রায়চুর যুদ্ধ হচ্ছে বিজয়নগর সাম্রাজ্য এবং বিজাপুরের সুলতানিয়ার মধ্যে সংঘটিত যুদ্ধ যা ১৫২০ খ্রিস্টাব্দে ভারতের রায়চুর শহরে শুরু হয়েছিল।[১][২]

যুদ্ধে বিজয়নগর বাহিনী সঠিক সিদ্ধান্তের পরিচয় দেখিয়ে বিজয়ী হয় এবং বিজাপুর শাসক পরাজিত হন এবং কৃষ্ণা নদীর অপর পাড়ে যেতে বাধ্য হয়েছিলেন।[৩]

এই যুদ্ধের সুদূরপ্রসারী প্রভাব ছিল। এটি আদিল শাহের শক্তি ও মর্যাদাকে দুর্বল করেছিল এবং অন্যান্য দাক্ষিণাত্য সুলতানীদের সাথে বিজয়নগর সাম্রাজ্যের জোট গঠন করার জন্য মৈত্রী স্থাপনে সাহায্য করেছিল; তবে তালিকোটা যুদ্ধতে বিজয়নগর সাম্রাজ্যের পরাজয় ঘটে।[৪]

রায়চুর যুদ্ধ
তারিখমে, ১৫২০ খ্রিস্টাব্দ
অবস্থান
ফলাফল নীতিগতভাবে বিজয়নগর সাম্রাজ্যের বিজয়
যুধ্যমান পক্ষ
Vijayanagara flag.png বিজয়নগর সাম্রাজ্য বিজাপুরের সুলতানেট
সেনাধিপতি ও নেতৃত্ব প্রদানকারী
Vijayanagara flag.png কৃষ্ণদেবরায়[৫] ক্রিসতাভো ডি ফাগুর্য়েদো ইসমাইল আদিল শাহ[৫]
শক্তি

আধুনিক হিসাব
৭০০০০ পদাতিক বাহিনী
৩০০০০ অশ্বারোহী সেনা
৫৫০টি হাতী[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

সমসাময়িক হিসাব
৭৩২,০০০ সৈন্য (৩২,০০০ অশ্বারোহী সেনা এবং ৫৫০টি হাতীর বিপরীতে)
পর্তুগিজ সেনা

আধুনিক হিসাব
১৪০০০ (পদাতিক বাহিনী এবং অশ্বারোহী সেনাসহ)[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]


সমসাময়িক হিসাব
১৪০০০০ সৈন্য (অশ্বারোহী and পদাতিক সেনাসহ)
হতাহত ও ক্ষয়ক্ষতি
১৬০০০ সৈন্য মৃত অজানা তবে গুরুতর

ইতিহাসসম্পাদনা

রায়চুর দুর্গটি কাকাতিয়া রাজা রুদ্র দ্বারা নির্মিত হয়েছিল ১২৮৪ খ্রিস্টাব্দে, যা কাকাতিয়ার পতনের পরে বিজয়নগর রাজ্যের অধীনে চলে যায়।[৬]

সেই থেকে দুর্গটি প্রায় দুই শতাব্দী ধরে বিতর্কিত ছিল। উত্তর দাক্ষিণাত্যের অন্যান্য অঞ্চল সহ দুর্গটি ১৩৩৩ খ্রিস্টাব্দে মুহাম্মদ বিন তুঘলুক দখল করেছিলেন। বাহমানি সুলতানরা ১৩৪৭ সালে দুর্গটি দখল করে নেয়।[৭]

সালুভা নারসিংহ দেবরায় বাহমনীদের কাছ থেকে রায়চুর শহর দখল করার চেষ্টা করেছিলেন, কিন্তু ব্যর্থ হন।[৮]

রায়চুর যুদ্ধের সূচনা ১৫২০ সালে শুরু হয়েছিল। সেবছর, কৃষ্ণদেবরায় একজন মুসলিম, সৈয়দ মারাইকারকে ঘোড়া কেনার জন্য মোটা অঙ্কের অর্থ দিয়ে গোয়ায় প্রেরণ করেছিলেন। মারাইকার অবশ্য টাকা নিয়ে ঘোড়া না কিনে কৃষ্ণদেবরায়ের প্রতিপক্ষ আদিল খানের কাছে গিয়ে তাঁর সেবা প্রদান করেন। কৃষ্ণদেবরায় দাবি করেছিলেন যে মাইকারকে সেই টাকা ফিরিয়ে দেওয়া উচিত যা যথাযথভাবে মাইকার অস্বীকার করেছিলেন। ফলশ্রুতিতে কৃষ্ণদেবরায় রায়চুর দোয়াবে এক বিরাট আক্রমণ করার জন্য ব্যাপক প্রস্তুতি গ্রহণ করেন। আদালত রায়চুর আক্রমণ করার সিদ্ধান্ত দেওয়ার পরে, রাজা সমস্ত সেনাপতিদের যুদ্ধে অংশ নেওয়ার জন্য তাঁর সেনাবাহিনীতে আমন্ত্রণ করেছিলেন।

