প্রধান মেনু খুলুন

রাফায়েল পেরেইরা দা সিলভা

রাফায়েল পেরেইরা দা সিলভা (ইংরেজি: Rafael Pereira da Silva) (জন্ম ৯ জুলাই, ১৯৯০), যিনি রাফায়েল বা রাফায়েল দা সিলভা হিসেবেও পরিচিত, একজন ব্রাজিলীয় ফুটবল খেলোয়াড়। তিনি ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের হয়ে খেলেন। তিনি সাধারণত ডিফেন্ডার হিসেবে রাইট ব্যাক পজিশনে খেলে থাকেন তবে তিনি রাইট মিডফিল্ডার হিসেবেও খেলতে সক্ষম।[৩] রাফায়েল ফ্যাবিও দা সিলভার যমজ ভাই যিনি নিজেও ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের হয়ে খেলেন।

রাফায়েল
Rafael Man Utd 2011.jpg
ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের হয়ে খেলছেন রাফায়েল
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নাম রাফায়েল পেরেইরা ডা সিলভা[১]
জন্ম (1990-07-09) ৯ জুলাই ১৯৯০ (বয়স ২৯)
জন্ম স্থান পেট্রোপলিস, রিও ডি জেনিরো, ব্রাজিল
উচ্চতা ১.৭৩ মি (৫ ফু ৮ ইঞ্চি)[২]
মাঠে অবস্থান রাইট ব্যাক/রাইট মিডফিল্ডার
ক্লাবের তথ্য
বর্তমান ক্লাব ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড
জার্সি নম্বর
যুব পর্যায়ের খেলোয়াড়ী জীবন
২০০৫–২০০৮ ফ্লুমিনিজে
জ্যেষ্ঠ পর্যায়ের খেলোয়াড়ী জীবন*
বছর দল উপস্থিতি (গোল)
২০০৮– ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড ৮১ (৫)
জাতীয় দল
২০০৭ ব্রাজিল অনূর্ধ্ব-১৭ দল ১২ (০)
২০১২ ব্রাজিল অনূর্ধ্ব-২৩ দল (১)
২০১২– ব্রাজিল জাতীয় দল (০)
  • পেশাদারী ক্লাবের উপস্থিতি ও গোলসংখ্যা শুধুমাত্র ঘরোয়া লিগের জন্য গণনা করা হয়েছে এবং ১৬:৪৮, ৫ মে ২০১৩ (UTC) তারিখ অনুযায়ী সঠিক।

† উপস্থিতি(গোল সংখ্যা)।

‡ জাতীয় দলের হয়ে খেলার সংখ্যা এবং গোল ১৬:00, ১১ আগস্ট ২০১২ (UTC) তারিখ অনুযায়ী সঠিক।

রাফায়েল ব্রাজিলের হয়ে দুইটি আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলেছেন যেখানে তার অভিষেক ঘটে ২০১২ সালের ২৬ মে ডেনমার্কের বিপক্ষে। তিনি ব্রাজিল অনূর্ধ্ব ১৭ দলের হয়েও খেলেছেন এবং ২০১২ গ্রীষ্মকালীন লন্ডন অলিম্পিকের রৌপ্য পদক জয়ী ব্রাজিল অনূর্ধ্ব ২৩ দলের সদস্য ছিলেন।

প্রাথমিক জীবনসম্পাদনা

রাফায়েল রিও দে জেনিরোর সন্নিকটে অবস্থিত পেট্রপলিসে জন্মগ্রহণ করেন এবং ৫ বছর বয়স থেকে ফুটবল খেলা শুরু করেন। তিনি অপেশাদার দল বোয়া এস্পারেন্সাতে ফরওয়ার্ড হিসেবে খেলা শুরু করেন।[৪] তার ও তার ভাই ফাবিওর খেলায় মুগ্ধ হয়ে ফুটবল ক্লাব ফ্লুমিনিজের সদস্যরা তাদের নিজেদের ক্লাবে যোগদান করতে বলেন। তারা মাত্র ১১ বছর বয়সে ফ্লুমিনিজেতে যোগদান করেন।[৫]

