সেপালা আত্তিগাল্লে: সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

সম্পাদনা সারাংশ নেই
সম্পাদনা সারাংশ নেই
১৯৬২ সালের ১ ডিসেম্বর তাকে কর্নেল পদে পদোন্নতি দেওয়া হয়; তিনি সেনা বাহিনী পানাগোডা সেনানিবাসের কমান্ডার হিসেবে নিয়োগ গ্রহণ করেছিলেন, সিলোন আর্মার্ড কোর কমান্ডিং অফিসার হিসেবে দায়িত্ব পালন করার সময়। ১৯৬৩ সালের জুনে তিনি যুগোস্লাভিয়ার একটি সরকারী সফরে গিয়েছিলেন, সেখানে তিনি গেরিলা যুদ্ধের প্রশিক্ষণ কোর্স করিয়েছিলেন। ১৯৬৩ সালের ১৩ আগস্ট সেনা বাহিনী পানাগোডা সেনানিবাসের কমান্ডারের দায়িত্ব শেষ করার পরে, তিনি কমান্ডার নিযুক্ত হন, টাস্কফোর্স অ্যান্টি ইলজিট ইমিগ্রেশনের ১৯৬৩ সালের ১৪ আগস্ট, তিনি সেনাবাহিনীর সদর দপ্তরের প্রশিক্ষণ পরিদর্শকের দায়িত্বও পালন করেছিলেন। তারপরে ১৯৬৪ সালের ২১ শে মার্চ তিনি সেনাবাহিনীর চিফ অব স্টাফ নিযুক্ত হন। তিনি ১৯৬৫ সালের ৩০ জুন টাস্কফোর্স অ্যান্টি ইলিশিট ইমিগ্রেশন-এর কমান্ড ত্যাগ করেন এবং ১৯৬৬ সালে তিনি ইম্পেরিয়াল ডিফেন্স কলেজে যোগ দেন। ফিরে আসার পরে তিনি পুনরায় অফিসার চিফ অব স্টাফ হিসেবে দায়িত্ব শুরু করেন।
 
১৯৬৭ সালের ২২ সেপ্টেম্বর তাকে ব্রিগেডিয়ার পদে পদোন্নতি দেওয়া হয় এবং মেজর জেনারেল বি.আর হেইনের অবসর গ্রহণের পরে সেনাবাহিনীর ভারপ্রাপ্ত কমান্ডার নিযুক্ত হন। হেইনের অবসর গ্রহণের দিন ১৯৬৭ সালের ১ অক্টোবর আত্তিগাল্লেকে মেজর জেনারেল পদে পদোন্নতি দেওয়া হয় এবং সেনাবাহিনীর কমান্ডার হিসেবে নিয়োগ প্রদান করা হয়। তার নেতৃত্বে সেনাবাহিনী একাত্তরের বিদ্রোহকে দু'মাসের মধ্যেই চূর্ণ করে এবং ১৯৭৪ সালের ৪ এপ্রিল তাকে লেফটেন্যান্ট জেনারেল পদে পদোন্নতি দেওয়া হয়, এইভাবে এই পদে অধিষ্ঠিত শ্রীলঙ্কা সেনাবাহিনীর প্রথম কর্মকর্তা হিসাবে দায়িত্ব পালন করেন। অবসর গ্রহণের দিন, ১৯৭৭ সালের ১৩ ই অক্টোবর, কমান্ডার হিসাবে দশ বছর দায়িত্ব পালন করার পরে, তাকে জেনারেল পদে পদোন্নতি দেওয়া হয়েছিল, এইভাবে একজন পূর্ণাঙ্গ জেনারেল ও দীর্ঘকালীন পদে অধিষ্ঠিত প্রথম শ্রীলঙ্কার সেনা অফিসার হয়েছিলেন।
==তথ্যসূত্র==
{{ সূত্র তালিকা }}
৫৪২টি

সম্পাদনা