যুদ্ধসম্পাদনা

রায়চুর-এ কৃষ্ণদেবরায় ও বিজাপুরের সুলতানি সেনাবাহিনীর মধ্যে যুদ্ধ হয়েছিল।[২]

বিজয়নগর সাম্রাজ্যের বাহিনীতে ৩২৬০০ অশ্বারোহী এবং ৫৫১টি হাতি ছিল। বিজাপুর সুলতানেতে ৭,০০০ অশ্বারোহী এবং ২৫০ হাতি সমন্বয়ে বাহিনী ছিল। আধুনিক এবং সমসাময়িক লেখকগণ প্রতিটি পক্ষের পদাতিক কর্মীর সংখ্যা সম্পর্কে একমত নন। সমসাময়িক সূত্রগুলি বলছে যে কৃষ্ণদেবরায়ের পদাতিক বাহিনীতে কিছুটা বেশি সৈন্য ছিল, ৭০০,০০০ সৈন্য ছিল।

অধিকন্তু, আগ্নেয়াস্ত্রের সাহায্যে ক্রিস্টোভো দে ফিগুয়ারিডো দ্বারা পরিচালিত পর্তুগিজ বাহিনী[৯][১০] দুর্গটি জয় করতে সহায়তা করে,[১১] পর্তুগিজদের সাহায্যে পাওয়া ম্যাচলকগুলিও বিজয়নগর সাম্রাজ্যের সেনাবাহিনী ব্যবহার করেছিল, এবিষয়ে উচ্চ সম্ভাবনা রয়েছে।[১২]

অতিরিক্তভাবে পর্তুগিজরা তাদের আরকিউবস্ দিয়ে অবরোধকারীদের দেয়াল থেকে সরিয়ে নিয়ে যায় এবং এভাবে ঘেরাওকারীদের দুর্গের লাইনের কাছাকাছি নিয়ে যায় এবং পাথর নিচে ফেলতে সক্ষম হয়। হতাশাগ্রস্ততা এবং তাদের গভর্নরকে হত্যা করার মাধ্যমে , গ্যারিসন তাদের আত্মসমর্পণ করতে বাধ্য করেন। পর্তুগিজ বিবরণীতে বলা হয়েছে যে বিজাপুর সুলতানিতে কামানগুলি ব্যাপকভাবে ব্যবহৃত হত; বিজয়নগর সাম্রাজ্য সর্বনিম্ন ব্যবহার করেছিল, যতটুকু সম্ভব ততটুকুই ব্যবহার করেছিল।[১৩]

বিজয়নগর সাম্রাজ্য বিজাপুর সুলতানিতে উন্নতমানের দমকল থাকা সত্ত্বেও বিজয়ী হয়েছিল।[১৪]

 
ভারতে পর্তুগিজ আরকাবুজিয়ার্স, পঞ্চদশ শতকে।

ফলাফলসম্পাদনা

ফলাফল হিসেবে দেখা যায়-রায়চুর শহর যখন আত্মসমর্পণ করেছিল, কৃষ্ণদেবরায় তখন জয়লাভ করেছিলেন।[১৫]

কৃষ্ণদেবরায় রায়চুরের বাহমানি প্রশাসকদের প্রতি নির্মম ছিলেন। অনেক বাহমানি প্রশাসক জমি হারিয়েছিলেন। অন্যান্য মুসলিম রাজা তার সাফল্যের কথা শুনে সম্রাটের কাছে দূত প্রেরণ করেছিলেন কিন্তু অহঙ্কারী জবাব পেয়েছিলেন। রাজা কৃষ্ণদেবরায় জানিয়ে দিলেন যে, আদিল শাহ যদি তাঁর কাছে আসেন এবং নতজানু হয়ে তাঁর পায়ে চুম্বন করেন তবে তাঁর জমি তাঁর কাছে ফিরিয়ে দেওয়া হবে। কিন্তু এরকমটি কখনও ঘটেনি। কৃষ্ণদেবরায় তখন বিজাপুরের উত্তরের অংশে তার বাহিনীকে নেতৃত্ব দিয়ে দখল করেছিলেন।[১৬][১৭]

তিনি বাহমানী রাজবংশের প্রাক্তন রাজার তিন ছেলেকে বন্দী করে রেখেছিলেন, যাদেরকে আদিল শাহ বন্দী করে রেখেছিলেন এবং তিনি জ্যেষ্ঠতমকে ছেড়ে দেন ও দাক্ষিণাত্যের রাজা হিসাবে ঘোষণা করেছিলেন।[১৮]

পাঁচজন সুলতানের (যারা একক দাক্ষিণাত্য সার্বভৌমত্বের ধ্বংসাবশেষের উপর নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করেছিল) শাসনকে বিকৃত করার এই প্রয়াস কেবল তাদের সাধারণ শত্রুদের প্রতি তাদের শত্রুতাকে কঠোর করে তুলেছিল।[১৯]