ক্লাব ক্যারিয়ারসম্পাদনা

ফ্লুমিনিজেসম্পাদনা

ফ্লুমিনিজেতে যোগদান করার পর রাফায়েল ম্যানেজারের কথা অনুযায়ী একজন ফুল ব্যাক হিসেবে খেলা শুরু করেন।[৪] ফ্লুমিনিজে ২০০৫ সালে হং কং -এ অনুষ্ঠিত নাইকি প্রিমিয়ার কাপে অংশগ্রহণ করে যেখানে ডা সিলভা ভাইদের দুর্দান্ত খেলা ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড স্কাউট লেস কারশোর দৃষ্টি আকর্ষণ করে। তিনি তারপর স্যার অ্যালেক্স ফারগুসনকে ফোন করে তাদের দলভুক্ত করার জন্যে অনুরোধ করেন।[৪] ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড অতঃপর ২০০৫ সালে ফ্লুমিনিজেকে অনুরধ করে যাতে তারা যমজ ভাইদের ইংল্যান্ডে গিয়ে তাদের সাথে অনুশীলনের অনুমতি দেয়। কিছুদিন পরে আর্সেনালের একজন স্কাউট ফ্লুমিনিজের অনুমতি না নিয়েই দা সিলভা ভাইদের সাথে কথা বলে তাদের আর্সেনালের সাথে অনুশীলনের জন্যে অনুরোধ করেন। কিন্তু তাদের মা তাদের নিজের ক্লাবের প্রতি দায়িত্বশীল থাকার নির্দেশ দেন যেহেতু তারা মাত্র ১১ বছর বয়স থেকে ক্লাবটিতে আছেন।[৬] ফ্লুমিনিজে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের সাথে ২০০৭ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে তাদের দলবদলের ব্যাপারে একমত হন। অতঃপর তারা ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডে ২০০৮ সালে যোগদান করেন ফ্লুমিনিজের প্রথম দলের হয়ে একটিও ম্যাচ না খেলেই।[৭]

ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডসম্পাদনা

২০০৮-০৯ মৌসুমসম্পাদনা

 
রাফায়েল ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের হয়ে খেলছেন

রাফায়েল ও ফ্যাবিও ২০০৮ সালের জানুয়ারিতে ম্যানচেস্টারে আসেন কিন্তু ২০০৮ সালের জুলাই অব্দি ১৮ বছর পূর্ণ হওয়ার আগ পর্যন্ত তারা কোন ম্যাচ খেলতে পারেন নি। রাফায়েলের অভিষেক ঘটে ৪ আগস্ট পিটারবোরোর বিপক্ষে এক প্রীতি ম্যাচে যেই খেলায় ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড ২-০ গোলে জয়ী হয়।[৮] এরপর তিনি ২০০৮-০৯ মৌসুমে ম্যান ইউএর প্রধান একাদশে নিবন্ধিত হন এবং তাকে ২১ নম্বর জার্সি দেয়া হয়।[৯] রাফায়েল এর প্রতিযোগিতামূলক অভিষেক ঘটে ২০০৮-০৯ মৌসুমের প্রিমিয়ার লিগের প্রথম খেলায় ১৭ই আগস্ট যেখানে তিনি ফ্রেজিয়ার ক্যাম্পবেলের পরিবর্তন হিসেবে নামেন। খেলাটি ১-১ গোলে ড্র হয়।[১০] রাফায়েল প্রথম একাদশে খেলার সুযোগ পান ইংলিশ লিগ কাপের তৃতীয় রাউন্ডে মিডিলসবোরোর বিপক্ষে ২৩শে সেপ্টেম্বর, যেখানে ম্যান ইউ ৩-১ গোলে জয়ী হয়।[১১] ইউরোপিয়ান প্রতিযোগিতায় তার অভিষেক ঘটে অ্যালবোরগের বিপক্ষে ৩০শে সেপ্টেম্বর।[১২] প্রিমিয়ার লিগে প্রথম একাদশে তিনি সুযোগ পান ১৮ই অক্টোবর ওয়েস্ট ব্রমউইচ অ্যালবিওনের বিপক্ষে যেখানে ম্যান ইউ ৪-০ গোলে নিজেদের মাঠে জয়ী হয়।[১৩] ৮ই নভেম্বর তিনি ক্লাবের হয়ে নিজের প্রথম গোল করেন আর্সেনালের বিপক্ষে যদিও গোলটি ২-১ এ পরাজয়ের ম্যাচে সান্ত্বনাসূচক ছিল।[১৪] ১৯শে এপ্রিল, ২০০৯ এ ফ্যাবিও এবং তিনি এফ.এ. কাপের সেমি ফাইনালে এভারটনের বিপক্ষে প্রথমবারের মত একত্রে খেলতে নামেন, ম্যাচটি ম্যান ইউ ৪-২ গোলে পেনাল্টি শুটআউটে হেরে যায়।[১৫]

