"পূর্ব নাগরী লিপি" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

এর সম্পর্কে বিখ্যাত আল-বেরুনীর মন্তব্য দেখুন।
(বানান ও অন্যান্য সংশোধন)
(এর সম্পর্কে বিখ্যাত আল-বেরুনীর মন্তব্য দেখুন।)
ট্যাগ: মোবাইল সম্পাদনা মোবাইল ওয়েব সম্পাদনা দৃশ্যমান সম্পাদনা পুনর্বহালকৃত
|languages=[[অসমীয়া]]</div><div>[[বাংলা]]</div><div>[[বিষ্ণুপ্রিয়া মনিপুরী]]</div><div>[[মৈতৈ]]</div><div>এবং অন্যান্য</div>
|time=সি ১১০০-বর্তমান
|fam1=প্রোটো সিনেইটিক বর্ণমালা <sup>[a]</sup>|fam2=[[ফিনিশীয় বর্ণমালা]] <sup>[a]</sup>|fam3=এরামিক বর্ণমালা <sup>[a]</sup>|fam4=[[ব্রাহ্মী লিপি]]|fam5=গুপ্ত|fam6=সিদ্ধম|sisters=বাংলা, বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরী, [[মৈথিলী]] ও অসমীয়া|iso15924=Beng|unicode=[http://www.unicode.org/charts/PDF/U0980.pdf U+0980–U+09FF]|footnotes=[a] সেমেটিক অঞ্চলের ব্রাহ্মী লিপি সার্বজনীন ভাবে স্বীকৃত নয়।}}'''পূর্ব নাগরী বর্ণমালালিপি,''' বাবাংলা লিপির অবাঙালি নাম। বাংলা লিপি <big>'''প্রাচ্যগৌড়ী নাগরীলিপি''' </big> থেকে এসেছে।<ref>{{বই উদ্ধৃতি|ইউআরএল=https://books.google.com.au/books?id=AqKw1Mn8WcwC&pg=PA126|শিরোনাম=Studies in the Geography of Ancient and Medieval India|শেষাংশ=Sircar|প্রথমাংশ=Dineschandra|তারিখ=1971|প্রকাশক=Motilal Banarsidass Publ.|ভাষা=en|আইএসবিএন=978-81-208-0690-0}}</ref> বিখ্যাত[[বাংলাআবু ভাষারায়হান আল-বেরুনি|বাংলাআল-বেরুনি]], ১০৩০ সালে পূর্ব-দেশী ([[গৌড় রাজ্য|গৌড় রাজ্যের]]) '''গৌড়ী বর্ণমালা''' হিসেবে উল্লেখ করেন।<ref>{{বই উদ্ধৃতি|ইউআরএল=https://books.google.com.au/books?id=AqKw1Mn8WcwC&pg=PA126|শিরোনাম=Studies in the Geography of Ancient and Medieval India|শেষাংশ=Sircar|প্রথমাংশ=Dineschandra|তারিখ=1971|প্রকাশক=Motilal Banarsidass Publ.|ভাষা=en|আইএসবিএন=978-81-208-0690-0}}</ref> [[মৈথিলী ভাষা|মৈথিলী]] ও [[অসমীয়া ভাষা|অসমীয়]] ভাষাসহ বেশ কিছু ভাষায় ক্ষুদ্র বৈচিত্র সহকারে ব্যবহৃত হয়। এর ব্যবহার মূলত বাংলা ও অসমীয় ভাষাতেই অধিক। এই লিখন পদ্ধতি কে বা কারা আবিষ্কার করেছে এটা নিয়ে বিতর্ক রয়েছে। অসমীয়া ভাষাভাষীদের দাবি, এটা তাদের আবিষ্কার এবং বাংলা ভাষা ভাষীদের দাবি এটা তাদের নিজের আবিষ্কার। '''পূর্ব নাগরী লিপি''' [[পৃথিবীর লিখন পদ্ধতিসমূহ|বিশ্বের ৫ম]] সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত লিখন পদ্ধতি। জানা যায় এই বর্ণমালা ঐতিহাসিক ভাবে বিভিন্ন ভাষা যেমন, [[বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরী ভাষা|বিষ্ণুপ্রিয়া মনিপুরী]], [[মৈতৈ ভাষা|মৈতৈ মনিপুরী]] ও [[ককবরক ভাষা]]য় ব্যবহৃত হয়েছে। আরো কিছু ভাষা যেমন, খাসি, বোদো, কারবি, মিসিং ইত্যাদিতে পূর্বযুগে এই বর্ণমালায় লেখা হতো। <ref>Prabhakara, M S [http://www.hinduonnet.com/2005/05/19/stories/2005051904051100.htm Scripting a solution] {{ওয়েব আর্কাইভ|ইউআরএল=https://web.archive.org/web/20070710202520/http://www.hinduonnet.com/2005/05/19/stories/2005051904051100.htm |তারিখ=১০ জুলাই ২০০৭ }}, The Hindu, 19 May 2005.</ref>
 
== বিবরণ ==
১৯টি

সম্পাদনা