মোহিত চট্টোপাধ্যায়

মোহিত চট্টোপাধ্যায় (জন্ম: ১ জুন ১৯৩৪ - মৃত্যু: ১২ এপ্রিল ২০১২) একজন বাঙালি ভারতীয় নাট্যকার, চিত্রনাট্যকার এবং কবি ছিলেন। তিনি আধুনিক ভারতীয় নাটকের শীর্ষস্থানীয় ব্যক্তিত্ব ছিলেন। মোহিত চট্টোপাধ্যায় ১২ই এপ্রিল ২০১২ সালে মারা যান। তিনি ক্যান্সারে ভুগছিলেন।

মোহিত চট্টোপাধ্যায়
মোহিত চট্টোপাধ্যায়.jpg
জন্ম(১৯৩৪-০৬-০১)১ জুন ১৯৩৪
বরিশাল, বেঙ্গল প্রেসিডেন্সি, ব্রিটিশ ভারত (বর্তমান বাংলাদেশ)
মৃত্যু১২ এপ্রিল ২০১২(2012-04-12) (বয়স ৭৭)
পেশানাট্যকার, চিত্রনাট্যকার ও কবি
ভাষাবাংলা
জাতীয়তাভারত ভারতীয়
নাগরিকত্বভারতীয়
শিক্ষাবাংলা সাহিত্যে স্নাতকোত্তর
শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়

প্রাথমিক জীবনসম্পাদনা

মোহিত চট্টোপাধ্যায়ের জন্ম বরিশাল শহরে, সেটি এখন বাংলাদেশের অন্তর্গত। তিনি তের বছর বয়সে পরিবারসহ বাংলাদেশ ছেড়ে কলকাতায় চলে আসেন। তিনি ছিলেন একজন আগ্রহী পাঠক। তিনি ছোটবেলাতেই লেখা শুরু করেন। কলকাতায়, বিডন স্ট্রিটে তার বাড়ির কাছে চৈতন্য গ্রন্থাগার ছিল। তিনি সেখানে প্রায়ই যেতেন। গ্রন্থাগারে তিনি লুইগি পিরানডেলোর লেখা সিক্স ক্যারেকটার্স ইন সার্চ অফ অ্যান অথার বইটি দেখেন, অযৌক্তিক নাটকের সাথে এটি তার প্রথম যোগাযোগ। ১৯৫০ সালে তিনি ম্যাট্রিক পরীক্ষা শেষ করেন এবং কলকাতার সিটি কলেজে ভর্তি হন। সিটি কলেজে অধ্যয়নকালে তিনি সমমনা সাংস্কৃতিক ব্যক্তিদের সাথে পরিচিত হন, যাঁরা পরবর্তী জীবনে বিশিষ্ট কবি, লেখক, শিল্পী হয়েছিলেন। সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়, শিবশম্ভু পাল, সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়, সন্দীপন চট্টোপাধ্যায়, শক্তি চট্টোপাধ্যায়ের মত লোকেদের সাথে তার ঘনিষ্ঠ বন্ধুত্ব হয়েছিল। কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ব্যক্তিগত প্রার্থী হিসাবে তিনি বাংলা সাহিত্যে স্নাতকোত্তর অর্জন করেন। তার শিক্ষাজীবন মুর্শিদাবাদের জঙ্গীপুর কলেজের প্রভাষক হিসাবে শুরু হয়েছিল এবং পরে তিনি সিটি কলেজে বাংলা সাহিত্যের রিডার (বরিষ্ঠ প্রভাষকের ওপরে এবং অধ্যাপকের নিচে) হিসাবে যোগ দেন।

সাহিত্য কর্মসম্পাদনা

মোহিত চট্টোপাধ্যায় কবি হিসাবে তার সাহিত্য জীবন শুরু করেছিলেন এবং পরে নাট্য রচনার দিকে চলে যান। তিনি তার বন্ধুদের সাথে গদ্য কবিতা লিখতে শুরু করেছিলেন, এবং অন্ত্যমিল সম্পর্কে তার আগ্রহ খুব কম ছিল। প্রথমে তার কবিতা বিভিন্ন পত্রিকায় প্রকাশিত হয় এবং পরে এটি তার কবিতা সংগ্রহ হিসাবে বই আকারে প্রকাশিত হয়।

পরবর্তীকালে, তিনি কবিতা লেখা বন্ধ করে পুরোপুরি নাটক লেখার দিকে চলে গিয়েছিলেন। প্রথম থেকেই তিনি বাস্তববাদী নাটক লেখা এড়িয়ে গেছেন এবং রহস্যময় নাটক লিখেছেন, প্রায়শই সম্পূর্ণ রাজনৈতিক নাটকও লিখেছেন। তিনি উদ্ভট নাট্যকার হিসাবে নিজেকে স্বীকার করেননি, বলেছেন তার নাটকগুলি "অযৌক্তিক নাটকের" এর দর্শন মেনে চলে না তবে প্রায়শই তাকে ভারতীয় অযৌক্তিক নাটকের সূচক হিসাবে উল্লেখ করা হয়। তার নাটকের রহস্যপূর্ণ প্রকৃতি, সমালোচকদের তার নাটকগুলিকে বাংলায় "কিমিতিবাদী" (কিম + ইতি) বলে ডাকতে উৎসাহিত করেছিল, যার অর্থ, "এটি কী?”