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "Premier League clubs submit squad lists" (PDF)PremierLeague.com। Premier League। ২ ফেব্রুয়ারি ২০১২। পৃষ্ঠা 24। সংগ্রহের তারিখ ২ ফেব্রুয়ারি ২০১২ 
  2. "Player Profile: Rafael da Silva"। Premier League। সংগ্রহের তারিখ ৩১ জুলাই ২০১২ 
  3. "Rafael: Most Improved Players"Ed Dove, Bleacher Report। ২৮ মার্চ ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ৭ এপ্রিল ২০১৩ 
  4. Taylor, Daniel (১৫ নভেম্বর ২০০৮)। "Dazzling Da Silvas plan twin-pronged assault for United"The Guardian। London: Guardian News and Media। সংগ্রহের তারিখ ৭ ডিসেম্বর ২০০৮ 
  5. Sharma, Elizabeth; Rowling, Rupert (২০ এপ্রিল ২০০৯)। "Manchester United's Rafael and Fabio Da Silva set sights on twin goals"The Guardian। London: Guardian News and Media। সংগ্রহের তারিখ ২২ জুলাই ২০১১ 
  6. McGarry, Ian (১৮ মার্চ ২০০৯)। "Rafael: "Arsenal scout" wanted to tap me up"Sun Online। News Group Newspapers। সংগ্রহের তারিখ ১৮ মার্চ ২০০৯ 
  7. Stone, Simon (২১ অক্টোবর ২০০৮)। "Rafael gives Ferguson selection dilemma"The Independent। London: Independent News and Media। সংগ্রহের তারিখ ৭ ডিসেম্বর ২০০৮ 
  8. Bostock, Adam (৪ আগস্ট ২০০৮)। "Report: Peterbro' 0 United 2"ManUtd.com। Manchester United। ১৩ জুন ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৪ আগস্ট ২০০৮ 
  9. "Manchester United 08-09 Squad Numbers"Soccerlens.com। Soccerlens। ১৬ আগস্ট ২০০৮। সংগ্রহের তারিখ ১৬ আগস্ট ২০০৮  Authors list-এ |প্রথমাংশ1= এর |শেষাংশ1= নেই (সাহায্য)
  10. Stevenson, Jonathan (১৭ আগস্ট ২০০৮)। "Man Utd 1–1 Newcastle"BBC Sport। British Broadcasting Corporation। সংগ্রহের তারিখ ১৭ আগস্ট ২০০৮ 
  11. "Man Utd 3–1 Middlesbrough"BBC Sport। British Broadcasting Corporation। ২৩ সেপ্টেম্বর ২০০৮। সংগ্রহের তারিখ ২৩ সেপ্টেম্বর ২০০৮ 
  12. McNulty, Phil (৩০ সেপ্টেম্বর ২০০৮)। "Aalborg 0–3 Man Utd"BBC Sport। British Broadcasting Corporation। সংগ্রহের তারিখ ১২ নভেম্বর ২০০৮ 
  13. Whyatt, Chris (১৮ অক্টোবর ২০০৮)। "Man Utd 4–0 West Brom"BBC Sport। British Broadcasting Corporation। সংগ্রহের তারিখ ১৮ অক্টোবর ২০০৮ 
  14. McNulty, Phil (৮ নভেম্বর ২০০৮)। "Arsenal 2–1 Man Utd"BBC Sport। British Broadcasting Corporation। সংগ্রহের তারিখ ৮ নভেম্বর ২০০৮ 
  15. "Man Utd 0–0 Everton (aet)"BBC Sport। British Broadcasting Corporation। ১৯ এপ্রিল ২০০৯। সংগ্রহের তারিখ ১৯ এপ্রিল ২০০৯ 

বহিঃসংযোগসম্পাদনা