"মিশরীয় চিত্রলিপি" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

খ্রিষ্টাব্দ > খ্রিস্টাব্দ
(রোবট মুছে ফেলছে: ps:هیروغلیف পরিবর্তন সাধন করছে: fr:Hiéroglyphe égyptien; cosmetic changes)
(খ্রিষ্টাব্দ > খ্রিস্টাব্দ)
|type=[[ভাবলিপি]]
|typedesc=[[আবজাদ]]-এর (abjad) মতো ব্যবহার্য
|time=খ্রিষ্টপূর্ব ৩২০০ অব্দ – ৪০০ খ্রিষ্টাব্দখ্রিস্টাব্দ
|languages=[[মিশরীয় ভাষা]]
|family=([[লেখালেখির ইতিহাস#Proto-writing|Proto-writing]])
 
== ইতিহাস ==
মিশরীয় [[ফারাও]] [[মেনেস|মেনেসের]] রাজত্বকালে হায়ারোগ্লিফিক লিপির সৃষ্টি। [[চিত্রলিপি]] না হলেও মিশরীয় হায়ারোগ্লিফিক চিত্ররূপময়। এই লিপিতে সর্বশেষ [[৩৯৪]] খ্রিষ্টাব্দেখ্রিস্টাব্দে [[ফিলি|ফিলিতে]] অবস্থিত দেবী [[আইসিস|আইসিসের]] মন্দিরের গায়ে লেখা হয়। হায়ারোগ্লিফিক লিপি অধিকাংশ ক্ষেত্রেই উৎকীর্ণ অবস্থায় পাওয়া গেছে। আর ষষ্ঠ শতকে আইসিসের মন্দিরে বন্ধ করে দেয়ার মাধ্যমে মিশরীয় লিপির দ্বীপশিখা নিভে যায়।<ref name="HHK"/>
 
== পাঠোদ্ধার ==
তারপর এই লিপির পাঠোদ্ধারে এগিয়ে আসেন গণিত ও প্রাচ্যভাষার অধ্যাপক আথানিয়াস কির্শার। তিনি [[কপ্টিক ভাষা]] ও [[গ্রিক ভাষা]] বিশ্লেষণ করে দেখিয়েছিলেন যে, কপ্টিক ভাষা আসলে হায়ারোগ্লিফিকেরই বিবর্তিত রূপ। তাই তিনি কপ্টিক ভাষার মাধ্যমে হায়ারোগ্লিফিকের অনুবাদ করতে গেলেন। কিন্তু তিনিও বিশ্বাস করতেন এই ভাষা পবিত্র, আর তাতেই তিনি তাঁর অনুবাদকে ভুল পথে পরিচালিত করেছিলেন। তিনি শব্দলিপিকে ভাবলিপি ধরে নিয়ে ধর্মসংশ্লিষ্ট অনুবাদ দাঁড় করালেন একটি স্মৃতিস্তম্ভের গায়ের সাতটি হায়ারোগ্লিফিক চিহ্নকে।<ref name="HHK"/>
 
হায়ারোগ্লিফিকসহ অন্যান্য প্রাচীন মিশরীয় লিখন পদ্ধতি সম্পর্কে আগের ভুল ধারণাগুলো ভাঙার শুরু অষ্টাদশ শতকের শেষ দিকে। তখনই অনেক গবেষক হায়ারোগ্লিফিককে শব্দলিপি বলে সন্দেহ করতে থাকলেন। তখন গবেষকদের হাতে এলো উপবৃত্তাকার এক প্রকারের ফ্রেম, যার [[ফরাসি]] নাম কার্তুশ। তাঁরা ধারণা করলেন এগুলোতে হয়তো ফারাও অথবা তাঁদের পত্নিদের নাম লেখা থাকতে পারে। যোহান গেয়র্গ [[১৭৯৭]] খ্রিষ্টাব্দেখ্রিস্টাব্দে প্রকাশিত তাঁর একটি বইয়ে এরকম অনেকগুলো কার্তুশের সাদৃশ্য-বৈসাদৃশ্য তুলে ধরে জানান, সদৃশ কার্তুশগুলো একই ব্যক্তির নাম আর বৈসদৃশ কার্তুশগুলো ভিন্ন ভিন্ন নাম।<ref name="HHK"/>
 
এরপর [[১৭৯৮]] খ্রিষ্টাব্দেখ্রিস্টাব্দে [[নেপোলিয়ন]] [[প্রাচীন মিশর|মিশর]] আক্রমণ করেন এবং [[১৭৯৯]] খ্রিষ্টাব্দেখ্রিস্টাব্দে তাঁর সৈন্যরা বিখ্যাত [[রোসেটা কৃষ্ণশিলাপট]] উদ্ধার করেন। রোসেটা কৃষ্ণশিলাপট আসলে একটি শিলালিপি। এতে একই সাথে রয়েছে তিনটি স্তর ও তিন স্তরে তিন লিপি: প্রথম স্তরে মিশরীয় হায়ারোগ্লিফিক লিপি, দ্বিতীয় স্তরে [[হায়রাটিক লিপি]], আর তৃতীয় স্তরে [[গ্রিক লিপি]]। কিন্তু লেখার [[ভাষা]] ছিলো দুটি: [[মিশরীয় ভাষা|মিশরীয়]] আর [[গ্রিক ভাষা]]। [[টলেমি রাজবংশ|টলেমি রাজবংশের]] রাজা [[পঞ্চম টলেমি]] [[এপিফানেস]] [[খ্রিষ্টপূর্ব ১৯৬|১৯৬ খ্রিষ্টপূর্বাব্দে]] এক ফরমান জারি করেন, যা মিশরীয় পুরোহিতদের তত্ত্বাবধানে রোসেটা কৃষ্ণশিলাপটে উৎকীর্ণ হয়। এই দ্বিভাষিক ত্রিলিপি অংকিত শিলালিপিটিই খুলে দিয়েছিলো মিশরীয় লিপি ও ভাষা পঠনের দুয়ার।<ref name="HHK"/>
 
পরবর্তিতে হায়ারোগ্লিফিক লিপির পাঠোদ্ধার করেন [[ফরাসি]] জাঁ ফ্রাঁসোয়া শাঁপোলিয়ঁ এবং [[ব্রিটিশ]] [[পদার্থবিজ্ঞান|পদার্থবিদ]] টমাস ইয়ং।<ref name="HHK"/>
২,০০,১০৩টি

সম্পাদনা