বিশ্ব মুসলিম লীগ

সংস্থা

বিশ্ব মুসলিম লীগ (MWL; আরবি: رابطة العالم الاسلامي‎, প্রতিবর্ণী. Rabitat al-Alam al-Islami‎, আরবি উচ্চারণ: [ra:bitˤat al ʕa:lami al isla:mij]) হলো একটি আন্তর্জাতিক ইসলামিক[১] এনজিও যা সৌদি আরবের মক্কায় অবস্থিত। বিশ্ব মুসলিম লিগ শান্তি, সহনশীলতা এবং সম্প্রীতি প্রচার করার মাধ্যমে মধ্যপন্থী মূল্যবোধকে মূলধারায় রেখে করে ইসলামের প্রকৃত বার্তাকে সবার মাঝে স্পষ্ট করে তুলে ধরার দাবি করে।[২][৩][৪]

বিশ্ব মুসলিম লীগ-এর লোগো

সংস্থাটিকে ১৯৬২ সালের সূচনালগ্ন থেকে সৌদি সরকার কর্তৃক অর্থায়ন করা হয়েছে, যার পরিমাণ ১৯৮০ সালের মধ্যে প্রায় $১৩ মিলিয়নে মার্কিন ডলারে বৃদ্ধি পেয়েছিল। যেহেতু সংস্থাটি সৌদি আরব থেকে এককভাবে ব্যাপক অর্থায়ন পেয়েছে, তাই সংস্থাটি সৌদি রাষ্ট্রের প্রচারিত এবং প্রচলিত ইসলামী নীতির প্রতিনিধি হিসাবে ব্যাপকভাবে স্বীকৃত। সৌদি আরবের আধুনিকীকরণ এজেন্ডা, ভিশন ২০৩০ এর অধীনে, দেশটি ইসলামের একটি মধ্যপন্থী রূপ গ্রহণ করেছে, যা বিশ্ব মুসলিম লীগ সৌদি আরব এবং সারা বিশ্বে প্রচার করতে চায়। সংস্থাটিকে ব্যাপকভাবে সালাফিবাদের প্রচারমাধ্যম হিসেবে গণ্য করা হয়। ইসলামের অক্সফোর্ড অভিধান উল্লেখিত যে "সংস্থাটি সৌদি আরব সরকারের মুখপত্র হিসাবে কাজ করেছে, এবং সৌদি আরব সংস্থাটিকে অর্থায়ন করে।"

মুহাম্মদ বিন আব্দুল করিম ইসা সংস্থাটির সাধারণ সম্পাদক।[৩] সংগঠনটি ইসলাম ধর্মের প্রচার করে, দাওয়াতকে উৎসাহিত করে এবং অমুসলিমদের ধর্মান্তরিত করে,[৩] এবং ইসলামের সমালোচনাকে তিরস্কার করে। সংগঠনটি মসজিদ নির্মাণ, প্রাকৃতিক দুর্যোগে ক্ষতিগ্রস্ত মুসলমানদের জন্য আর্থিক ত্রাণ, কুরআনের কপি বিতরণ এবং মুসলিম সংখ্যালঘু গোষ্ঠীর রাজনৈতিক বিস্তারে অর্থায়ন করে থাকে।[৫] সংস্থাটি বলে থাকে যে, তারা সমস্ত সহিংসতাকে প্রত্যাখ্যান করে এবং অন্যান্য সংস্কৃতির লোকেদের সাথে সংলাপ এবং আলোচনা প্রচার করে, তাদেরকে ইসলামী শরিয়া বোঝানোর চেষ্টা করে।

