প্রধান মেনু খুলুন

রকিব হাসান (জন্ম: ১৯৫০, কুমিল্লা) একজন বাংলাদেশী গোয়েন্দা কাহিনী লেখক। তিনি সেবা প্রকাশনী থেকে প্রকাশিত তিন গোয়েন্দা নামক গোয়েন্দা কাহিনীর স্রষ্টা। তার লেখা এই কিশোর সিরিজটি প্রথম আলো পত্রিকার জরিপে বাংলাদেশের কিশোরদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি পাঠযোগ্য সিরিজ হিসেবে স্বীকৃতি পেয়েছে। মূলত মূল নামে লেখালেখি করলেও জাফর চৌধুরী ছদ্মনামেও সেবা প্রকাশনীর রোমহর্ষক সিরিজ লিখে থাকেন। এছাড়াও আবু সাঈদ ছদ্মনামটিও ব্যবহার করেছেন গোয়েন্দা রাজু সিরিজটি লেখার সময়। [১]

রকিব হাসান
জন্ম১৯৫০
কুমিল্লা, বাংলাদেশ
পেশালেখক, অনুবাদক
জাতীয়তাবাংলাদেশি
নাগরিকত্ব বাংলাদেশ
উল্লেখযোগ্য রচনাবলিতিন গোয়েন্দা

জন্ম ও শিক্ষাজীবনসম্পাদনা

রকিব হাসানের জন্ম কুমিল্লায়, ১৯৫০ সালে। এসএসসি এবং এইচএসসি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করেন ফেনী থেকে, এবং বিএসসি পাস করেন আদমজী ক্যান্টনমেন্ট কলেজ থেকে।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

কর্মজীবনসম্পাদনা

থ্রিলার এবং গোয়েন্দা গল্প লেখার পূর্বে তিনি অন্যান্য কাজে যুক্ত ছিলেন। তিনি রহস্যপত্রিকার একজন সহকারী সম্পাদক ছিলেন।

লেখালেখিসম্পাদনা

রকিব হাসান-এর লেখা প্রথম বই প্রকাশিত হয় ১৯৭৭ সালে, ছদ্মনামে । স্বনামে প্রথম প্রকাশিত বইটি ছিল অনুবাদগ্ৰস্থ, ব্রাম স্টোকারের ড্রাকুলা” । এরপর অনুবাদ করেছেন এরিক ফন দানিকেন, ফার্লে মোয়াট, জেরাল্ড ডুরেল-এর মত বিখ্যাত লেখকদের অনেক ক্লাসিক বই । অনুবাদ করেছেন মহাক্লাসিক অ্যারাবিয়ান নাইটসএডগার রাইস বারোজ এর টারজান সিরিজ । বড়দের উপযোগী তার লেখা কিছু রহস্য উপন্যাসও খুব জনপ্রিয়তা পেয়েছে । সবচেয়ে জনপ্রিয় হয়েছে ছোটদের জন্য লেখা তিন গোয়েন্দা সিরিজটি । এই রবিনকে নিয়ে লিখেছেন আরও দুটাে সিরিজ তিন বন্ধু' ও 'গোয়েন্দা কিশোর মুসা রবিন' । লিখেছেন কিশোর গোয়েন্দা” সিরিজ, খুদে গোয়েন্দা’ সিরিজ, জাফর চৌধুরী ছদ্মনামে রোমহর্ষক’ সিরিজ এবং আবু সাঈদ ছদ্মনামে গোয়েন্দা রাজু সিরিজ । রকিব হাসানের রোমহর্ষক সিরিজে রেজা ও সুজা দুই ভাইয়ের এডভেঞ্চার কাহিনি বর্ণিত হয়েছে। এই সিরিজটি থেকে তিন গোয়েন্দায় অনেকগুলো গল্প ভিন্ন নামে প্রকাশিত হয়েছে। এ ছাড়া কিশোরদের জন্য বেশ কিছু ভূতের বই ও সাইন্স ফিকশনও লিখেছেন তিনি।

রকিব হাসান শুধুমাত্র তিন গোয়েন্দারই ১৬০টি বই লিখেছেন। এছাড়া কমপক্ষে ৩০টি বই অনুবাদ করেছেন।

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "RAKIB HASSAN BIOGRAPHY"। সংগ্রহের তারিখ ২১ নভেম্বর ২০১৭