মাত্রিমোনিও আলইতালিয়ানা

মাত্রিমোনিও আলইতালিয়া (ইতালীয় ধরনের বিবাহ) ১৯৬৪ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত একটি ইতালীয় চলচ্চিত্র। ভিত্তোরিও দে সিকা ছবিটি পরিচালনা করেন। চলচ্চিত্রের শ্রেষ্ঠাংশে রয়েছেন সোফিয়া লরেন, মারচেল্লো মাস্ত্রোইয়ান্নি ও ভিতো মোরিকোনে। [২]

মাত্রিমোনিও আলইতালিয়ানা
মাত্রিমোনিও আলইতালিয়ানা পোস্টার.jpg
মার্কিন পুনঃমুক্তির চলচ্চিত্রের পোস্টার
পরিচালকভিত্তোরিও দে সিকা
প্রযোজককার্লো পোন্তি
চিত্রনাট্যকাররেনাতো কাস্তেলান্নি
তোনিনো গুয়েররা
লিও বেনভেনুতি
পিয়েরো দি বার্নার্দি
উৎসফিলুমেনা মারতুরানো
by এদুয়ার্দো দি ফিলিপ্পো
শ্রেষ্ঠাংশেসোফিয়া লরেন
মারচেল্লো মাস্ত্রোইয়ান্নি
আলদো পুগলিসি
তেকলা স্কারানো
মারিলু তোলো
সুরকারআর্মান্দো ত্রোভাজোলি
চিত্রগ্রাহকরবার্তো জেরার্দি
সম্পাদকআদ্রিয়ানা নোভেল্লি
প্রযোজনা
কোম্পানি
কোম্পাগনিয়া সিনেমাতোগ্রাফিকা চ্যাম্পিয়ন
লে ফিল্মস কনকোর্দিয়া
পরিবেশকইন্টারফিল্ম (ইতালি)
এম্ব্যাসি পিকচার্স (যুক্তরাষ্ট্র)
মুক্তি
  • ১৯৬৪ (1964)
দৈর্ঘ্য১০২ মিনিট
দেশইতালি
ফ্রান্স
ভাষাইতালীয়, নিয়াপলিটান
আয়$৪.১ million (US/Canada) (rentals)[১]

লিওনার্দো বেনভেনুতি, রেনাতো কাস্তেলান্নি, পিয়েরো দি বার্নার্দি ও তোনিনো গুয়েররা এদুয়ার্দো দি ফিলিপ্পোর "ফিলুমেনা মারতুরানো" নাটক অবলম্বনে ছবিটি নির্মাণ করেন।

এর পূর্বে নাটকটি থেকে আর্জেন্টিনায় ১৯৫০ সালে একটি চলচ্চিত্র নির্মাণ করা হয়েছিল।

কাহিনীসংক্ষেপসম্পাদনা

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময়ের কথা। ২৮ বছর বয়স্ক একজন সফল ব্যবসায়ী দোমেনিকো একদিন বাইরে বোমাবর্ষণের সময় নিয়াপলিটান গণিকালয়ে প্রবেশ করে ১৭ বছর বয়সী পল্লিনারী ফিলুমিনার সাথে দেখা করে। ২২ বছর ধরে এটা চলতে থাকে। শুরু থেকেই ফিলুমিনা দোমেনিকোকে গভীরভাবে ভালোবাসে। কিন্তু এর পরিবর্তে সে কিছুই পায় না। ফিলুমিমা যখন দোমেনিকোর জীবনের একমাত্র নারী হওয়ার বাসনা প্রকাশ করে, তখন দোমেনিকো তার সাথে একটি বন্দোবস্ত করার সিদ্ধান্ত নেয়। সে রোজালিকে চাকরানি ও আলফ্রেদোকেও চাকর হিসেবে নিয়োগ দেয়। তারপর দোমেনিকো ফিলুমিনাকে উপপত্নী হিসেবে বাড়িতে নিয়ে যায়। সে বলে বেড়ায়, ফিলুমিনা কারমেলোর (দোমেনিকোর মার পুরাতন চাকরানি) ভাতিজি, যে তার মার যত্ন নিতে এসেছে। কিন্তু ফিলুমিনার অতীত দোমেনিকোকে তাদের দুজনের সম্পর্ক নিয়ে গভীরভাবে চিন্তা করা থেকে বিরত রাখে।

ডোমেনিকোর বয়স এখন পঞ্চাশ। সে তার দোকানের বিশ বছর বয়সী ক্যাশিয়ারের প্রেমে পড়ে। কিন্তু ফিলুমিনা যখন অসুস্থতার ভান করে এবং বলে, সে মৃত্যুশয্যায় শায়িত ও তাকে বিয়ে করতে চায়। দোমেনিকোর মন দয়ার্দ্র হয়ে ওঠে। তাছাড়া তাদের বিয়ে আইনিভাবেও নিবন্ধিত হবে না। দোমেনিকো আর ফিলুমিনার বিয়ে হয়ে যাওয়ার পর ফিলুমিনা সব সত্য প্রকাশ করে দেয়। দোমেনিকো মারাত্মকভাবে ক্ষুব্ধ হয়। ফিলুমিনা বলে, সে তার তিন ছেলে উমবার্তো, রিকার্দো ও মিচেলের জন্যই এ কাজ করেছে।

দোমেনিকো এই প্রতারণা মেনে নিতে পারে না। সে এই বিয়ে ভাঙার জন্য আদালতে মামলা করে। আদালত দোমেনিকোর পক্ষে রায় দিয়ে দেয়। ফিলুমিনা এ রায় মেনে নেয় এবং বলে, তার তিন ছেলের মধ্যে একজন দোমেনিকোর। কিন্তু কোনজন, সেটি সে বলতে চায় না, কারণ সব সন্তানকেই ফিলুমিনা সমান চোখে দেখে। ছেলের পরিচয় জানার জন্য দোমেনিকো পাগল হয়ে পড়ে। সে বারবার ফিলুমিনাকে চাপ দেয়, কিন্তু ফিলুমিনা তার অবস্থানে অনড় থাকে।

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "All-time Film Rental Champs", Variety, 7 January 1976 p 50
  2. https://movies.nytimes.com/movie/31545/Marriage-Italian-Style/details

বহিঃসংযোগসম্পাদনা