২০১৬ সাল থেকে, বিশ্ব মুসলিম লীগ চরমপন্থী মতাদর্শের বিরুদ্ধে লড়াই করার জন্য নিবেদিত সৌদি আরবের একটি নেতৃস্থানীয় সংগঠন হিসাবে ব্যাপকভাবে স্বীকৃত পায়। সরকারি কর্মকর্তারা চরমপন্থার সাথে ঘনিষ্ঠভাবে জড়িত ঘৃণা, অনৈক্য এবং সহিংসতার মোকাবিলায় তার অঙ্গীকারের জন্য বিশ্ব মুসলিম লীগের প্রশংসা করেছেন।[৬][৭][৮] সন্ত্রাসবাদ সম্পর্কিত ২০১৯ সালের কান্ট্রি রিপোর্টে, মার্কিন স্টেট ডিপার্টমেন্ট বলেছে যে বিশ্ব মুসলিম লীগের সেক্রেটারি জেনারেল, ডঃ আল-ইসা "আন্তঃধর্মীয় সংলাপ, ধর্মীয় সহনশীলতা এবং বিশ্বব্যাপী ধর্মীয় কর্তৃপক্ষের সাথে শান্তিপূর্ণ সহাবস্থানের একটি বার্তা প্রচার করছেন, যার মধ্যে আরবের বাইরের মুসলিম ইমামরাও রয়েছেন," এবং সেইসাথে বিশিষ্ট মার্কিন ইহুদিদের এবং খ্রিস্টান নেতাদের কাছে ব্যাপক ইতিবাচক প্রচার চালিয়েছেন"।[৯]

সংস্থাটি ১৯৭৮ সালে আন্তর্জাতিক ইসলামিক রিলিফ অর্গানাইজেশন প্রতিষ্ঠা করে।[১০][১১][১২][১৩]

ইতিহাসসম্পাদনা

বিশ্ব মুসলিম লীগ ১৪ ই জ্বিলহজ্জ ১৩৮১ হিজরী সালে, ইংরেজী ১৮ মে ১৯৬২ সালের মক্কায় অনুষ্ঠিত সাধারণ ইসলামী সম্মেলনের সভায় গৃহীত একটি প্রস্তাব অনুসারে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল।

১৯৬২ সালে অনুষ্ঠিত ২২ মুসলিম ধর্মীয় নেতাদের একটি বৈঠকের পর, বিশ্ব মুসলিম লীগ তৎকালীন ক্রাউন প্রিন্স ফয়সালের পৃষ্ঠপোষকতায় আলো দেখেছিল।

বিশ্ব মুসলিম লীগের প্রতিষ্ঠার পর থেকে আটজন সেক্রেটারি জেনারেল পেয়েছে।[১৪] সেক্রেটারি জেনারেল ডঃ আল-ইসা অধীনে, বিশ্ব মুসলিম লীগের উদ্দেশ্য এবং অগ্রাধিকারের একটি উল্লেখযোগ্য পরিবর্তন সাধিত হয়েছে, মুসলিম বিশ্বে দীর্ঘদিন ধরে থাকা নিষিদ্ধতা ভেঙ্গে সত্যিকারের ইসলামের মূল্যবোধ প্রচার এবং দায়িত্বশীল নেতৃত্ব প্রদর্শনের জন্য সংগঠনটির বাধ্যবাধকতা প্রতিফলিত করেছে।[১৫]

উদ্দেশ্যসম্পাদনা

বিশ্ব মুসলিম লীগের লক্ষ্য হল ইসলাম এবং কুরআনসুন্নাহতে উপস্থাপিত মধ্যপন্থী মূল্যবোধের পরিচয় দেওয়া। ব্যাপকভাবে বললে, বিশ্ব মুসলিম লীগ "শান্তি ও সম্প্রীতির" বার্তা ছড়িয়ে দিতে চায় যা সারা বিশ্বে ইসলামের সংকল্প এবং ঐক্যকে শক্তিশালী করে।[১৬] সংগঠনটি শিক্ষা, ঐতিহ্যগত, ডিজিটাল এবং সামাজিক মিডিয়া এবং আন্তর্জাতিক সম্মেলনের মাধ্যমে সত্য প্রচার ও স্পষ্ট করে চরমপন্থী মতাদর্শের বিরুদ্ধে লড়াই করে।[১৭]

