"সর্বপ্রাণবাদ" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

{{আধ্যাত্মিকতা পার্শ্বদণ্ড}}
(বহিঃসংযোগসমূহ → বহিঃসংযোগ)
({{আধ্যাত্মিকতা পার্শ্বদণ্ড}})
 
{{আধ্যাত্মিকতা পার্শ্বদণ্ড}}
{{lead too short|date=সেপ্টেম্বর ২০১৪}}
'''সর্বপ্রাণবাদ''' ([[ইংরেজি ভাষা|ইংরেজি]]: Animism) ([[ল্যাটিন ভাষা]] ''animus, -i'' "[[Soul (spirit)|আত্মা]], [[জীবন]]" থেকে)<ref name = "ooviqc">Segal, p. 14.</ref> হচ্ছে মানব-বিহীন সত্ত্বাগুলোতে (প্রাণীসমূহ, উদ্ভিদসমূহ এবং প্রাণহীন বস্তুসমূহ বা ইন্দ্রিয়গোচর বস্তুসমূহে) আধ্যাত্মিক নির্যাস বিরাজিত থাকা।<ref>{{সাময়িকী উদ্ধৃতি|শেষাংশ=Stringer|প্রথমাংশ=Martin D.|শিরোনাম=Rethinking Animism: Thoughts from the Infancy of our Discipline|সাময়িকী=Journal of the Royal Anthropological Institute|বছর=1999|খণ্ড=5|সংখ্যা নং=4|পাতাসমূহ=541–56|ডিওআই=10.2307/2661147}}</ref><ref>{{সাময়িকী উদ্ধৃতি|শেষাংশ=Hornborg|প্রথমাংশ=Alf|শিরোনাম=Animism, fetishism, and objectivism as strategies for knowing (or not knowing) the world|সাময়িকী=Ethnos: Journal of Anthropology|বছর=2006|খণ্ড=71|সংখ্যা নং=1|পাতাসমূহ=21–32|ডিওআই=10.1080/00141840600603129}}</ref><ref>{{বই উদ্ধৃতি|শিরোনাম=What Is Religion?: An Introduction|লেখক=Haught, John F.|পাতা=19|প্রকাশক=Paulist Press|বছর=1990|ইউআরএল=http://books.google.com/books?id=JOyNDbsXUy4C&printsec=frontcover}}</ref> অন্য অর্থে, প্রকৃতির সব কিছুকেই সপ্রাণ মনে করা, সব ক্রিয়াকলাপের পেছনে প্রাণের অস্তিত্বকে অনুভব করাই হলও সর্বপ্রাণবাদ।<ref>[[সমীরণ মজুমদার]], সামাজিক বিভাজনের রূপ ও রূপান্তর; নান্দীমুখ সংসদ, ২০০৩; পৃষ্ঠা-৩২, মধ্যাংশ।</ref>
৫৩,৪০৩টি

সম্পাদনা