ভারতবর্ষ (পত্রিকা)

ভারতবর্ষ বিখ্যাত নাট্যকারগীতিকার দ্বিজেন্দ্রলাল রায়ের উদ্যোগে কলকাতা থেকে প্রকাশিত বাংলা সচিত্র মাসিক পত্রিকা। [১]

ঊনবিংশ শতাব্দীতে বাংলা ভাষা ও সাহিত্যের উন্নয়নে ১৯১২ খ্রিস্টাব্দে বেঙ্গল মেডিক্যাল লাইব্রেরী থেকে বাংলা মাসিক ভারতবর্ষ পত্রিকা প্রকাশ করার পরিকল্পনা হয়। সম্পাদনা করার কথা ছিল দ্বিজেন্দ্রলাল রায়ের। সেই মত তিনি প্রথম সংখ্যার জন্য সূচনা লিখেছিলেন -

" বড় অবজ্ঞার পর্ব্বতভার ঠেলিয়া বঙ্গভাষাকে উঠিতে হইতেছে। ...‌আমাদের শাসন –‌কর্তারা যদি বঙ্গসাহিত্যের আদর জানিতেন, তাহা হইলে বিদ্যাসাগর, বঙ্কিমচন্দ্র ও মাইকেল peerage ‌পাইতেন ও রবীন্দ্রনাথ knight ‌উপাধিতে ভূষিত হইতেন। দ্বিতীয়ত, আমাদের দেশের রাজা মহারাজাদের মধ্যে অধিকাংশই বাঙ্গলা ভাষা সম্যক জানেন না ও তাহার আদর করেন না। তাঁহাদের সজ্জিত প্রাসাদের প্রশস্ত পাঠাগারে যথামূল্য আলমারিগুলি অপঠিত ইংরেজি গ্রন্থের ও মাসিক পত্রিকার উজ্জ্বল সমাবেশ সগর্ব্বে বক্ষে ধারণ করিতেছে। কিন্তু বাঙ্গালা গ্রন্থ ও মাসিক পত্রিকা তাঁহাদের চরণ–‌প্রান্তেও স্থান পায় না।’‌'

[২]

বাংলা ভাষার প্রতি তৎকালীন শাসকের "অবজ্ঞা" দূর করে সাহিত্যের উন্নতি সাধনের লক্ষ্যই স্থির করা হয়েছিল। কিন্তু পত্রিকা প্রকাশের ঠিক এক মাস আগেই ১৯১৩ খ্রিস্টাব্দের ১৭ ই মে মূল উদ্যোক্তা তথা প্রতিষ্ঠাতা দ্বিজেন্দ্রলাল রায় প্রয়াত হন। অতঃপর ১৯১৩ খ্রিস্টাব্দের জুন মাসে (১৩২০ বঙ্গাব্দের পয়লা আষাঢ়) কলকাতার পুস্তক প্রকাশনা সংস্থা গুরুদাস চট্টোপাধ্যায় অ্যান্ড সন্স থেকে ভারতবর্ষ প্রকাশিত হয়। মূখ্যত জলধর সেন ছিলেন পত্রিকাটির সম্পাদক এবং সহকারী সম্পাদক ছিলেন অমূল্যচরণ বিদ্যাভূষণ। জলধর সেন শুরু থেকেই দীর্ঘ ছাব্বিশ বৎসর কৃতিত্বের সাথে পত্রিকাটির সম্পাদনা করেন। এরপর সম্পাদনার দায়িত্ব নেন ফনীন্দ্রনাথ মুখোপাধ্যায়। বিখ্যাত শিল্পীদের আঁকা ছবি, সাহিত্য, বিজ্ঞান, চারুকলা, ধর্ম-দর্শন, ইতিহাস প্রত্নতত্ত্ব বিষয় স্থান পেত পত্রিকাটিতে। খ্যাতনামা সাহিত্যিকদের উপন্যাস, ছোটগল্প,নাটক, গীতিকাব্য, ভ্রমণ, পুস্তক সমালোচনা নিয়মিত পরিবেশিত হত। এছাড়া খেলাধুলা, শিশু ও নারীদের বিভাগ, চলচ্চিত্র, সাহিত্য সংবাদ, সমকালীন জাতীয় ও আন্তর্জাতিক স্তরের সংবাদ, কার্টুনসহ বিভিন্ন বিষয় পত্রিকাটির জনপ্রিয়তা বৃদ্ধি করেছিল।

পত্রিকার প্রধান লেখকদের মধ্যে ছিলেন -

১৯৬৯ - ৭০ খ্রিস্টাব্দে ভারতবর্ষ পত্রিকার প্রকাশনা বন্ধ হয়।

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. শিশিরকুমার দাশ সংকলিত ও সম্পাদিত, সংসদ বাংলা সাহিত্যসঙ্গী, সাহিত্য সংসদ, কলকাতা, আগস্ট ২০১৯, পৃষ্ঠা ১৫৮ আইএসবিএন ৯৭৮-৮১-৭৯৫৫-০০৭-৯ আইএসবিএন বৈধ নয়
  2. "এই সাহিত্য সাগরে ডুব দিলেই পুণ্য"। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-১১-২৩