বিশ্ব মুসলিম লীগ দাবি করে যে শুধুমাত্র মুসলিম সংখ্যালঘুদের অধিকার রক্ষার জন্য নয়, বরং সমস্ত সংখ্যালঘুদের পাশে রয়েছে বিশ্ব মুসলিম লীগ যারা বৈষম্যের সম্মুখীন হয় এবং প্রকাশ্য ও গোপন নিপীড়নের শিকার হয়। ওয়াশিংটন টাইমস সংস্থাটির সেক্রেটারি জেনারেলকে উদ্ধৃত করে বলেছে যে সংগঠনটি "মুসলিম বিশ্বাসের সম্পূর্ণ পরিসরকে গ্রহণ করে এবং সুন্নি ও শিয়া মুসলমানদের মধ্যে সহ, সাম্প্রদায়িক বিভাজন কমাতে চায়।"[১৮] ইসলামের বাইরে সংখ্যালঘুদের অধিকার রক্ষার বিষয়ে, বিশ্ব মুসলিম লীগের নেতৃত্ব ২০১৯ সালে নিউজউইকের মতামত সম্পাদকীয় অংশে লিখেছেন যে মক্কার সনদ "আমরা নারী এবং সংখ্যালঘু সহ সকল মানুষের মানবাধিকার সংরক্ষণের দাবি করি।"[১৯]

মক্কার সনদসম্পাদনা

২০১৯ সালে, বিশ্ব মুসলিম লীগ মূলত মক্কার সনদের ধারণা ও বাস্তবায়নে অবদান রেখেছিল, যা ছিলো একটি যুগান্তকারী চুক্তি যার লক্ষ্য মুসলমানদের ইসলামের সত্য, মধ্যপন্থী এবং অন্তর্ভুক্তিমূলক নীতি প্রদান করা।[২০]

সনদ প্রতিষ্ঠা করাসম্পাদনা

আমরা বিশ্ব মুসলিম লীগের সদস্যরা, ধর্মীয়ভাবে এটির প্রতিনিধিত্ব করছি, এইভাবে সর্বশক্তিমান আল্লাহর সামনে প্রতিশ্রুতি দিচ্ছি যে, সারা বিশ্বে তাঁর বাণী প্রচার ও ঘোষণার মাধ্যমে আল্লাহর প্রতি আমাদের বাধ্যবাধকতা পালন করব। আমরা আমাদের বিশ্বাসকে আবারও দৃঢ় করছি যে, ইসলামের নীতির প্রয়োগ ছাড়া পৃথিবীতে শান্তি আসবে না। · মানবজাতির সাধারণ মঙ্গল ও সুখের জন্য, সামাজিক ন্যায়বিচার এবং একটি উন্নত মানব সমাজ প্রতিষ্ঠার জন্য সকল সম্প্রদায়কে একই সাথে লড়াই করার জন্য আমন্ত্রণ জানান। · আল্লাহকে সাক্ষ্য দেই যে, আমরা অন্য কারো উপর আধিপত্য, কর্তৃত্ব বা আধিপত্য চর্চা করতে চাই না। এই লক্ষ্যগুলিকে আরও এগিয়ে নেওয়ার জন্য, আমরা প্রতিজ্ঞাবদ্ধ: · মুসলিমদের একত্রিত করা এবং সারা বিশ্বের মুসলিম সম্প্রদায়ের মধ্য থেকে সমস্ত বিভাজনকারী শক্তিকে সরিয়ে দেওয়া। · মুসলিম বিশ্ব ঐক্য প্রতিষ্ঠার পথে বাধা দূর করা। · দাতব্য কাজের সমস্ত উকিলকে সমর্থন করুন। · এই সনদের লক্ষ্যগুলিকে এগিয়ে নিতে আমাদের আধ্যাত্মিক পাশাপাশি বস্তুগত এবং নৈতিক সম্ভাবনাগুলিকে কাজে লাগান। ইতিবাচক এবং বাস্তবসম্মত উপায়ে এই উদ্দেশ্যগুলি অর্জনের জন্য প্রচেষ্টাকে একীভূত করুন। প্রাচীন ও সমসাময়িক জাহিলিয়া (প্রাক-ইসলামী যুগের মনোভাব) সমস্ত প্রাক-কালকে প্রত্যাখ্যান করুন। · সর্বদা এই সত্যটি নিশ্চিত করা যে ইসলামে আঞ্চলিকতা বা বর্ণবাদের কোন স্থান নেই।

