মেজর সুন্দররাজন

ভারতীয় অভিনেতা

মেজর সুন্দররাজন (১৯৩৫-২০০৩) ভারতের তামিল চলচ্চিত্র জগতের একজন অভিনেতা ছিলেন।

মেজর সুন্দররাজন
মেজর সুন্দররাজন.jpg
১৯৬৬ সালের চলচ্চিত্র মেজর চন্দ্রকান্ততে সুন্দররাজন
জন্ম
সুন্দররাজন

(১৯৩৫-০৩-১৭)১৭ মার্চ ১৯৩৫
মৃত্যু২৮ ফেব্রুয়ারি ২০০৩(2003-02-28) (বয়স ৬৭)
পেশাঅভিনেতা, পরিচালক
কর্মজীবন১৯৬২-২০০৩
দাম্পত্য সঙ্গীশ্যামলা

পূর্ব জীবনসম্পাদনা

১৯৩৫ সালের ১৭ই মার্চ জন্মগ্রহণ করেন সুন্দররাজন মাদুরাইের পেরিয়াকুলামে, একটি মধ্যবিত্ত ব্রাহ্মণ পরিবারে জন্ম হয়েছিলো তার।[১] তার বাবা শ্রীনিবাস আইঙ্গার ছিলেন একজন মঞ্চ নাটক অভিনেতা। সুন্দররাজন তার বাবাকে দেখে ষষ্ঠ শ্রেণীতেই মঞ্চ নাটক অভিনয়ে যোগ দেন, তবে তিনি হিন্দি ভাষার নাটকে অভিনয় করেছিলেন সর্বপ্রথম এবং সেটি ছিলো তার নিজের বিদ্যালয়ে। এরপর মহাবিদ্যালয়ে উঠে তিনি তামিল মঞ্চ নাটকে অভিনয় করা শুরু করেন।[২] সুন্দরাজন মহাবিদ্যালয়ের পর্ব শেষ করে মাদ্রাজ শহরে আসেন এবং বড় বড় মঞ্চ নাটক প্রতিষ্ঠানের হয়ে কাজ করা শুরু করেন। ট্রিপলিকেন ফাইন আর্টস থিয়েটারে সুন্দররাজন মূলত কাজ করতেন।

কর্মজীবনসম্পাদনা

সুন্দররাজন পঞ্চাশের দশকের শেষের দিকে "বৈজয়ন্তীমালা" নামের একটি চলচ্চিত্রে সর্বপ্রথম অভিনয় করার সুযোগ পান যদিও চলচ্চিত্রটি আলোর মুখ দেখেনি অর্থাৎ মুক্তি পায়নি কখনো; এরপর সুন্দররাজন কে. সোমু পরিচালিত "পাট্টিনাদার" চলচ্চিত্রে অভিনয় করেন যেটা ১৯৬২ সালে মুক্তি পায়, চলচ্চিত্রটি তিনি একজন তামিল-রাজা চরিত্রে অভিনয় করেন (চোল সাম্রাজ্যের রাজা)। তামিল চলচ্চিত্র জগতের নামকরা পরিচালক কৈলাস বলচন্দ সুন্দররাজনকে নিয়ে "মেজর চন্দ্রকান্ত" নামের একটি নাটক (টেলিভিশন নাটক) বানান ১৯৬৩ সালে এবং তারপর ১৯৬৬ সালে বলচন্দ একই নামের একটি চলচ্চিত্র বানান এবং সেটা জনপ্রিয়তা পেয়ে যায় আর তখন থেকেই সুন্দররাজন নিজেই নিজের নাম "মেজর সুন্দররাজন" রাখেন যদিও মূলত একটি সাময়িকী তার নাম এরূপ প্রথম রাখে যেটার নাম ছিলো "পেসুম পাড়াম"।

মৃত্যুসম্পাদনা

২০০৩ সালের ২৮শে ফেব্রুয়ারি সুন্দররাজন মারা যান চেন্নাইতে[৩]

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "'Major' Sundararajan"The Guardian। ১৫ মার্চ ২০০৩। ১৮ এপ্রিল ২০১৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০ 
  2. Majordasan। "Potpourri of titbits about Tamil cinema – Major Sundarrajan"Kalyanamalai। পৃষ্ঠা 1। ৩ মার্চ ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২২ মার্চ ২০২০ 
  3. "`Major' Sundararajan dead"The Hindu। ১ মার্চ ২০০৩। ৩ ডিসেম্বর ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৮ মে ২০১৮ 

বহিঃসংযোগসম্পাদনা