"লিভ টাইলার" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

+
(start)
 
(+)
 
'''লিভ রান্ডগ্রেন টাইলার''' ({{lang-en|Liv Rundgren Tyler}}) (জন্ম: ১ জুলাই, ১৯৭৭) একজন [[যুক্তরাষ্ট্র|মার্কিন]] অভিনেত্রী ও মডেল। তিনি ১৪ বছর বয়সে মডেলিং দিয়ে গণমাধ্যমে পদার্পণ করেন, কিন্তু এক বছর পূর্ণ হবার আগেই তিনি মডেলিংয়ের পরিবর্তে অভিনয়ের প্রতি বেশি আকৃষ্ট হওয়া শুরু করেন। ১৯৯৪ সালে ''সাইলেন্ট ফল'' চলচ্চিত্রে অভিনয়ের মাধ্যমে চলচ্চিত্রাভিনয়ে তাঁর অভিষেক ঘটে। এরপর তিনি ''[[এম্পায়ার রেকর্ডস'' (১৯৯৫), ''[[হিভি (চলচ্চিত্র)|হিভি]]'' (১৯৯৬), ও ''[[দ্যাট থিং ইউ ডু!]]'' (১৯৯৬) চলচ্চিত্রে অভিনয় করেন। ১৯৯৬ সালে তাঁর অভিনীত ''[[স্টিলিং বিউটি]]'' চলচ্চিত্রে অভিনয়ের মাধ্যমে তিনি সমালোচকদের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন। এছাড়াও ''[[ইনভেন্টিং দ্য অ্যাবটস]]'' (১৯৯৭) ও ''[[কুকি’স ফরচুন]]'' (১৯৯৯) চলচ্চিত্রে তাঁর অভিনয়ও সমালোচকদের দৃষ্টি কাড়তে সমর্থ হয়।
 
আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র অঙ্গনে টাইলারের পরিচিতি শুরু ''[[দ্য লর্ড অফ দ্য রিংস ত্রয়ী|দ্য লর্ড অফ দ্য রিংস]]'' চলচ্চিত্রে এল্‌ফ মেইডেন আরওয়েনের ভূমিকায় অভিনয় করার মাধ্যমে। এরপর তিনি ''জার্সি গার্ল'' (২০০৪), [[স্বাধীন চলচ্চিত্র]] ''লোনসাম জিম'' (২০০৫), নাট্য চলচ্চিত্র ''রাইন ওভার মি'' (২০০৭) সহ বিভিন্ন চলচ্চিত্রে অভিনয় করেন। এছাড়া তিনি বড় বাজেটের ছবি, যেমন: ''আরমাগেদন (১৯৯৮), ''দ্য স্ট্রেঞ্জার্স'' (২০০৮), ''দ্য ইনক্রেডিবল হাক'' (২০০৮) চলচ্চিত্রেও বিভিন্ন ভূমিকায় অভিনয় করেন।
 
২০০৩ সালে টাইলার [[জাতিসংঘ শিশু তহবিল]] (ইউনিসেফ)-এর একজন শুভেচ্ছাদূত। এছাড়াও তিনি গিভেঞ্চি সুগন্ধী ও প্রসাধনীর একজন মুখপাত্র। ২০০৩ সালে তিনি স্পেসহগ ব্যান্ডের সঙ্গীতশিল্পী রয়স্টোন ল্যাংডনকে বিয়ে করেন। ২০০৪ সালের ১৪ ডিসেম্বর তাঁদের একমাত্র সন্তান মিলোর জন্ম হয়। পরবর্তীতে ২০০৮ সালের মে মাসে এই দম্পতি তাঁদের আলাদা হয়ে যাবার কথা ঘোষণা করেন।
 
== তথ্যসূত্র ==
২৫,২৭৯টি

সম্পাদনা