কার্যক্রমসম্পাদনা

সেক্রেটারি জেনারেল ডঃ আল-ইসা অধীনে, বিশ্ব মুসলিম লীগ প্রায়শই আন্তর্জাতিক পোগ্রামে অংশগ্রহণ করে এবং নিজেরাও পোগ্রাম পরিচালনা করে, পাশাপাশি বিশ্বজুড়ে মানবিক সহায়তা প্রকল্পে সক্রিয় ভূমিকা পালন করে।

হালাল সার্টিফিকেশনসম্পাদনা

বিশ্ব মুসলিম লীগের বেশ কয়েকটি আঞ্চলিক ভিত্তিক ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্র রয়েছে যা বিশ্বের বিভিন্ন দেশে হালাল মাংস পণ্যের সনদ বা সার্টিফিকেশন তত্ত্বাবধান করে। শুধুমাত্র বিশ্ব মুসলিম লীগের অধিভুক্ত কেন্দ্র দ্বারা অনুমোদিত মাংস সৌদি আরবে আমদানি করার অনুমোদন আছে।[২১] এই ক্ষেত্রের বেশিরভাগ কাজ আন্তর্জাতিক ইসলামিক হালাল সংস্থার মাধ্যমে সংগঠিত হয়, হালাল খাবারের গুরুত্ব সম্পর্কে সচেতনতা ছড়িয়ে দেওয়ার জন্য প্রতিষ্ঠিত বিশ্ব মুসলিম লীগের এর একটি উপাদান সংস্থা।

আন্তর্জাতিক সংযুক্তিসম্পাদনা

  • জাতিসংঘের সংস্থা: জাতিসংঘ অর্থনৈতিক ও সামাজিক পরিষদ- এর সাথে সাধারণ পরামর্শমূলক স্থিতিতে পর্যবেক্ষক।[২২] বিশ্ব মুসলিম লীগের জেনারেল কনসালটেটিভ স্ট্যাটাসের সাথে সর্বোচ্চ স্তরের মঞ্জুরি সংস্থার কর্তৃত্ব রয়েছে কাউন্সিল মিটিং চলাকালীন মৌখিক উপস্থাপনা করার।[২৩]
  • অর্গানাইজেশন অফ ইসলামিক কো-অপারেশন : মুসলিম ওয়ার্ল্ড লিগ সকল সভা ও সম্মেলনের জন্য ওআইসিতে পর্যবেক্ষকের মর্যাদা ধারণ করে।
  • ইসলামিক ওয়ার্ল্ড এডুকেশনাল, সায়েন্টিফিক অ্যান্ড কালচারাল অর্গানাইজেশন (ICESCO): মুসলিম ওয়ার্ল্ড লিগ ২০১৯ সালে[২৪] এর সাথে সহযোগিতা ও অংশীদারিত্বের একটি চুক্তি স্বাক্ষর করে।
  • ইউনিসেফ : সদস্য
  • UNHCR: বিশ্বব্যাপী শরণার্থীদের সমর্থন করার জন্য বিশ্ব মুসলিম লীগ ২০১৯ সালে UNHCR-কে এক মিলিয়ন ডলার অনুদান দিয়েছে।[২৫]

