্নিত করেন। পারসেভালের হত্যার পর তিনি এবং জর্জ ক্যানিং যৌথ ভাবে লর্ড লিভারপুলের প্রশাসনে যোগ দিতে অস্বীকার করেন।

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. Waite, Arthur Edward (২০০৭)। A New Encyclopedia of Freemasonry। vol. I। Cosimo, Inc.। পৃষ্ঠা 400। আইএসবিএন 1-60206-641-8 
  2. See, e.g., William McCullagh Torrens, The Marquess Wellesley: Architect of Empire (London: Chatto and Windus, 1880); P.E. Roberts, India Under Wellesley (London: G. Bell and Sons, 1929); M.S. Renick, Lord Wellesley and the Indian States (Agra: Arvind Vivek Prakashan, 1987).
  3. "Hyderabad Treaty (Appendix F)," The Despatches, Minutes & Correspondence of the Marquess Wellesley During His Administration in India, ed. Robert Montgomery Martin, 5 vols (London: 1836–37), 1:672–675; Roberts, India Under Wellesley, chap. 4, “The Subsidiary Alliance System.”
  4. C.H. Phillips, The East India Company, 1784–1834, 2nd. ed., (Manchester: Manchester UP, 1961), 107–108; "Notice of the Board of Trade, 5 October 1798 (Appendix M)," Wellesley Despatches, 2:736–738.
  5. Mornington to Pitt, April 1800, The Wellesley Papers: The Life and Correspondence of Richard Colley Wellesley, 2 vols (London: Herbert Jenkins, 1914), 121.
  6. "Welesly ABP" 

Notesসম্পাদনা

  1. Having hoped to receive the Order of the Garter, Wellesley was much disappointed by an Irish peerage, which he contemptuously referred to as a "double-gilt potato."