"খাদ্য নিরাপত্তা" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

→‎তথ্যসূত্র: সম্প্রসারণ
(2টি উৎস উদ্ধার করা হল ও 0টি অকার্যকর হিসেবে চিহ্নিত করা হল। #IABot (v2.0beta10ehf1))
(→‎তথ্যসূত্র: সম্প্রসারণ)
 
দারিদ্র‌্য ও খাদ্য গ্রহণের হারের মধ্যে সরাসরি সম্পর্ক আছে। যেসব পরিবারের চরম দারিদ্র‌্য এড়ানোর সামর্থ্য আছে, তারা কদাচিৎ দীর্ঘস্থায়ী ক্ষুধার শিকার হয়। অন্যদিকে দরিদ্র পরিবারগুলি কেবল ক্ষুধার শিকারই নয়, খাদ্যস্বল্পতা ও দুর্ভিক্ষের সময় এরাই সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়।
 
== খাদ্য নিরাপত্তার প্রধান স্তম্ভসমূহ ==
WHO খাদ্য নিরাপত্তার ক্ষেত্রে তিনটি প্রধান স্তম্ভ নির্ধারণ করেছে। এগুলো হলঃ খাদ্যের পর্যাপ্ততা, খাদ্যের সহজলভ্যতা এবং খাদ্যের ব্যবহার-অপব্যবহার।<ref>{{cite web|url=https://www.who.int/trade/glossary/story028/en/|title=Food Security|last=WHO|access-date=15 October 2013}}</ref> FAO চার নম্বর স্তম্ভটি যুক্ত করেছে। এটি হল স্থায়ীত্ব। অর্থাৎ অপর তিনটি স্তম্ভ সবসময় যেন স্থায়ী হয় সেদিকে খেয়াল রাখা।<ref name="FAO">{{cite journal|url=http://www.fao.org/economic/esa/esa-activities/en/|title=Food Security|last=FAO Agricultural and Development Economics Division|date=June 2006|access-date=June 8, 2012|issue=2}}</ref> ২০০৯ সালে ওয়ার্ল্ড সামিট বলেছে, "খাদ্য নিরাপত্তার প্রধান চারটি স্তম্ভ হচ্ছে পর্যাপ্ততা, সহজলভ্যতা, সদ্ব্যব্যবহার ও স্থায়ীত্ব।<ref name="autogenerated2009">{{cite book|url=http://www.fao.org/fileadmin/templates/wsfs/Summit/Docs/Final_Declaration/WSFS09_Declaration.pdf|title=Declaration of the World Food Summit on Food Security|last=FAO|year=2009|publisher=Food and Agriculture Organization of the United Nations|location=Rome}}</ref>
 
== তথ্যসূত্র ==