একজন প্রবীণ নাট্যকার হিসাবে তিনি প্রায় শতাধিক নাটক রচনা করেছেন। তার কয়েকটি নাটক বিভিন্ন ভাষায় অনূদিত হয়েছে এবং নিয়মিতভাবে সারা ভারত জুড়ে বিভিন্ন থিয়েটার দল দ্বারা মঞ্চস্থ হয়েছে। পূর্ণ দৈর্ঘ্য নাটক ছাড়া অন্য, মোহিত চট্টোপাধ্যায় একাঙ্ক নাটক, কাব্য নাটক, নাটিকা (ক্ষুদ্র নাটক) রচনা করেছেন; তিনি অন্যান্য ভাষা থেকে বাংলা ভাষায় বেশ কয়েকটি নাটক উপযোগী করেছেন, সম্পাদনা করেছেন এবং অনুবাদ করেছেন।

তার রাজরক্ত (গিনি পিগ) নাটকটি বাংলা রাজনৈতিক নাটকের ইতিহাসের মাইলফলক হিসাবে বিবেচিত। বিভাশ চক্রবর্তীর পরিচালনায় কলকাতাভিত্তিক থিয়েটার দল থিয়েটার ওয়ার্কশপ প্রথম কলকাতায় এই নাটকটি পরিবেশন করেছিল। পরে নাটকটি বিভিন্ন ভাষায় অনুবাদ করা হয়েছিল। দিল্লিতে রাজিন্দরনাথের হিন্দি সংস্করণটি পরিচালনা করেছিলেন। বিখ্যাত অভিনেতা কুলভূষণ খারবান্দা নাটকটিতে অভিনয় করেছিলেন। মুম্বাইয়ে সত্যদেব দুবে নাটকটি পরিচালনা করেছিলেন এবং অমরেশ পুরী এতে অভিনয় করেছিলেন। অমল পালেকর মারাঠি সংস্করণে অভিনয় করেছিলেন এবং শ্যামানন্দ জলান নাটকটির আর একটি হিন্দি সংস্করণ তৈরি করেছিলেন। রাজনৈতিক কারণে ভারত সরকার এই নাটকের অভিনয় নিষিদ্ধ করেছিল।

চলচ্চিত্র চিত্রনাট্য এবং দূরদর্শন চিত্রনাট্যসম্পাদনা

১৯৭৩ সালে মোহিত চট্টোপাধ্যায় মৃণাল সেনের ঘনিষ্ঠ সহযোগিতায় কোরাস ছবির চিত্রনাট্যের কাজ শুরু করেছিলেন। তিনি ছবিতে ব্যবহৃত গানের কথাও লিখেছিলেন। পরের বছরগুলিতে তিনি মৃণাল সেনের চারটি চলচ্চিত্রের চিত্রনাট্য রচনা করেছিলেন, সেগুলি হল মৃগয়া (১৯৭৬) পরশুরাম (১৯৮০), ওকা উরি কথা (১৯৭৭), জেনেসিস (১৯৮৬)। এই সমস্ত চলচ্চিত্র জাতীয় এবং আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবে অসংখ্য পুরস্কার পেয়েছিল। ১৯৯৭ সালে তিনি দামু চলচ্চিত্রের চিত্রনাট্য এবং গানের কথা লিখেছিলেন, যা শিশুদের সেরা চলচ্চিত্রের জন্য জাতীয় পুরস্কার এবং অন্যান্য পুরস্কার পেয়েছিল।

১৯৮০ সালে মোহিত চট্টোপাধ্যায় তার প্রথম এবং একমাত্র শিশুদের চলচ্চিত্র পরিচালনা করেছিলেন, যেটি ছিল মেঘের খেলা​​। তিনি গল্প ও চিত্রনাট্য লিখেছিলেন। রাজা সেন, যিনি পরবর্তী সময়ে একজন দক্ষ চলচ্চিত্র পরিচালক হয়ে উঠেছিলেন, তিনি ছিলেন সহকারী পরিচালক; দৃশ্যগ্রহণে ছিলেন রণজিৎ রায়; দেবাশিস দাশগুপ্ত সংগীত পরিচালক ছিলেন এবং মৃন্ময় চক্রবর্তী সম্পাদনার দায়িত্বে ছিলেন। ছবিটি সমালোচকদের প্রশংসা পেয়েছিল। এটি বিভিন্ন জাতীয় এবং আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবে প্রদর্শিত হয়েছিল এবং বুখারেস্ট শিশু চলচ্চিত্র উৎসবে সম্মানজনকভাবে উল্লিখিত হয়েছিল। অস্ট্রিয়ান জাতীয় টেলিভিশন ফিল্মের অধিকার কিনেছিল এবং এটি তার জাতীয় চ্যানেলে প্রচার করেছিল। মোহিত চট্টোপাধ্যায় পরের বছরগুলিতে দূরদর্শন ধারাবাহিকের (টিভি সিরিজ) জন্য চিত্রনাট্য লিখতে শুরু করেছিলেন। তার প্রায় সমস্ত দূরদর্শন চিত্রনাট্য পরিচালনা করেছিলেন রাজা সেন। সুবর্ণলতা, আরোগ্যনিকেতন, আদর্শ হিন্দু হোটেল ইত্যাদি কলকাতার দূরদর্শনের অন্যতম জনপ্রিয় এবং সমালোচনার সঙ্গে প্রশংসিত দূরদর্শন ধারাবাহিক ছিল। তিনি চিত্রনাট্য লিখে যাচ্ছিলেন এবং পরবর্তী সময়ে অন্যান্য পরিচালকের সাথেও কাজ করেছিলেন।

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

বহিঃসংযোগসম্পাদনা