যৌন-ইতিবাচক নারীবাদ

যৌন-ইতিবাচক নারীবাদ, যেটি যৌনপক্ষীয় নারীবাদ, যৌন-গোঁড়া নারীবাদ অথবা যৌন-স্বাধীনতাবাদী নারীবাদ নামেও পরিচিত হচ্ছে একটি মতবাদ যেটি ১৯৮০ এর দশকের শুরুর দিকে চালু হয় এই ধারণা নিয়ে যে যৌন স্বাধীনতা হচ্ছে নারীস্বাধীনতার একটি অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ অংশ।

সুসি ব্রাইট, সর্বপ্রথম যৌন-ইতিবাচক নারীবাদীদের মধ্যে অন্যতম

বহু নারীবাদী 'অশ্লীল সৃষ্টিকর্ম-বিরোধী আন্দোলন'কে বন্ধ করার জন্যযৌন-ইতিবাচক নারীবাদের সঙ্গে জড়িয়ে পড়েন; ঐ আন্দোলনে বারংবারই বলা হয় যে অশ্লীল সৃষ্টিকর্ম নারীদেরকে পুরুষদের ভোগের সামগ্রী হিসেবে উপস্থাপন করে। আশির দশকের শুরুর দিকে এই যৌন-ইতিবাচক নারীবাদীরা 'অশ্লীল সৃষ্টিকর্ম-বিরোধী আন্দোলন'কে বন্ধ করার জন্য বিরোধী আন্দোলনকারীদের সঙ্গে এক সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন, যেটি ইতিহাসে 'নারীবাদীদের যৌন যুদ্ধ' নামে পরিচিতি লাভ করে। অপরদিকে যৌন-ইতিবাচক নারীবাদীরা সমাজ থেকে যৌনতার উপর পুরুষতান্ত্রিক বিধি-বিধান উঠিয়ে দেওয়ার জন্য এরূপ মতবাদের পক্ষ নেওয়া শুরু করেন।[১][২]

তথ্যসূত্র

সম্পাদনা
  1. McElroy, Wendy (১৯৯৫)। XXX: a woman's right to pornography। New York: St. Martin's Press। আইএসবিএন 9780312136260 
  2. Rubin, Gayle S. (১৯৮৪), "Thinking sex: notes for a radical theory of the politics of sexuality", Vance, Carole, Pleasure and danger: exploring female sexuality, Boston: Routledge & K. Paul, পৃষ্ঠা 267–319, আইএসবিএন 9780710202482.