রামমোহন রায়: সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

# ''গোস্বামীর সহিত বিচার'' (জুন, ১৮১৮): মৃত্যুঞ্জয় বিদ্যালঙ্কারের পর [[গৌড়ীয় বৈষ্ণবধর্ম|গৌড়ীয় বৈষ্ণব]]-মতাবলম্বী জনৈক গোস্বামী রামমোহন রায়ের বিরুদ্ধে পুস্তক প্রকাশ করেন। ব্রজেন্দ্রনাথ বন্দ্যোপাধ্যায় ও সজনীকান্ত দাসের অনুমান, এই গোস্বামীর নাম সম্ভবত 'রামগোপাল শর্মণঃ'। এই গ্রন্থের প্রতিক্রিয়াস্বরূপ রামমোহন রায় রচনা করেন ''গোস্বামীর সহিত বিচার''। এই গ্রন্থে রামমোহন লিখেছিলেন, "এই গ্রন্থের বিশেষ বিচার্য এই যে, ভাগবত শাস্ত্রই যথার্থ বেদার্থ নির্ণায়ক নহে; বেদার্থ নির্ণয়ে শ্রুতি-স্মৃতিরই প্রাধান্য আছে।"<ref>"গ্রন্থপরিচয়", ''রামমোহন রচনাবলী'', রাজা রামমোহন রায়, প্রধান সম্পাদক: ড. অজিতকুমার ঘোষ, সম্পাদক: মণি বাগচি, ড. শিবদাস চক্রবর্তী, আবদুল আজীজ আল্‌-আমান, হরফ প্রকাশনী, কলকাতা, পৃ. ৪১৮</ref>
# ''সহমরণ বিষয়ে প্রবর্ত্তক ও নিবর্ত্তকের সম্বাদ'' (আনুমানিক নভেম্বর, ১৮১৮): সহমরণ বিষয়ে রামমোহন রায় ভিন্ন ভিন্ন সময়ে যে তিনখানি পুস্তিকা রচনা করেন, এই বইটি সেগুলির মধ্যে প্রথম। পুস্তিকাটিতে প্রকাশকাল মুদ্রিত না থাকায় এটির প্রকৃত প্রকাশকাল জানা যায় না। ১৮১৮ সালের ২৬ ডিসেম্বর ''সমাচার দর্পণ'' পত্রিকায় প্রকাশিত একটি সংবাদে এই পুস্তিকাটির নাম পাওয়া যায়। উল্লেখ্য, সেই বছরই ৩০ নভেম্বর এই পুস্তিকাটির ইংরেজি অনুবাদ প্রকাশিত হয়েছিল।<ref>"গ্রন্থপরিচয়", ''রামমোহন রচনাবলী'', রাজা রামমোহন রায়, প্রধান সম্পাদক: ড. অজিতকুমার ঘোষ, সম্পাদক: মণি বাগচি, ড. শিবদাস চক্রবর্তী, আবদুল আজীজ আল্‌-আমান, হরফ প্রকাশনী, কলকাতা, পৃ. ৪১৮</ref>
# ''গায়ত্রীর অর্থ'' (১৮১৮): বইটি "ভূমিকা" ও "গ্রন্থ" - এই দুই অংশে বিভক্ত। ভূমিকা অংশে রামমোহন বলেন, [[ব্রাহ্মণ (বর্ণ)|ব্রাহ্মণেরা]] প্রতিদিন যে [[গায়ত্রী মন্ত্র]] জপ করেন, তা আসলে [[ব্রহ্ম|পরব্রহ্মেরই]] উপাসনা। এরপর গ্রন্থ-অংশে গায়ত্রীর অর্থ বাংলায় ব্যাখ্যা করে তিনি সেই কথাটিই প্রতিপন্ন করেছেন।<ref>"গ্রন্থপরিচয়", ''রামমোহন রচনাবলী'', রাজা রামমোহন রায়, প্রধান সম্পাদক: ড. অজিতকুমার ঘোষ, সম্পাদক: মণি বাগচি, ড. শিবদাস চক্রবর্তী, আবদুল আজীজ আল্‌-আমান, হরফ প্রকাশনী, কলকাতা, পৃ. ৪১৯</ref>
 
===সংস্কৃত গ্রন্থাবলি===