মোহাম্মদ আবদুল হক

বাংলাদেশী রাজনীতিবিদ

মোহাম্মদ আবদুল হক (১৯১৮-১৯৯৬) যিনি এম. এ. হক নামে পরিচিত। ছিলেন সাবেক মন্ত্রী, সংসদ সদস্য, পুলিশের আইজিপি, লেখক ও বাংলাদেশ এসোসিয়েশন অব ইন্টারন্যাশনাল রিক্রুটিং এজেন্সিসের (বায়রা) প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি।[১][২][৩]

মোহাম্মদ আবদুল হক
বাংলাদেশের ভূমি মন্ত্রী
কাজের মেয়াদ
১৯৮৪ – ১৯৮৫
সিলেট-১০ আসনের সংসদ সদস্য
কাজের মেয়াদ
১৮ ফেব্রুয়ারি ১৯৭৯ – ১২ ফেব্রুয়ারি ১৯৮২
ব্যক্তিগত বিবরণ
জন্ম(১৯১৮-০১-০১)১ জানুয়ারি ১৯১৮
কামালপুর, জকিগঞ্জ, সিলেট, ব্রিটিশ ভারত,
(বর্তমান বাংলাদেশ)
মৃত্যু৬ এপ্রিল ১৯৯৬(1996-04-06) (বয়স ৬৮)
ঢাকা
নাগরিকত্বব্রিটিশ ভারত (১৯৪৭ সাল পর্যন্ত)
পাকিস্তান (১৯৭১ সালের পূর্বে)
বাংলাদেশ
রাজনৈতিক দলজাতীয় পার্টি
বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল
দাম্পত্য সঙ্গীবেগম ফাহমিদা
সন্তান১ ছেলে ও ২ মেয়ে

জন্ম ও প্রাথমিক জীবন

সম্পাদনা

মোহাম্মদ আবদুল হকের জন্ম ১ জানুয়ারি ১৯১৮ সালে ব্রিটিশ ভারতের আসামের সিলেট জেলার জকিগঞ্জের কমলপুর। তার পিতা মোহাম্মদ সবজান আলী ও মাতা সকিনা খাতুন। তিনি ১৯৪২ সালে মুরারি চাঁদ কলেজ থেকে ইংরেজিতে বিএ ডিগ্রি অর্জন করেন।[১]

কর্মজীবন

সম্পাদনা

মোহাম্মদ আবদুল হক ১৯৪৩ সালে আসাম পাবলিক সার্ভিস কমিশন পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন এবং উপ-সুপারিনটেন্ডেন্ট পদে পুলিশে নিযুক্ত হন। ১৯৪৭ সালে ভারত বিভাগের পরে তিনি পাকিস্তান পুলিশ সার্ভিসে যোগদানের সিদ্ধান্ত নেন। তিনি ঢাকা জেলা, ময়মনসিংহ জেলা, নোয়াখালী জেলা, এবং রংপুর জেলার জেলা পুলিশ সুপার হিসাবে দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৫৯ সালে তাকে রাষ্ট্রপতি পুলিশ পদক দেওয়া হয়। ১৯৬০ সালে তাকে অতিরিক্ত পুলিশ মহাপরিদর্শক করা হয়। ১৯৬৩ সালে তিনি তমঘা-ই-পাকিস্তান ভূষিত হন। ১৯৬৫ থেকে ১৯৬৯ সাল পর্যন্ত তিনি সড়ক পরিবহন কর্পোরেশনের চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করেন। তিনি ১৯৬৯ সালে পাকিস্তান সরকার থেকে সিতারা-ই-খিদমত পুরস্কার পেয়েছিলেন। [১]

মোহাম্মদ আবদুল হক অবসর গ্রহণের পর একটি হাসপাতাল প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। তার হাসপাতাল বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের সময় বেসামরিকদের আশ্রয়স্থল হিসাবে কাজ করেছিল। তিনি ১৯৭০-এর দশকে রাজনীতিতে যোগ দিয়েছিলেন। জিয়াউর রহমানের বিএনপিতে যোগ দিয়ে ১৯৭৯ সালের নির্বাচনে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল তাকে না দিলে স্বতন্ত্র হিসাবে সাবেক সিলেট-১০ (বর্তমান সিলেট-৫) আসন থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।[২] ১৯৮৫ থেকে ১৯৮৬ সাল পর্যন্ত তিনি রাষ্ট্রপতি হুসেন মোহাম্মদ এরশাদের মন্ত্রিসভায় ভূমি প্রশাসন ও ভূমি সংস্কারমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। এম এ হক জনদলের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি (১৯৮৫-৮৬) হিসেবে দায়িত্ব পালন করলেও পরবর্তীতে ১৯৮৭ সালে রাজনীতি থেকে অবসর গ্রহণ করেন। তিনি জনহিতকর অবদানের জন্য ভাসানী পদক এবং শেরে বাংলা পদক পেয়েছিলেন। [১]

ব্যক্তিগত জীবন

সম্পাদনা

তিনি চট্রগ্রামের এসপি থাকার সময় তিনি তৎকালীন পাকিস্তান জাতীয় পরিষদের স্পিকার ও ভারপ্রাপ্ত প্রেসিডেন্ট ফজলুল কাদের চৌধুরীর বোন তথা সালাহউদ্দিন কাদের চৌধুরীর ফুফু ফাহমিদা বেগমকে বিয়ে করেন। তাদের এক ছেলে মোহাম্মদ রিয়াজুল হক, দুই কন্যা সংঙ্গীত শিল্পী রেহানা আশিকুর রহমান ও মিডিয়া ব্যক্তি ফারহানা হক রাহমানের জনক।

গ্রন্থ

সম্পাদনা

তার রচিত উল্লেখযোগ্য গ্রন্থ-[১]

  • রাহুগ্রস্ত বাংলাদেশ
  • দেশটা কি রসাতলে যাবে
  • সৃষ্টির সেরা শত মানব
  • দারিদ্র্য বিমোচন
  • Yahya’s Master Plan

মৃত্যু

সম্পাদনা

মোহাম্মদ আবদুল হক ৬ এপ্রিল ১৯৯৬ সালে বাংলাদেশের ঢাকায় মারা যান। বনানী কবরস্থানে তাকে সমাহিত করে হয়। তার স্মৃতিতে এম এ হক ফাউন্ডেশন গঠন করে হয়। [১]

তথ্যসূত্র

সম্পাদনা
  1. শাহীদা আখতার (২০১২)। "হক, মোহাম্মদ আবদুল"ইসলাম, সিরাজুল; মিয়া, সাজাহান; খানম, মাহফুজা; আহমেদ, সাব্বীর। বাংলাপিডিয়া: বাংলাদেশের জাতীয় বিশ্বকোষ (২য় সংস্করণ)। ঢাকা, বাংলাদেশ: বাংলাপিডিয়া ট্রাস্ট, বাংলাদেশ এশিয়াটিক সোসাইটিআইএসবিএন 9843205901ওএল 30677644Mওসিএলসি 883871743 
  2. "২য় জাতীয় সংসদে নির্বাচিত মাননীয় সংসদ-সদস্যদের নামের তালিকা" (পিডিএফ)জাতীয় সংসদবাংলাদেশ সরকার। ৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮ তারিখে মূল (পিডিএফ) থেকে আর্কাইভ করা। 
  3. "জকিগঞ্জ উপজেলাঃ প্রখ্যাত ব্যক্তিত্ব"বাংলাদেশ জাতীয় তথ্য বাতায়ন। ২৮ আগস্ট ২০১৯। ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