কৃষ্ণদেবরায় আদিল শাহের দখলে থাকা বেলগাঁয়ে আক্রমণ করার প্রস্তুতি নিতে শুরু করেছিলেন। এর পরই, তিনি তার প্রকল্পটি পরিচালনাকালীন গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়েন এবং ১৫৩০ খ্রিস্টাব্দে পঁয়তাল্লিশ বছর বয়সে মারা যান। তার পদে অচ্যুত দেব রায় স্থলাভিষিক্ত হন।

রাজনৈতিক ফলাফলসম্পাদনা

রায়চুরের যুদ্ধের সুদূরপ্রসারী প্রভাব ছিল। হিন্দু বিজয় আদিল শাহের শক্তি ও প্রতিপত্তি দুর্বল করে দেয়। তিনি অন্যান্য মুসলিম প্রতিবেশীদের সাথে জোট করার দিকে মনোনিবেশ করেছিলেন। এই বিজয়ের ফলে দক্ষিণাত্যের অন্যান্য সুলতানরাও বিজয়নগর সাম্রাজ্যকে পরাস্ত করতে জোট গঠন করেছিল। যুদ্ধটি পশ্চিম উপকূলে পর্তুগিজদের ভাগ্যকেও প্রভাবিত করেছিল। গোয়া জেগে উঠেছিল এবং বিজয়নগর রাজবংশের উত্থান ও পতনের সাথে সাথে পতিত হয়েছিল কারণ তাদের পুরো বাণিজ্য হিন্দু সমর্থনের উপর নির্ভর করত।[৫]

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. Nath, Pratyay (২০১৬)। "Warfare in Early Modern South Asia"। Pius Malekandathil। The Indian Ocean in the Making of Early Modern India। Taylor & Francis। পৃষ্ঠা 178। আইএসবিএন 978-1-351-99746-1ওসিএলসি 960041925the battles of Raichur (1520) 
  2. Roy (2014), পৃ. 68: "In 1520, Battle of Raichur was fought between Krishna Raya of Vijayanagara and Sultan Ismail Adil Shah of Bijapur."
  3. Krishna Reddy (২০০৮)। Indian History। Tata McGraw-Hill। 
  4. Jaques, Tony (২০০৭), Dictionary of Battles and Sieges: P-Z, Greenwood Publishing Group, পৃষ্ঠা 837, আইএসবিএন 978-0-313-33539-6, Bijapur and her allies were avenged in 1565 at Talikota 
  5. Bhat, N. Shyam (২০০৯)। "Political Interaction between Portuguese Goa and Karnataka"। Portuguese Studies Review, Vol. 16, No. 2। Baywolf Press। পৃষ্ঠা 27। 
  6. Eaton (2013), পৃ. 278: "In 1294, a subordinate of the last monarch of the Kakatiya Dynasty seized the Raichur Doab from Yadava control and built the imposing complex of walls and gates that encircle Raichur's present core."
  7. Eaton (2013), পৃ. 278: "After the collapse of the Kakatiya state in 1323, Sultan Muhammad bin Tughluq (r. 1325-51) systematically colonized much of the northern Deccan."
  8. Eaton (2013), পৃ. 278: "In the confusion surrounding the expulsion of imperial forces in 1347, the Doab apparently fell to the powers that simultaneously arose on the ashes of Tughluq imperialism in the Deccan, the Bahmani sultanate (1347-1538).
  9. "Ismāʿīl ʿĀdil Shāh - Bijāpur ruler" 
  10. "Portuguese Studies Review, Vol. 16, No. 2" 
  11. "Evolve Back" 
  12. Buchanan, Brenda J. (২০১৬), Gunpowder, Explosives and the State: A Technological History, Taylor & Francis, আইএসবিএন 978-1-351-93190-8, ওসিএলসি 965718764, There is also a strong likelihood of the adoption of European matchlocks in the Vijayanagara Empire at around the same time [1517], through contact with the Portuguese. 
  13. Eaton (2013), পৃ. 289: "All of this suggests that by 1520 cannon were being used in the field—extensively by Bijapur, at best minimally by Vijayanagara—but with only limited effect."
  14. Roy (2014), পৃ. 68: "Though Bijapur had superior firepower, Vijayanagara emerged victorious."
  15. Murthy, H. V. Sreenivasa; Ramakrishnan, R. (১৯৭৭), A History of Karnataka, from the Earliest Times to the Present Day, S. Chand, পৃষ্ঠা 189, The city of Raichur surrendered and Krishnadevaraya made triumphal entry into it. 
  16. Eaton 2013, পৃ. 292।
  17. Vijayanagara, Progress of Research, Directorate of Archaeology & Museums, ১৯৯৬, পৃষ্ঠা 200 
  18. Sandhu, Gurcharn Singh (২০০৩)। Military History of Medieval India। Vision Books। পৃষ্ঠা 342। 
  19. Sewell, Robert; Nunes, Fernão; Paes, Domingos (২০০০), A Forgotten Empire (Vijayanagar): A Contribution to the History of India, Asian Educational Services, পৃষ্ঠা 157–, আইএসবিএন 978-81-206-0125-3