যতীন সরকার: সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

ট্যাগ: মোবাইল সম্পাদনা মোবাইল ওয়েব সম্পাদনা
ট্যাগ: মোবাইল সম্পাদনা মোবাইল ওয়েব সম্পাদনা
আনুষ্ঠানিক লেখাপড়া শুরু হয় রামপুর ফ্রি বোর্ড প্রাইমারি স্কুলে। ১৯৫৪ খ্রিষ্টাব্দে তিনি মেট্রিক পরীক্ষায় পাস করেন। টিউশনি ক'রে টাকা জমিয়ে ১৯৫৫ খ্রিষ্টাব্দে আইএ-তে ভর্তি হন নেত্রকোণা কলেজে। এ সময় নেত্রকোণা শহরে তিনি লজিং থাকতেন। এ সময় নেত্রকোণা কলেজের ছাত্রসংসদের সাহিত্য সম্পাদক নির্বাচিত হন। আইএ পাশের পর ১৯৫৭ খ্রিষ্টাব্দে ময়মনসিংহের [[আনন্দমোহন কলেজ (বাংলাদেশ)|আনন্দমোহন কলেজে]] বিএ ক্লাশে ভর্তি হন। ১৯৫৯ খ্রিষ্টাব্দে বিএ পরীক্ষা দিয়েই জীবিকার তাগিদে শিক্ষকতা শুরু করেন নেত্রকোণার আশুজিয়া হাইস্কুলে। এরপর তিনি শিক্ষকতা করেন বারহাট্টা থানা সদরের হাইস্কুলে। ১৯৬১ খ্রিষ্টাব্দে তিনি বাংলা ভাষা ও সাহিত্য অধ্যয়নের জন্য [[রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়|রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে]]। এমএ পাস করেন তিনি ১৯৬৩-তে। এ বছরই তিনি যোগ দেন ময়মনসিংহ জেলার গৌরীপুর হাইস্কুলে বাংলার মাস্টার হিসেবে। পরবর্তী বৎসরে, ১৯৬৪ খ্রিষ্টাব্দে, তিনি ময়মনসিংহ শহরের নাসিরাবাদ কলেজে বাংলা বিষয়ে লেকচারার পদে চাকুরি লাভ করেন। ১৯৬৭ খ্রিষ্টাব্দে কানন আইচ-এর সঙ্গে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন। যতীন সরকার এক পুত্র ও এক কন্যা সন্তানের জনক ছিলেন।
== সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক ==
১৯৬০ এর দশকের শেষের দিকে, সরকার ময়মনসিংহের সাংস্কৃতিক কর্মকান্ডেরকর্মকাণ্ডে জড়িত হয়েছেন।ছিলেন। তার উপস্থিতি শহরে প্রতিটি সাহিত্যিক, সাংস্কৃতিক ও শিক্ষামূলক প্রোগ্রামে অনিবার্য ছিল। তিনি বর্তমানে সাংস্কৃতিক উদিচীউদীচী শিল্পী গোষ্ঠীর সভাপতি। ১৯৫৮ সালে প্রতিষ্ঠিত করেন জাতীয় সাংস্কৃতিক। তিনি দীর্ঘকাল ধরে ময়মনসিংহ প্রেস ক্লাবের সদস্য ছিলেন। ২০০৭ সালে তিনি শমজ নামে একটি পত্রিকা শুরু করেছিলেনসমাজ, অর্থনীতি ও রাস্ট্রোরাষ্ট্র (টিনামে দ্যাএকটি সোসাইটি,পত্রিকা অর্থনীতি ওশুরু রাজ্য)।করেছিলেন।
 
== রাজনৈতিক দর্শন ==
তিনি সর্বদা মানবাধিকার নিশ্চিতকরণ এবং সামাজিক নিপীড়ন, বৈষম্য ও সাম্প্রদায়িক রাজনীতির প্রতিহত করার জন্য কথা বলেছে। ২৯ এপ্রিল ২০০৬ তারিখে, তিনি জাতীয় নির্বাচন নীতি ও ময়মনসিংহের নাগরিক সমাজের উদ্যোগে আঞ্চলিক সংলাপের সভাপতিত্ব করেন। ২০০৬ সালে বিশ্ব প্রেস ফ্রিডম ডে পালন করে ময়মনসিংহে অনুষ্ঠিত একটি সভাপতিত্বের করেন, সভাপতিত্বকালে তিনি বলেন, এখন সবকিছুই টাকা দিয়ে করা হয় এবং ফলস্বরূপ, সংবাদপত্রের মালিকানা ও নিয়ন্ত্রণের পর থেকে প্রেসের স্বাধীনতা নিশ্চিত করা এত কঠিন। কর্পোরেশন এবং ব্যবসা চুম্বক যারা পুঁজিবাদের পক্ষে কাজ করে এবং পুঁজিবাদী সাম্রাজ্যবাদ এবং বিশ্বায়নের এজেন্ট হিসেবে কাজ করে। অবশ্যই মিডিয়া এবং উন্নয়ন ও দারিদ্র্য বিমোচনের মধ্যে দৃঢ় সম্পর্ক রয়েছে, কিন্তু সমাজ থেকে দুর্নীতি, অবিচার, বৈষম্য ইত্যাদি দূর না হওয়া পর্যন্ত দারিদ্র্য কমিয়ে আনা যাবে না। তিনি সকলকে স্বাধীনতা অর্জনের আহ্বান জানান এবং ধারাবাহিক সংগ্রামের মাধ্যমে নিজের অধিকার প্রতিষ্ঠা করার আহ্বান জানান। তিনি বিশ্বাস করেন যে ১৯৭২ সালের সংবিধানের ভিত্তিতে ধর্মভিত্তিক রাজনীতি নিষিদ্ধ করা উচিত। তিনিও মনে করেন সংসদ সদস্যগণ আইন ছাড়া অন্য কার্যক্রম জড়িত হওয়া উচিত নয়।