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. Juan Eduardo Campo (১ জানুয়ারি ২০০৯)। Encyclopedia of Islam। Infobase Publishing। পৃষ্ঠা 511–। আইএসবিএন 978-1-4381-2696-8 
  2. "First Presidency Welcomes Leader of Muslim World League"newsroom.churchofjesuschrist.org (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৯-১১-০৬। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-১২-৩০ 
  3. "Muslim World League and World Assembly of Muslim Youth"Pew Research Center। ১৫ সেপ্টে ২০১০। ৯ সেপ্টেম্বর ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২ আগস্ট ২০১৩  উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; আলাদা বিষয়বস্তুর সঙ্গে "pew2010" নামটি একাধিক বার সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে
  4. The Oxford Encyclopedia of the Islamic World 
  5. Jacob M. Landau (২৪ জুলাই ২০১৫)। Pan-Islam: History and Politics। Routledge। পৃষ্ঠা 258। আইএসবিএন 978-1-317-39753-3 
  6. "Muslim World League cited in US for its anti-extremism campaign"Arab News (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৯-০২-০৯। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০১-১৫ 
  7. "Muslim World League chief honored in US for promoting peace, global harmony"Arab News (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৯-১১-০৮। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০১-১৫ 
  8. "Muslim World League chief praised for global efforts to combat extremism"Arab News (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৮-১১-০৮। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০১-১৫ 
  9. "Saudi Arabia"United States Department of State (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৮-২৭ 
  10. John L. Esposito (২০০৪)। The Oxford Dictionary of Islam। Oxford University Press। পৃষ্ঠা 139–। আইএসবিএন 978-0-19-512559-7 
  11. "Archived copy"। ২০১৪-১১-২৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৫-০১-২৬ 
  12. "Egypt: The International Islamic Relief Organization (IIRO) and whether it is involved in funding terrorist activities"। Canada: Immigration and Refugee Board of Canada। ২৮ জানু ২০০৩। ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩ নভেম্বর ২০১৫ 
  13. "International Islamic Relief Organization"। Berkley Center। ২০১৫-১০-১৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৫-১১-০৩ 
  14. "Former Secretary-Generals"Muslim World League (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৮-২৪ 
  15. EST, Mohammad al-Issa On 01/30/19 at 1:21 PM (২০১৯-০১-৩০)। "I lead the Muslim World League. Here is why I broke taboos to acknowledge the Holocaust | Opinion"Newsweek (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৮-২৪ 
  16. "Global Muslim leader brings push for peace and tolerance to meeting with top LDS leaders, other Utah officials"The Salt Lake Tribune (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-১২-৩১ 
  17. "Sheikh Works to Clarify Islam, Understand Judaism"Jewish Journal (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৯-০৪-২৪। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-১২-৩১ 
  18. http://www.washingtontimes.com, The Washington Times। "Islamic leader warns that decades-long ISIS battle only just beginning"The Washington Times (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০১-১৭ 
  19. "As head of the Muslim World League, I see Islamic leaders calling for tolerance more than ever before | Opinion"Newsweek (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৯-০৭-১০। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০১-১৭ 
  20. "The Charter of Makkah" (PDF)Saudi Embassy। মে ২০১৯। 
  21. "Islamic centers approved for issuing Halal certificate worldwide"। ২০১৯-০১-১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  22. {Cite web|url=https://www.britannica.com/topic/Muslim-World-League%7Ctitle=Muslime World League|publisher=Encyclopædia Britannica|access-date=1 September 2020}
  23. {Cite web|url= https://www.un.org/development/desa/dspd/civil-society/ecosoc-status.html#:~:text=Consultative%20status%20provides%20NGOs%20with,News%20and%20Events%20for%20samples.%7Ctitle=Basic Facts About ECOSOC Status|publisher=United Nations|access-date=1 September 2020}
  24. {Cite web|url=https://www.icesco.org/en/2019/07/04/isesco-and-muslim-world-league-sign-cooperation-and-partnership-agreement/%7Ctitle=ICESCO and Muslim World League sign cooperation and partnership agreement|publisher=Islamic World Educational, Scientific and Cultural Organization|date=4 July 2019|ccess-date=1 September 2020}
  25. "MWL Contributes to UNHCR With $1M"Asharq AL-awsat (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৫-০৯ 

বহিঃসংযোগসম্পাদনা